বুধবার ৫ কার্তিক ১৪২৭, ২১ অক্টোবর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

এবার নূর, রাশেদ, ফারুকদের দুর্নীতির ফিরিস্তি ফাঁস!

এবার নূর, রাশেদ, ফারুকদের দুর্নীতির ফিরিস্তি ফাঁস!
  • ভাংগনের পর এবার ২১টি ইউনিটের দেয়া অভিযোগসহ আট দফা দাবি
  • অভিযোগের পাহাড় অভিযুক্ত নেতাদের বিরুদ্ধেই

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নারী ধর্ষণ, ত্রানের টাকা লোপাটকে কেন্দ্র করে ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের অধিকাংশ নেতার বিদ্রোহের মধ্যেই এবার ফাঁস হলো ডাকসুর সাবেক ভিপি নূরসহ তার সহযোগী শীর্ষ নেতাদের দুর্নীতি অনিয়মের ফিরিস্তি। কেন্দ্রীয় ও বিভাগীয় পর্যায়ের বহু নেতার বিদ্রোহে নূর, রাশেদ, ফারুককে অবাঞ্চিত করে নতুন কমিটি ঘোষণার মধ্যেই ফাঁস হয়েছে তাদের অনিয়মের বিরুদ্ধে সংগঠনের ২১টি ইউনিটের লেখা সম্মিলিত হুশিয়ারি। যেখানে আট দফা দাবি নিয়ে ২১ ইউনিটের নেতারা তুলে ধরেছেন নূর, রাশেদ, ফারুকসহ শীর্ষ কয়েক নেতার স্বেচ্চাচারিতা, দুর্নীতির ফিরিস্তি।

নিজেদের ‘সৎ চরিত্রবান’ দাবি করে উগ্রবাদী চেহারা নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে ফেলে দেয়ার হুঙ্কার দিলেও আস্তে আস্তে বেড়িয়ে আসছিলো কথিত কোটা সংস্কার আন্দোলনের ছাত্র অধিকার সংরক্ষন পরিষদের শীর্ষ নেতাদের আসল চেহারা। গত কিছুদিন ধরেই সংগঠনে অনেকটা এক ঘরে হয়ে পড়েছেন নূরসহ সহকর্মীর দায়ের করা ধর্ষণ মামলার সকল আসামী। একই সঙ্গে তাদের পাশে থাকা নেতা রাশেদ খান। এমন অবস্থার মধ্যেই বৃহস্পতিবার সহকর্মী নারীদের ধর্ষণ, নারী লাঞ্চনা, ত্রানের টাকা লুটপাট, ফাঁয়দা লেটার রাজনীতি, আর শীর্ষ কয়েক নেতার স্বেচ্ছাচারিতায় ভেঙ্গে যায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। কোটা সংস্কার ও সড়ক আন্দোলননে আলোচিত এ সংগঠন থেকে অপকর্মের জন্য শীর্ষ তিন নেতা নূরুল হক নূর, রাশেদ খান, ফারুক হোসেনকে অবাঞ্চিত করে ২২ সদস্যের নতুন আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এই ঘটনায় নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টির মধ্যেই শনিবার সংগঠনের নেতাদের মাধ্যমেই ফাঁস হয়েছে ২১ টি ইউনিটের বিদ্রোহসহ নানা ঘটনা। সংগঠনের নিজস্ব প্যাডে ২১ ইউনিটের দেয়া অভিযোগ ও দাবির তথ্য তুলে ধরে সংগঠনটির সাবেক যুগ্ম আহবায়ক ও নতুন ঘোষিত বাংলাদেশ সাধারন ছাত্র অধিকার সংরক্ষন পরিষদের আহবায়ক এপিএম সুহেল বলেছেন, যুব কমিটি স্থগিত করে পুনরায় সদস্য সচিব পদে ভোট গ্রহণ এবং ভোটার তালিকা হালনাগাদ, স্থায়ী কমিটি গঠন, গঠনতন্ত্র তৈরী, হিং¯্র-উশৃংখল নেতাদের বহিষ্কার, গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের ভোটাধিকার, আর্থিক স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করাসহ বিভিন্ন বিষয়ে ১০ দফা দাবিতে ছাত্র অধিকার পরিষদের ২১ টি ইউনিটের দায়িত্বশীল নেতারা আহ্বায়ক বরাবর চিঠি দেং।

৪৮ ঘন্টার মধ্যে দাবি না মানলে সকল ধরণের কার্যক্রম স্থগিত করা হবে অনির্দিষ্টকালের জন্য, প্রয়োজনে স্বেচ্ছাচারিতা ও স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে ‘বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ’ এর বিরুদ্ধাচারণ করা ও ঢাবি কেন্দ্রিক সিন্ডিকেট করার সঙ্গে জড়িত সকলকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করার আল্টিমেটাম দেন তারা।

