শনিবার ২৭ আষাঢ় ১৪২৭, ১১ জুলাই ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

পেঁয়াজের কেজি এখন ৭০-৮০ টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ভারতের রফতানি বন্ধের ঘোষণায় বেশ কিছুদিন বাজারে লাফিয়ে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। তবে দুয়েকদিন ধরে পাইকারি বাজারে পাশাপাশি খুচরা বাজারেও পণ্যটির দাম কমতে শুরু করেছে। চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে প্রতিকেজি পেঁয়াজ ৯৫ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা ৭০ থেকে ৮০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

শান্তিনগর বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে দেশী পেঁয়াজ ৮০ টাকা আর ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। যদিও সপ্তাহের শুরুর দিকে দেশী পেঁয়াজ কেজিপ্রতি ১০০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৯৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

দাম কমার বিষয়ে জানতে চাইলে ব্যবসায়ী ইসমাইল হোসেন বলেন, ‘আমরা খুচরা বিক্রেতা। যেমন কিনি তেমন বিক্রি করি। পাইকারি বাজার থেকে আজ কেজিপ্রতি দেশী পেঁয়াজ ৭৩ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৬২ টাকা দরে কিনেছি। ফলে দেশী পেঁয়াজ ৮০ আর ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

পেঁয়াজের দাম কেমন জানতে চাইলে শান্তিনগর বাজারের ক্রেতা আরেফিন হুসাইন বলেন, ‘পেঁয়াজের দাম কেজিতে ২০ টাকা করে কমেছে। দুদিন আগেও ১০০ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনেছি। আজ ৮০ টাকা কিনলাম।’ এদিকে মালিবাগ ও রামপুরা বাজার ঘুরেও দেখা গেছে একই চিত্র। রামপুরা কাঁচাবাজারে কথা হয় পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রেতা কাদের আলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমরা গতকাল থেকে কেজিপ্রতি দেশী পেঁয়াজ ৮০ আর ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা দরে বিক্রি করছি। এর আগে আমাদের বেশি দামে পেঁয়াজ কেনা ছিল তাই বেশি দামেই বিক্রি করতে হয়েছে।’

পেঁয়াজের দাম নিয়ে রামপুরা-বনশ্রী এলাকার বাসিন্দা নাসরিন হুমায়রা বলেন, ‘দাম কমেছে। তবে আমরা তো ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি। সরকার যখন নজর দেয় তখন দাম কমে। আবার যখন সরকারের নজর থাকে না তখন দাম বাড়ে।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের হিসাব মতে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে পেঁয়াজের উৎপাদন হয়েছে ২৩ দশমিক ৩০ লাখ টন। আর পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে ১০ দশমিক ৯২ লাখ টন। ফলে বাংলাদেশে পেঁয়াজের জোগান রয়েছে ৩৪ দশমিক ২২ লাখ টন। অন্যদিকে দেশে বাৎসরিক পেঁয়াজের চাহিদা ২৪ লাখ টন। ফলে দেশেই বাড়তি সরবরাহ রয়েছে প্রায় ১০ দশমিক ২২ লাখ টন।

উল্লেখ্য, ভারতে বন্যার কারণে কয়েকটি রাজ্যে উৎপাদন কম হওয়ার অজুহাত দেখিয়ে গত ২৯ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় দেশটি। এ সুযোগে ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ মজুদ করে দাম বাড়িয়ে দেয়।

এদিকে রাজধানীর কারওয়ানবাজার ঘুরে দেখা যায়, এ সময়ে মান ভেদে কেজি প্রতি পেঁয়াজের দাম কমেছে ২০-২৫ টাকা। ভারত, মিয়ানমার, মিসর ও তুরস্ক থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬৪ টাকা দরে। অবশ্য, উৎপাদনের পাশাপাশি জোগানও কম থাকায় কমেনি দেশি পেঁয়াজের দাম। কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৭৭ টাকায়।

এদিকে বিক্রেতাদের দাবি, বিদেশী পেঁয়াজের দাম পড়ে যাওয়াতেই মানুষ কিনছে না দেশীটা। ফলে গুনতে হচ্ছে লোকসান। তবে আমদানি আরও বাড়লেও পেঁয়াজের দাম আর কমার সম্ভাবনা নেই বলেই দাবি ব্যবসায়ীদের। বলেন, মৌসুম শুরু হলে কমতে পারে দাম। পুরোপুরি দাম হাতের নাগালে আসতে এ মাস পেরিয়ে যেতে পারে বলে মত ব্যবসায়ীদের।

শীর্ষ সংবাদ:
‘করোনা সাহেদের’ জমি প্রতারণা         ইতালি ফেরতদের ১৪৭ জন আশকোনায় কোয়ারেন্টাইনে         নির্বাচন কমিশন নিয়ে ফখরুলের বক্তব্য ষড়যন্ত্রমূলক ॥ কাদের         রিজেন্ট সিলগালা করার সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন দিয়েছিল সাহেদ         মায়ের কবরের পাশে সাহারা খাতুনের লাশ আজ দাফন         করোনা রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর         করোনায় দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৮৬,৪০৬ জন         ইরানে ফের সর্বোচ্চ মৃত্যু         আন্তঃজেলা রুটে দোতলা বাস নামাতে পারছে না বিআরটিসি         দ্বিতীয় দফায় বন্যার প্রকোপ শুরু, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত         চট্টগ্রামে ফের কিট সঙ্কট ॥ নমুনা পরীক্ষা নেমে এসেছে অর্ধেকে         হালদায় পোনা উৎপাদনে এবার রেকর্ড সাফল্য         ইলিশে ভর করে কমছে সব মাছের দাম         দেশে ফিরলেন মালদ্বীপে আটকে পড়া ১৫৭ জন         উদ্ভাবনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার ॥ পলক         রাষ্ট্রপতির ছোট ভাই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত, সিএমএইচে ভর্তি         সাহেদকে ছাড় দেয়ার প্রশ্নই আসে না ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ইসি নিয়ে ফখরুলের বক্তব্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ষড়যন্ত্রমূলক ॥ কাদের         মাদকদ্রব্যের তালিকায় টাপেন্টাডলকে যুক্ত করে গেজেট প্রকাশ         রূপালী ইলিশে ভর করে কমছে দেশী মাছের দাম        
//--BID Records