সোমবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৫ মে ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

লকডাউনে দরিদ্র নাগরিকদের কাছে খাবার ও জরুরি সেবা পৌঁছে দেয়া সরকারের নৈতিক দায়িত্ব ও 'ক্রিটিক্যাল' এপ্রিল

লকডাউনে দরিদ্র নাগরিকদের কাছে খাবার ও জরুরি সেবা পৌঁছে দেয়া সরকারের নৈতিক দায়িত্ব  ও  'ক্রিটিক্যাল' এপ্রিল

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এবং অঞ্চলে বিভিন্ন মাত্রার 'লকডাউন' আরোপ করা হলেও বাংলাদেশে সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে লকডাউন শব্দটি ব্যবহার করা থেকে বিরত থেকেছে।

বাংলাদেশে প্রথম দফায় ২৬শে মার্চ থেকে ৪ঠা এপ্রিল পর্যন্ত 'সাধারণ ছুটি' ঘোষণা করার পর দুই দফায় ছুটির মেয়াদ ১৪ই এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়। ভাইরাস ছড়ানো কমাতে মানুষ যেন সামাজিক দূরত্ব মেনে চলে এবং অন্য মানুষের সংস্পর্শে আসার সুযোগ না পায়, সে লক্ষ্যে চীনের উহান, ইতালির লোমবার্ডি প্রদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন এলাকায় - বিশেষ করে যেসব জায়গায় করোনাভাইরাস ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে - লকডাউন আরোপ করে কর্তৃপক্ষ। ওই সব জায়গায় অঞ্চলভেদে স্বল্প পরিসরে খাবারের দোকান এবং ওষুধের দোকান বাদে অন্য সব দোকানপাট বন্ধ রাখা হয়। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে মানুষের বের হওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয় এবং নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করলে অর্থদণ্ড এবং কারাদণ্ডের মত জরিমানার শাস্তিও আরোপ করা হয়। সৌদি আরব, কুয়েতসহ মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশে মানুষ যেন ঘর থেকে বের না হতে পারে তা নিশ্চিত করতে দিনের বড় একটা সময় কারফিউ জারি করা হয়। অনেক এলাকাতেই এই কারফিউর সময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে মানুষের কাছে প্রয়োজনীয় খাবার এবং ওষুধ পৌঁছে দেয়া হয়।

কিন্তু লকডাউন আরোপ করা হলে সাধারণ মানুষ দৈনন্দিন জীবনযাপনে স্বাস্থ্যসেবা এবং দৈনন্দিন খাদ্য জোগাড়ের ক্ষেত্রে যেসব সমস্যার সম্মুখীন হয়, সেসব সমস্যা নিরসনে সরকারের কি কোনো ধরণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে?

লকডাউনে সরকারের দায়িত্ব কী?

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সাবেক সচিব আলী ইমাম মজুমদার বিবিসি বাংলাকে বলেন, বাংলাদেশে এ ধরণের লকডাউন আরোপ করা হলে জনগণের কাছে জীবনযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় পণ্য পৌঁছে দেয়া সরকারের নৈতিক দায়িত্ব হলেও আইনগতভাবে তাদের কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।

তিনি বলেন, "কারফিউ জারি করা হলে যখন রাস্তায় কেউ বের হতে পারে না, তখন মানুষের জীবনযাপনে সমস্যা তৈরি হয়। কিন্তু এ রকম সময় সরকারের আইনগত কোনো বাধ্যবাধকতা নেই মানুষের কাছে সাহায্য পৌঁছে দেয়ার।"

কিন্তু এরকম ক্ষেত্রে সরকার তার নৈতিক দায়িত্ববোধ থেকে মানুষের দৈনন্দিন জীবন সহজ করার জন্য পদক্ষেপ নিয়ে থাকে বলে মন্তব্য করেন মি. মজুমদার।

"গণপরিবহন ও দোকানপাট বন্ধ থাকায় এ রকম সময়ে দরিদ্রদের কাছে খাদ্যসামগ্রী ও জরুরি পণ্য পৌঁছে দেয়ার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে সরকারি সংস্থাগুলোকে নিয়োগ করা হয়।"