বিদ্রোহ প্রশমন করতে মিটিং হয়। সেখানে বিদ্রোহকারীদের সঙ্গে নুরের বাকবিতন্ডা হয়। পরবর্তীতে বিদ্রোহে নেতৃত্বস্থানীয় ব্যাক্তিদের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম আহবায়ক এবং বিভাগীয় কমিটি গুলোতে পদ দিয়ে কোনমতে সংগঠনে শৃঙ্খলা আনা হয়। নুর কাউকে আর্থিক হিসাব দিত না। সে বিভিন্ন জায়গা থেকে টাকা আনত। জিগ্যেস করলে, সে গোয়েন্দা সংস্থার নজরদারি এড়ানোর অযুহাতে বিষয় গুলো গোপন রাখত ।

এদিকে ফাঁস হওয়া নফিতে দেখা যায়, ২১টি ইউনিটের দায়িত্বশীল নেতারা সাক্ষর করে অভিযোগের তথ্য তুলে ধরেছেন। বলা হয়, ‘এক মাস আগেও মানুষের আবেগ ও বিশ্বাস নিয়ে নোংরা রাজনীতি, আর্থিক অসচ্ছতা, স্বেছাচারিতা, অগণতান্ত্রিকভাবে সংগঠন পরিচালনা, ত্যাগী ও দুঃসময়ের সহযোদ্ধাদের মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে অবমূল্যায়ন করাসহ বিভিন্ন অনিয়মের বিরুদ্ধে সংগঠনের ২১টি ইউনিটের একযোগে লিখিত হুশিয়ারি।’

প্রথম দাবি তলে বলা হয়, ‘যুব কমিটি স্থগিত করে পুনরায় সদস্য সচিব পদে ভোট গ্রহণ এবং ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে হবে।’ এরপর বলা হয় ‘একটি স্থায়ী কমিটি গঠন করতে হবে যেখানে ৫০% থাকবে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে ও বাকি ৫০% থাকবে শাখা কমিটিগুলো থেকে। এই স্থায়ী কমিটি ছাত্র, যুব, প্রবাসী থেকে শুরু করে সকল অঙ্গ সংগঠন পরিচালনা করবে। যাতে সংগঠন এর শুরু থেকে কাজ করে আসা ত্যাগীরা পুরনো হয়ে গেলেও মুল্যায়ন পায় এবং সংগঠন এর মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যে ঠিক থাকে, স্বতন্ত্রতা বজায় থাকে। অন্য কোন দল থেকে কেউ এসে যাতে সংগঠন ভিন্ন খাতে পরিচালনা করতে না পারে। ছাত্র, যুব এবং প্রবাসী সহ সকল অঙ্গ সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটিও এই স্থায়ী কমিটির কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য থাকবে।’

তিন নম্বরে বলা হয় ‘অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গঠনতন্ত্র তৈরী করে তা প্রকাশ করতে হবে এবং সেই অনুযায়ী সংগঠন পরিচালনা করতে হবে। গঠনতন্ত্র প্রকাশের জন্যে নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করে তা বাস্তবায়ন করতে হবে।’ এরপর বলা ‘সোহরাব হোসেন ও নাজমুল হুদা সাত কলেজের নেতাদের মারতে আসা, অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও হুমকি দেয়ার কঠোর শাস্তি দিতে হবে। এবং সোহরাবের মত হিং¯্র গুন্ডা স্টাইলের নেতাকে কোনভাবেই কেন্দ্রীয় কমিটিতে রাখা যাবে না, প্রয়োজনে এই বিষয়ে ত্যাগীদের ভোট নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

পাঁচ নম্বর দাবি হচ্ছে ‘গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের ভোটাধিকার থাকতে হবে। শাখা গ্রুপে কেন্দ্রীয় নেতারা আধিপত্য দেখাতে পারবে না, তবে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক কেন্দ্রের নিকট জবাবদিহি করবে। ভবিষ্যত নির্বাচনে তৃনমূলকে মূল্যায়ণ করতে হবে। জোর করে সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেয়া যাবে না।’

