রবিবার ১০ কার্তিক ১৪২৭, ২৫ অক্টোবর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ঝুঁকি বীমা না থাকলে মোটরযান বা মালিকের বিরুদ্ধে নতুন সড়ক আইনে মামলার সুযোগ নেই- বিআরটিএ

ঝুঁকি বীমা না থাকলে মোটরযান বা মালিকের বিরুদ্ধে নতুন সড়ক আইনে মামলার সুযোগ নেই- বিআরটিএ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নতুন সড়ক পরিবহন আইন অনুযায়ী তৃতীয় পক্ষের ঝুঁকি বীমা না থাকলে সংশ্লিষ্ট মোটরযান বা মোটরযানের মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করার কোনো সুযোগ নেই বলে জানিয়েছে পরিবহন নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। নতুন সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর ধারা ৬০ এর উপধারা (১) (২) ও (৩) অনুযায়ী তৃতীয় পক্ষের ঝুঁকি বীমা বাধ্যতামূলক নয়।

বুধবার বিআরটিএ চেয়াম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পুলিশ মহাপরিদর্শক, সব মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, হাইওয়ে পুলিশপ্রধানসহ সংশ্লিষ্টদের বরাবর বিজ্ঞপ্তিটি জারি করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২২ সেপ্টেম্বর মো. স্বাধীন খান ও সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির পক্ষ থেকে গত ২৪ সেপ্টেম্বর বিআরটিএ বরাবর আবেদন করা হয়। ওই আবেদনের সূত্র ধরে বিআরটিএ এর পক্ষ থেকে এ বিজ্ঞপ্তিটি জারি করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মোটরযান অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এর ধারা ১০৯ অনুযায়ী তৃতীয় পক্ষের ঝুঁকি বীমা বাধ্যতামূলক ছিল। এবং এর অধীনে ১৫৫ ধারায় দন্ডের বিধানও ছিল। তবে নতুন সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর ধারা ৬০ এর উপধারা (১) (২) ও (৩) অনুযায়ী- যেকোনো মোটরযানের মালিক বা প্রতিষ্ঠান ইচ্ছা করলে তার মালিকানাধীন যে কোনো মোটরযানের জন্য যে সংখ্যক যাত্রী পরিবহনের জন্য নির্দিষ্টকৃত তাদের জীবন ও সম্পদের বীমা করতে পারবে।

মোটরযানের মালিক বা প্রতিষ্ঠানের অধীন পরিচালিত মোটরযানের জন্য যথানিয়মে বীমা করবেন এবং মোটরযানের ক্ষতি বা নষ্ট হওয়ার বিষয়টি বীমার আওতাভুক্ত থাকবে। বীমাকারী কর্তৃক ক্ষতিপূরণ পাওয়ার অধিকারী হবেন।

মোটরযান দুর্ঘটনায় পতিত হলে বা নষ্ট হলে উক্ত মোটরযানের জন্য ধারা ৫৩ এর অধীন গঠিত আর্থিক সহায়তা তহবিল হতে কোনো ক্ষতিপূরণ দাবি করা যাবে না।

অর্থাৎ এ ধারা অনুযায়ী তৃতীয় পক্ষের ঝুঁকি বীমা বাধ্যতামূলক নয় এবং এ আইনের অধীনে লঙ্খন করা হলেও কোনো দন্ডের বিধান নেই। এমতাবস্থায় তৃতীয় পক্ষের ঝুঁকি বীমা না থাকলে সংশ্লিষ্ট মোটরযান বা মোটরযানের মালিকের বিরুদ্ধে সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ অনুযায়ী কোনো মামলার সুযোগ নেই।

গত বছর থেকে নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর হলে বিভিন্ন ধারা নিয়ে মালিক-শ্রমিকদের আপত্তির মুখে সরকারের পক্ষ থেকে এসব ধারা প্রয়োগ বন্ধ করা হয়। এসব ধারা সময়উপযোগি কিনা তা খতিয়ে দেখতে পৃথক কমিটি গঠন করে সরকার। কমিটি আড়াই মাসের মধ্যে রিপোর্ট দেয়ার কথা থাকলেও বছর পেরিয়েছে। এখন কার্যকর হয়নি নতুন সড়ক আইন। সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নতুন সড়ক আইন দ্রুত বাস্তবায়নের তাগিদ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, নতুন সড়ক আইন পুরোপুরি কার্যকর হলে সড়ক মহাসড়ক হবে নিরাপদ। মানুষ আইন মানতে বাধ্য হবে। তেমনি সড়ক দুর্ঘটনা অনেক নিয়ন্ত্রণে আসবে। যদিও এ ব্যাপারে পরবর্তী কোন অগ্রগতি নেই।

শীর্ষ সংবাদ:
চালের মিল মালিক, পাইকার ও ফরিয়ারা অতিমুনাফার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত : কৃষিমন্ত্রী         ‘দুর্নীতির বীজ বপন করে গেছে ৭৫ পরবর্তী অবৈধ সরকারগুলো’         নোয়াখালীতে ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনায় লজ্জিত ওবায়দুল কাদের         ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’         করোনা ভাইরাসে আরও ২৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩০৮         পদ্মা সেতুর ৫ হাজার ১০০ মিটার দৃশ্যমান         ল্যাপটপ ও প্রিন্টার পাচ্ছেন এমপিরা         প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে নতুন সচিব         ঢাবি শিক্ষক জিয়ার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুই মামলা         ছেলে হত্যার বিচার চেয়ে আমরণ অনশনে রায়হানের মা         বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির রোল মডেল ॥ আমু         করোনায় আক্রান্ত স্লোভেনিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী         করোনামুক্ত হয়ে আজ বাসায় ফিরছেন তথ্যমন্ত্রী         মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের চিফ অব স্টাফের করোনা শনাক্ত         সরকার বিশেষ শক্তিতে বলীয়ান ॥ ফখরুল         শিক্ষার্থীদের অটো প্রমোশনের আগে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেয়া দরকার ছিল ॥ নজরুল         ডেঙ্গুতে চিকিৎসকের মৃত্যু         দেশে ফিরছে নৌবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজ ‘বিজয়’         হাউস ও সিনেট নির্বাচনেও উত্তাপ ছড়াচ্ছে         ভারতে করোনায় মৃত্যু আরও ৫৭৮, শনাক্ত ৫০ হাজার