আলী ইমাম মজুমদার বলেন, শুধু গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থাতেই নয়, যেসব রাষ্ট্রে রাজতন্ত্র বিদ্যমান সেসব রাষ্ট্রেও সরকার তার নৈতিক দায়িত্ব থেকেই এ ধরণের বিশেষ পরিস্থিতিতে নাগরিকদের কাছে খাবার ও জরুরি সেবা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করে থাকে।

"লকডাউন অনেকটা জরুরি অবস্থা বা কারফিউ জারি করার মত," মন্তব্য করেন সরকারের সাবেক এই শীর্ষ কর্মকর্তা। তিনি এ-ও বলেন যে এই ধরণের পরিস্থিতিতে নাগরিকদের যেন টানা লম্বা সময়ের জন্য অবরুদ্ধ অবস্থায় না রাখা হয়, তারা যেন কিছুটা ছাড় পায় সেই বিষয়গুলো মাথায় রাখা হয়।

অন্যান্য দেশে লকডাউন কীভাবে পালন করা হচ্ছে?

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ার পর সংক্রমণের হার নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে বিভিন্ন জায়গায় জারি করা লকডাউন বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে নীতিমালা ছিল ভিন্ন।

প্রাদুর্ভাবের প্রথম কেন্দ্র চীনের উহান শহরকে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে লকডাউন করা হয়। উহানে প্রবেশ এবং সেখান থেকে বের হওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়, আর উহানসহ আরো কয়েকটি শহরে গণপরিবহনসহ সব ধরণের যাত্রী পরিবহণ বন্ধ করে দেয়া হয়। বিশেষ কিছু খাবারের দোকান এবং ওষুধের দোকান বাদে বন্ধ করে দেয়া হয় সব দোকানপাট।

এরপর হুবেই প্রদেশের বেশকিছু শহরে আরোপ করা হয় একই ধরণের নিষেধাজ্ঞা। ইতালির উত্তরাঞ্চলে ভাইরাস সংক্রমণের কেন্দ্র লোমবার্ডি প্রদেশে মার্চের প্রথমদিকে জারি করা হয় লকডাউন। উহানের মত ওই অঞ্চলেও খাবার এবং ওষুধের দোকান বাদে অন্য সব দোকানপাট ও গণপরিবহণ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত দেয়া হয়। পরে পুরো ইতালিকেই কার্যত লকডাউনের আওতায় আনা হয়। নিয়ম না মেনে ঘর থেকে বের হলে শাস্তির ঘোষণা দেয়া হয়। তবে দেশটির অন্যান্য এলাকাতেও খাবার এবং ওষুধের দোকান খোলা রাখা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের অধিকাংশ অঙ্গরাজ্যে - এমনকি বর্তমানে ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত নিউইয়র্ক রাজ্যেও - গণপরিবহণ বন্ধ করে মানুষজনকে ঘরে থাকতে নির্দেশ দেয়া হলেও আনুষ্ঠানিকভাবে লকডাউন ঘোষণা করা হয়নি।

যুক্তরাজ্য, স্পেন, ফ্রান্সসহ ইউরোপের কয়েকটি দেশে মানুষকে দৈনিক একবার ব্যায়ামের উদ্দেশ্যে ঘর থেকে বের হওয়ার অনুমতিও দেয়া হয়েছে। তবে কিছু কিছু দেশে লকডাউনের নিয়মকানুন মানা হচ্ছে খুবই কঠোরভাবে।

যেমন দক্ষিণ আফ্রিকায় অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘর থেকে বের হতে দেয়া হচ্ছে না - কঠোর অবস্থানে রয়েছে দেশটির আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

'ক্রিটিক্যাল' এপ্রিল :

বার্তা সংস্থা বাসসের খবর অনুযায়ী, মঙ্গলবার কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের সময় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন: "করোনাভাইরাস বিশ্বব্যাপী প্রলয় সৃষ্টি করেছে। সারাবিশ্বে যেভাবে করোনা রোগী বৃদ্ধি পেয়েছে, আমাদের এখানেও বৃদ্ধি পাওয়ার একটা ট্রেন্ড আছে। তাতে আমাদের সময়টা এসে গেছে, এপ্রিল মাসটা। এই সময় আমাদের খুব সাবধানে থাকতে হবে।"