বলা হয়, তৃনমূল পর্যায়ে যুব অধিকার পরিষদের প্রায় সকল কাজ ছাত্র অধিকার পরিষদ করছে। তাদের ছাত্রত্ব শেষে তাদের ত্যাগ ও যোগ্যতার ভিত্তিতে অগ্রাধিকার দিতে হবে।’ সাত নম্বর দাবি হচ্ছে, ‘সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে ব্যক্তি অনুযায়ী আইন পরিবর্তন না করে সবার জন্য একই আইন বাস্তবায়ন করতে হবে। ফেসবুকে সংগঠনকে নিয়ে কটুক্তি, পদত্যাগ পত্র পোস্ট করলে কাউকে দ্রুত সংগঠনে ফেরানো যাবে না। ফেরাতে হলেও শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।’ সব শেষ দাবি হচ্ছে, ‘আর্থিক স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।’ এসব দাবি তুলে আল্টিমেটাম দিয়ে বলা হয়েছে, ‘দাবি না মানলে সকল ধরণের কার্যক্রম স্থগিত করা হবে অনির্দিষ্টকালের জন্য, প্রয়োজনে বাটপারি, স্বেচ্চছাচারিতা ও স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে 'বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ' এর বিরুদ্ধাচারণ করা ও ঢাবি কেন্দ্রীয় সিন্ডিকেট করার সঙ্গে জড়িত সকলকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হবে।’

‘গণচাঁদা চাইলেন নুর-রাশেদরা!

এদিকে অর্থ লোপাটসহ নানা কেলেঙ্কারীর মধ্যেই নুরের নেতৃত্বে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ, যুব অধিকার পরিষদ, শ্রমিক অধিকার পরিষদ নামে সংগঠনটি পরিচালনা করতে অর্থ সহায়তা চেয়ে ফেসবুকে আহ্বান জানিয়েছেন রাশেদ খান। রাশেদ খান এক ফেসবুক লাইভে এসে বলেছেন, ‘সংগঠন চালাতে আমাদের এখন হিমশিম খেতে হচ্ছে। নানান কারণে অর্থের সহায়তা প্রয়োজন। আপনাদের সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা ও দেশের মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রাম আরও বেশি সুসংগঠিত করার জন্য আমরা গণ চাঁদা সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছি। এই সংগ্রামে আপনার আর্থিক সহযোগিতা কামনা করছি।’ এভাবে চাঁদা আদায়ের খবর প্রকাাশের পর শুরু হয়েছে ব্যপক সমালোচনা। সংগঠনের নেতারাই বলছেন, ‘এটা হচ্ছে অভিযুক্ত নেতাদের বাঁচাতে নতুন কৌশল। এর মাধ্যমে সাধারন সদস্যদের বোঝানোর চেষ্টা করছেন অভিযুক্তরা যে তাদের কাছে কোন টাকা নেই। তারা কোন অর্থ লোপাট করেননি। এটা হচ্ছে আরেক নাটক।’

শীর্ষ সংবাদ:
দাপটেই জাল টাকা ॥ বাংলাদেশ-ভারত চুক্তির ৫ বছরেও দৌরাত্ম্য থামেনি         গ্রামের রাস্তা ভারি যান চলাচলের উপযোগী করে বানাতে হবে         তিস্তার দ্রুত সমাধানের পথে ভারত         ট্রাম্প ও বাইডেনের চূড়ান্ত বিতর্কে মাইক্রোফোন বন্ধ         এসআই আকবর গ্রেফতারে সাঁড়াশি অভিযান         লন্ডনে যেতে যে কোন শর্তে আপোসে রাজি খালেদা         দেশে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু কমেছে         করোনার সম্ভাব্য দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় প্রস্তুত থাকার নির্দেশ         নৌশ্রমিক ধর্মঘটে পণ্য খালাস বন্ধ, জলপথে অচলাবস্থা         চাইল্ড পর্নোগ্রাফির রমরমা বাণিজ্য         কনস্টেবল টিটু গ্রেফতার ॥ ৫দিনের রিমান্ডে         কলেজছাত্রীকে তুলে নিয়ে রাতভর গণধর্ষণ         ঝুলন্ত তারের জঞ্জাল নিয়ে জটিলতা কাটছে না         নৌযান শ্রমিকদের ধর্মঘটের দায় মালিকদের : শাজাহান খান         ৩৮তম বিসিএসে ৫৪১ জনকে নন-ক্যাডারে নিয়োগ         ‘খুচরায় আলুর দাম ৩৫ টাকা নির্ধারণ’         পুলিশ-র‌্যাব দিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা যায় না : কৃষিমন্ত্রী         করোনা ভাইরাসে আরও ১৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩৮০         একনেকে ১৬৬৮ কোটি খরচে ৪ প্রকল্প অনুমোদন         অনলাইনে নয়, সরাসরি ভর্তি পরীক্ষাই হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়ে