বৃহস্পতিবার ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

গাজীপুরে পুলিশের মহানুভবতায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেলেন রিক্সা চালক

গাজীপুরে পুলিশের মহানুভবতায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেলেন রিক্সা চালক

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর ॥ গাজীপুরে পুলিশের মহানুভবতায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন এক রিক্সা চালক। রবিবার গভীর রাতে যাত্রীবেশে ছিনতাইকারীরা ওই রিক্সা চালকের গলা কেটে তার ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। গুরুতর অবস্থায় তিনি ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আহতের ভাতিজা মোঃ আসলাম ও স্থানীয়রা জানান, গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাকের জেনারেল মুসা মার্কেট এলাকায় স্বপরিবারে ভাড়া বাসায় থেকে এলাকায় রিক্সা চালাতেন আব্দুল গফুর (৪৫)। তিনি কুড়িগ্রামের রাজারহাট থানার নাজিম খান বরনচর এলাকার মৃত পনির বেপারীর ছেলে। রবিবার রাত ১১টার দিকে যাত্রীবেশে দুই সশস্ত্র ছিনতাইকারী গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কোনাবাড়ি থানাধীন বাইমাইল এলাকার কাশেম কটন মিলের ১নং গেইটে যাওয়ার কথা বলে মৌচাক থেকে গফুরের রিক্সা ভাড়া করে রওনা হন। ওই দুই যাত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী রাত সাড়ে ১১টার দিকে গফুর রিক্সাটি নিয়ে ১নং গেইট অতিক্রম করে তুরাগ নদীর পাশে একটি নির্জনস্থানে পৌছেন।

এসময় রিক্সাটি থামিয়ে ছিনতাইকারীরা গফুরকে জাপটে ধরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার গলায় আহাত করে। এতে গফুরের গলার বেশ কিছু অংশ কেটে যায়। রক্তাক্ত গফুর আত্মরক্ষার্থে ঘটনাস্থল থেকে দৌড়ে পার্শ্ববর্তী একটি দোকানে গিয়ে আশ্রয় নেন। এসময় এলাকাবাসি এগিয়ে এলে ছিনতাইকারীরা পালিয়ে যায়।

জিএমপি’র কোনাবাড়ি থানার ওসি এমদাদ হোসেন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ গুরুতর আহত রিক্সা চালককে স্থানীয় পপুলার হাসপাতালে নিয়ে যায়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারনে গফুরের প্রাণ বাঁচাতে পুলিশ সদস্যরা তাৎক্ষণিকভাবে গফুরকে সেখানে রক্ত দেন। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য সেখান থেকে মুমূর্ষাবস্থায় তাকে উত্তরার একটি হাসপাতালে (সিন শিন জাপান হাসপাতাল) নেওয়া হয়। কিন্তু গফ’রের পরিবারের পক্ষে চিকিৎসার ব্যায় পরিশোধ করা সম্ভব নয় ভেবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার চিকিৎসা করতে অনীহা প্রকাশ করে। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে চিকিৎসার ব্যায় পরিশোধের আশ্বাস দিলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আহত রিক্সা চালকের চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু করেন। এসময় ওই রিক্সা চালকের প্রাণ বাঁচাতে কয়েক দফায় পুলিশের আরো ৩/৪জন সদস্য তাকে রক্ত দেন। তার অবস্থা এখন উন্নতির দিকে বলে চিকিৎসক জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে রিক্সা চালকের পরিবারকে ব্যক্তিগত উদ্যোগে অর্থ ও খাবার সহায়তা দিয়েছেন পুলিশের কয়েক সদস্য।

জিএমপি’র কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আহত ব্যক্তিটির প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ সদস্যরা আহত ব্যক্তিকে রক্ত না দিলে আহত ব্যক্তির প্রাণ বাঁচানো দুষ্কর হয়ে যেতো। এ মুহুর্তে আমাদের প্রধান দায়িত্ব হলো মরণাপন্ন ব্যাক্তিকে প্রাণে রক্ষা করা। এর পাশাপাশি ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা। এজন্য পুলিশের পক্ষ থেকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে। আহত ব্যক্তি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় থানায় এখনো মামলা দায়ের হয়নি। তবে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

শীর্ষ সংবাদ:
চার মাসেই লক্ষ্যমাত্রার ৭৮ শতাংশ সঞ্চয়পত্র বিক্রি         ৪ মাসে ৪ বিলিয়ন ডলার উদ্বৃত্ত         ফের ৯ দিনের রিমান্ডে গোল্ডেন মনির         দেশের প্রয়োজনে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের নির্দেশ সেনাপ্রধানের         প্রাথমিকের বই ২৭ ডিসেম্বরের মধ্যে বিদ্যালয়ে পৌঁছে দেয়ার সুপারিশ         খাগড়াছড়িতে স্বামী হত্যার দায়ে স্ত্রীসহ ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড         করোনা ভাইরাসে আরও ৩৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৩১৬         ধর্মীয় সহনশীলতা বিনষ্টের যেকোনো চেষ্টা কঠোরভাবে দমন করা হবে ॥ সেতুমন্ত্রী         জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কর্ম-পরিকল্পনা প্রণয়নের আহ্বান সায়মার         খুলনায় হ্যাচারী কর্মী হত্যায় তিন জনের মৃত্যুদণ্ড         ২০১৯ সালের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতলেন যারা         এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ধর্ষণ ॥ ৮ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট         সভা-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা পুনর্বিবেচনার আহ্বান জাফরুল্লাহর         ঢাবি শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলায় ছাত্র অধিকার পরিষদের তিন নেতা রিমান্ডে         বাস পোড়ানোর মামলায় অর্ধশতাধিক বিএনপি নেতার জামিন আপিলে বহাল         করোনায় ফ্রান্সের সাবেক প্রেসিডেন্টের মৃত্যু         ইরানের বিজ্ঞানী হত্যাকাণ্ডের পেছনে রয়েছে ইসরাইল: মার্কিন কর্মকর্তা         আগামী বছর ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রধান অতিথি হচ্ছেন বরিস         ভারতের নামীদামি কোম্পানির মধুতে ভেজাল!         ‘জুম’ দিয়ে বিশ্বজয়ের গল্প