এপ্রিল মাসের শুরু থেকেই বাংলাদেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও বাড়তে শুরু করেছে। গতকাল বুধবার বাংলাদেশে নতুন করে ৫৪ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর আগের দিন এই সংখ্যা ছিল ৪১ জন। তার আগের দিন ছিল ৩৫ জন।

গতকালও (৮ই এপ্রিল) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তিনজনের মৃত্যুর তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এর আগের দিন মৃত্যুর সংখ্যা ছিল পাঁচজন। দেশটিতে বুধবার পর্যন্ত কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২০ জন। সামাজিক সংক্রমণ এড়াতে মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে পুরো নারায়ণগঞ্জ জেলাকে লকডাউন বলে ঘোষণা করা হয়েছে। ঢাকার ভেতরেও বেশ কয়েকটি এলাকা লকডাউন বলে ঘোষণা করা হয়। লকডাউন করা এসব এলাকায় কেউ ঢুকতে বা বের হতে পারবেন না। বুধবার থেকে লকডাউন করা হয়েছে কক্সবাজার জেলাকেও।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এসব এলাকায় একাধিক রোগী শনাক্ত হওয়ায় সংক্রমণ ঠেকাতে এসব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

২৬শে মার্চ থেকে যে সাধারণ ছুটি শুরু হয়েছিল, তা বাড়ানো হয়েছে এপ্রিলের ১৪ তারিখ পর্যন্ত। এ সময় সবরকম যানবাহন, নৌযান, বিমান ও রেল চলাচল বন্ধ রয়েছে। মানুষজনের ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে মাঠে কাজ করছে সেনাবাহিনীও।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বিবিসিকে বলছেন, "করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের এই এপ্রিল মাসটা খুব ক্রিটিক্যাল।"

তিনি বলছেন, "ঢাকা শহরেই বেশিরভাগ পজিটিভ রোগী পাওয়া গেছে। নারায়ণগঞ্জেও বেশ কিছু রোগী পাওয়া গেছে। এরকম যেসব স্থানে বেশি রোগী পাওয়া গেছে, সেসব এলাকা লকডাউন করে রোগটি সীমাবদ্ধ রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। সেটা যদি ঠিকভাবে করা যায় তাহলে আমরা বেঁচে যাবো।"

"করোনাভাইরাস কন্ট্রোল করতে হলে সেটা এই এপ্রিল মাসের মধ্যেই করতে হবে। এর চেয়ে বেশি সময় দেয়া যাবে না। আমরা যদি সেটা করতে না পারি, ব্যর্থ হই, তাহলে অবস্থা খুব খারাপ হবে। তখন লম্বা সময় ধরে আমাদের করোনাভাইরাস পুষতে হবে। তাই এই এপ্রিল মাসটা খুব ক্রিটিক্যাল।"

তিনি বলছেন, এখন সবকিছু বন্ধ রয়েছে, সবাইকে ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যেও যদি রোগটি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব না হয়, তাহলে পরে আর নিয়ন্ত্রণ করা অসম্ভব হয়ে পড়বে।

তিনি বলেন, যে হারে রোগী শনাক্ত হচ্ছে, সংক্রমণের যেসব তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, তাতে এক কমিউনিটি ট্রান্সমিশন (ব্যাপক জনগোষ্ঠীতে সংক্রমণ) বলতে বাধা নেই।

রোগী আরো বাড়ার আশঙ্কা :

বাংলাদেশের মতো আর্থিক অবস্থার দেশ ভারতে চার সপ্তাহের পর থেকে রোগী বাড়তে শুরু করে। তবে বাংলাদেশে যেখানে ১৬টি কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হতেই একমাস লেগে যায়, ভারতে সেটি করা হয় ৬২টি কেন্দ্রে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজি বিভাগের অধ্যাপক সাইফুল্লাহ মুন্সী বলছেন, "আমরা ৩০ দিনের দিনে যে অবস্থায় আছি, ব্রাজিল ১৫ দিনের দিন সেই অবস্থায় ছিল। মানে একশো দেড়শ রোগী শনাক্ত করার হচ্ছিল। আর ভারতেও এরকম ছিল ৪৫তম দিনের দিন।"

