বৃহস্পতিবার ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

টালবাহানার শেষ নেই আলেশা মার্টের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পাওনা টাকার দাবিতে প্রতিদিনই আলেশা মার্টের দুটি অফিসে অবস্থান নিচ্ছেন গ্রাহকরা। কিন্তু প্রতিদিনই গ্রাহকদের ফিরতে হচ্ছে খালি হাতে। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ফেসবুক লাইভে এসে বার বার আশ্বাস দিলেও চেক বা নগদ টাকা জুটছে না গ্রাহকদের ভাগ্যে। গ্রাহকরা জানান, প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যানের কথা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার অনেকেই টাকা নিতে এসেছিলেন। তবে গ্রাহকদের সঙ্গে দেখা না করেই চলে যান উর্ধতন কর্মকর্তারা। ছয়-সাত মাস ধরে টাকার জন্য ঘুরছেন আলেশা মার্টের এসব গ্রাহক। এর আগে গত বুধবার পাওনা টাকার দাবিতে আলেশা মার্টের অফিসে আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল শিক্ষার্থী। সকাল থেকে বিভিন্ন কথা বলে তাদের ঘোরাতে থাকে আলেশা মার্ট কর্তৃপক্ষ। এদিকে বৃহস্পতিবার এক ভিডিও বার্তায় প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মোঃ মঞ্জুর আলম শিকদার বলেছেন, এসএমএস ছাড়া কোন গ্রাহক যাতে অফিসে না আসে। এসএমএস দেখে টাকা ফেরতের নিশ্চয়তা দিয়ে বলেছেন, জানুয়ারির মধ্যেই সব টাকা পাবে গ্রাহক।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বনানীতে প্রতিষ্ঠানটির অফিসে গিয়ে দেখা যায়, পাওনা টাকার দাবিতে অবস্থান নিয়েছেন গ্রাহকরা। তারা বলছেন, দীর্ঘদিন অপেক্ষার পর পণ্য না পেয়ে চেক বা নগদ টাকার জন্য তারা এসেছেন। তেজগাঁওয়ের আরেকটি অফিসেও একই অবস্থা। সাদমান নামের এক গ্রাহক বলেন, প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যানের কথা অনুযায়ী গতকাল কয়েকজন টাকা নিতে এসেছিল। তবে তিনি গ্রাহকদের সঙ্গে দেখা না করেই চলে যান। রাতে অফিসে তালা মেরে চলে যান প্রতিষ্ঠানটির কর্মীরা। গত জুন মাসে মোটরসাইকেল অর্ডার করে এখনও পাননি বেসকারী প্রতিষ্ঠানের এই কর্মী। ছয়-সাত মাস ধরে টাকার জন্য তিনি আলেশা মার্টে আসছেন বলে জানান। আলেশা মার্টের চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম শিকদারের দেয়া কথা অনুযায়ী গত বুধবার সকালে টাকা ফেরত নিতে যান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তবে সকাল থেকে বিভিন্ন কথা বলে তাদের ঘোরাতে থাকে আলেশা মার্ট কর্তৃপক্ষ। একপর্যায়ে টাকা না দেয়ায় উপস্থিত শিক্ষার্থীরা স্লোগান দিলে তাদেরকে ধাক্কা দেন ওই প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তাকর্মীরা। ঢাবি শিক্ষার্থী রিদওয়ান উল্লাহ বলেন, আলেশা মার্ট আমার প্রোডাক্ট ডেলিভারি দেয়ার কথা বলে ৩ বার ডেট দিয়ে ৬ মাস ধরে ঘোরাচ্ছে। এর মাঝে আমার অর্ডার ফেরত চাইলেও তারা ফেরত দিচ্ছে না। ৬-৭ বার অফিসে এসেও সমাধান পাইনি। এরপর চেয়ারম্যান নিজে আমাদেরকে কথা দিয়েছেন টাকা দেবেন। কিন্তু উনি সারাদিন ঘুরিয়ে টাকা না দিয়েই অফিস ত্যাগ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী কামরুল হাসান বলেন, আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩০ শিক্ষার্থী আলেশা মার্টের বনানী অফিসে অবস্থান নিয়েছি। এর আগে আমরা গত সোমবার ৩০ জনই আলেশার অফিসে গিয়েছিলাম। তখন আলেশার চেয়ারম্যান নিজেই আমাদেরকে আজকে টাকা নিতে আসতে বলেন। এমনকি অফিসে ঢুকতে গিয়ে সিকিউরিটি গার্ডদের সঙ্গে ছাত্রদের হাতাহাতি হয়। আমরা সবাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা টাকা পাওয়ার আগ পর্যন্ত অফিসে অবস্থান করব। এখানে যে কোন সময় অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা : দেশে মৃত্যুশূন্য দিন         উত্তরা-আগারগাঁও রুটে ১৫ কিমি গতিতে চললো মেট্রোরেল         বাধা অতিক্রম করেই নারীদের এগিয়ে যেতে হবে ॥ প্রধানমন্ত্রী         রাজধানীর স্বামীবাগে একটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে র‍্যাব         ‘দুর্নীতিবাজ যে দলেরই হোক, আইনের আওতায় আনতে হবে’         বিদেশে যাবেন নাকি দেশে থাকবেন, সেটা মুরাদের সিদ্ধান্ত         জিয়া পরিবারের অনেক কীর্তি দেশের মানুষ জানে : ওবায়দুল কাদের         হাইকোর্টে এমপি হারুনের সাজা বহাল         সেজান জুস অগ্নিকাণ্ড : সর্বশেষ ৫ জনের মরদেহ হস্তান্তর         ডেঙ্গু : আক্রান্ত আরও ৩১ জন হাসপাতালে, মৃত্যু ১         ফোর্বসের ১০০ প্রভাবশালী নারীর তালিকায় ৪০ জনই সিইও         ইভ্যালির চেয়ারম্যান-এমডির নামে চেক প্রতারণার মামলা         রেলখাতে বিনিয়োগে আগ্রহী সুইজারল্যান্ড         আবরার হত্যা ॥ মেধাবী সন্তানদের খুনি বানাল কারা?         ঢাকায় পৌঁছেছে সেরামের আরও ২৫ লাখ ডোজ টিকা         সেন্টমার্টিন নেওয়ার কথা বলে ৪ স্কুলছাত্রকে অপহরণ         দুর্নীতিবাজদের সামাজিক-রাষ্ট্রীয়ভাবে বয়কট করতে হবে : প্রধান বিচারপতি         ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট ডেল্টা ধরনের তুলনায় দুর্বল ॥ ডব্লিউএইচও         রোকেয়া পদক পেলেন পাঁচ বিশিষ্ট নারী         ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ছিনতাইকারীর ফাঁকা গুলি