"ব্রাজিলে সেই অবস্থা থেকে আজ রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় সাড়ে ১২ হাজার। আর ভারতে রোগীর সংখ্যা পাঁচ হাজারের কাছাকাছি। সুতরাং ভারতের সাথেও তুলনা করলে বোঝা যায়, আমাদের রোগীর সংখ্যা আগামী কিছুদিনের মধ্যেই হয়তো কয়েক হাজারে পৌঁছে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা আছে।"

চীন, ইতালি, স্পেন, যুক্তরাষ্ট্রের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, এসব দেশে প্রথম দিকে করোনাভাইরাসে যে হারে রোগী শনাক্ত হয়েছে, চার সপ্তাহের পরপর পরিস্থিতির রাতারাতি অবনতি হয়েছে। রোগী সংক্রমণ ও মৃত্যু হারও অনেক বেড়ে গেছে।

"পার্শ্ববর্তী দেশ হিসাবে - একই রকমের ভৌগলিক ও পরিবেশ, আচরণ অবস্থা বিবেচনায় - ভারতের সাথে তুলনা করলে, তাদের মতো ট্রেন্ড আমাদের এখানেও দেখা দিতে পারে", বলছেন অধ্যাপক সাইফুল্লাহ মুন্সী।

তিনি সংশয় প্রকাশ করেন যে, সেরকম পরিস্থিতি সামলাতে প্রস্তুতির এখনো অনেক ঘাটতি আছে।

"পরীক্ষা নিরীক্ষা যদি আমরা পূরণ করতেও পারি, পেশেন্ট ম্যানেজমেন্টের ব্যাপারটি নিয়ে - ঘাটতি যদি নাও বলি - এখনো আমাদের চিন্তার মধ্যে থাকতে হচ্ছে। কতটি ভেন্টিলেটর, কতটি আইসিইউ, কতটি হাসপাতাল অক্সিজেন থেরাপির জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত আছে, সেটা জানা গেলে আমাদের স্বাস্থ্য খাতের প্রস্তুতি বোঝা যাবে।"

"কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে চিকিৎসক বলেন, আইসিইউ বলেন, অক্সিজেন থেরাপি বলেন, এগুলো আসলে শেষ অস্ত্র। আমাদের প্রধান অস্ত্র হচ্ছে লকডাউন। সেটা আমরা যতভাবে করতে পারবো, স্বাস্থ্যখাতের ওপর ততোই কম চাপ পড়বে।"

অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলছেন, "রোগী বাড়ার সম্ভাবনা যেহেতু আছে, তাই পেশেন্ট ম্যানেজমেন্টের ওপর জোর দেয়ার উচিত। শুধু করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের সেবার ব্যাপারে বিশেষ জোর দিতে হবে।"

আরও সমন্বয় দরকার :

রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের সাবেক পরিচালক ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উপদেষ্টা অধ্যাপক বেনজীর আহমেদ বলছেন, এখন যে রোগী শনাক্ত হচ্ছেন, যারা মারা যাচ্ছেন, তাদের কন্টাক্ট ট্রেসিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। তারা কাদের সঙ্গে মিশেছেন, কোথায় কোথায় গেছেন, কি করেছেন, তাদের বাড়িতে কে এসেছেন, কোন দোকানে গেছেন, সেগুলো বিশ্লেষণ করা, সেগুলো জানা দরকার।"

"এজন্য স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিসহ সবাইকে নিয়ে টিম গঠন করা দরকার। সেই ঝুঁকি কমাতে কি ব্যবস্থা নেয়া দরকার, কাদের কোয়ারেন্টিন করতে হবে, সেগুলো ব্যবস্থা নেয়া দরকার।"

তিনি বলছেন, রোগের সংক্রমণ ঠেকাতে হলে লকডাউনের পাশাপাশি এসব দিকেও গুরুত্ব দিতে হবে। এর ফলে সংক্রমণের হারটা কমানো যাচ্ছে। কিন্তু এসব বিষয় এখনো অনেক ঘাটতি রয়েছে বলে তিনি বলছেন। তিনি বলছেন, যারা শনাক্ত হচ্ছেন, তাদের ঠিকভাবে চিকিৎসা করা, সংক্রমিতদের সীমাবদ্ধ করে রাখার বিষয়টি জরুরি। যারা হাসপাতালে চিকিৎসা দিচ্ছেন, নমুনা সংগ্রহ করছেন, তাদের প্রশিক্ষণ সুরক্ষার ব্যাপারগুলো নিশ্চিত করা জরুরি। না হলে হাসপাতালগুলো বা চিকিৎসকরা সংক্রমিত হতে শুরু করলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার জন্য অনেক হুমকি তৈরি করবে।

তৃতীয় আর চতুর্থ স্তরের মাঝামাঝি :

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলছেন, "এখনো বাংলাদেশে কোভিড-১৯ বিস্তার ক্লাস্টার আকারে (ছোট ছোট গ্রুপের মধ্যে) রয়েছে। সেটা কমিউনিটি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে বলবো না। তবে কিছু কিছু রোগী আমরা পাচ্ছি, যাদের সংক্রমণের উৎস শনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়ছে।"

"আমরা আসলে এটা ট্রান্সজিশন পিরিয়ডের ভেতরে রয়েছি। তৃতীয় স্তর থেকে চতুর্থ স্তরে (যখন ব্যাপক মানুষের মধ্যে সংক্রমণ দেখা দেয়) যারা লক্ষণ দেখতে পাচ্ছি। কিন্তু সর্বোচ্চ স্তরে চলে গেছি সেটি আমি বলবো না।"

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে জনগণের সর্বাত্মক অংশগ্রহণ সবচেয়ে জরুরি। তারা যদি নিয়মকানুন মেনে বিচ্ছিন্ন থাকেন,ঘরে থাকেন, তাহলেই এটা রোধ করা সম্ভব হবে।

সূত্র : বিবিসি বাংলা

শীর্ষ সংবাদ:
ঈদ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা         বঙ্গভবনের দরবার হলে ঈদের জামাতে অংশ নেবেন রাষ্ট্রপতি, হচ্ছে না শুভেচ্ছা বিনিময়         ঘরে বসে ঈদ পালনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর         আজ পবিত্র ঈদুল ফিতর         জীবন-জীবিকার স্বার্থে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চালু করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী         ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে রেকর্ড ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৩২         ত্রাণ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য হীন মানসিকতার বহি:প্রকাশ : হানিফ         ঈদ জামাতে যেতে ডিএমপির ১৪ নির্দেশনা         ঈদের পর ছুটি বাড়বে কিনা জানা যাবে : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী         করোনায় আক্রান্ত সম্প্রচার সংবাদকর্মীদের চিকিৎসাসেবা দেবে হলি ফ্যামিলি         অসহায়দের পাশে রয়েছেন প্রায় সব সংসদ সদস্য ॥ তথ্যমন্ত্রী         সংকটের পরে নবউদ্যমে কাঙিক্ষত উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাব         আরও দুই বছর গবর্নর থাকবেন ফজলে কবির         করোনা ভাইরাস ॥ এবার প্রাণ গেল পুলিশ ইন্সপেক্টরের         বায়তুল মোকাররমে হবে ঈদের পাঁচ জামাত         ঘন্টার ব্যবধানে নিজাম হাজারীর মা ও ভাইয়ের মৃত্যু         পাবনায সরকারি চালসহ আওয়ামীলীগের মহিলা নেত্রী আটক         ফটিকছড়িতে পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে যুবক নিহত         চট্টগ্রামের অর্ধশত গ্রামে পালিত হচ্ছে আগাম ঈদ         কলকাতায় আটকে পড়া বাংলাদেশিদের ফেরাতে ২ বিশেষ ফ্লাইট         হালদায় আবারও ডলফিন হত্যা        
//--BID Records