ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

দুঃসময়ে দুঃখী রাজপুত্র

প্রকাশিত: ০৯:৩৪, ২৮ আগস্ট ২০১৯

দুঃসময়ে দুঃখী রাজপুত্র

বর্তমান বিশ্বে ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকা লিওনেল মেসি। অসাধারণ পারফর্মেন্স উপহার দিয়ে নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়। তবে এলএম টেনের দুর্ভাগ্য; আর্জেন্টিনার হয়ে কোন শিরোপা জিততে পারেননি তিনি। সম্প্রতি ব্রাজিলের হয়ে যাওয়া কোপা আমেরিকায় শিরোপা-খরা ঘুচানোর সুযোগ থাকলেও পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছেন লিওনেল মেসি। তার উপরে লাল কার্ড দেখে এবং বিতর্কিত মন্তব্য করে নিষেধাজ্ঞারও কবলে পড়েছেন বার্সিলোনার এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার। যে কারণে তিন মাস দেশের জার্সিতে মাঠে নামতে পারবেন না লিওনেল মেসি। দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল কনফেডারেশন, কনমেবল তার মাঠে নামায় ফতোয়া জারি করল। পাশাপাশি বিতর্কিত মন্তব্য করায় মেসিকে দিতে হচ্ছে ৫০ হাজার মার্কিন ডলারও। চলতি বছর কোপা আমেরিকায় তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে চিলির বিরদ্ধে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছেড়েছিলেন মেসি। ডিফেন্ডার গ্যারি মেডেলের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ানোয় মার্চিং অর্ডার পান তিনি। গত মাসের শেষের দিকেই মেসিকে এক ম্যাচ নির্বাসিত করেছিল কনমেবল। পাশাপাশি কোপায় ম্যাচে গড়াপেটার অভিযোগের জন্য ১৫০০ মার্কিন ডলার জরিমানাও করা হয়েছিল। তিন মাস নিষিদ্ধ হওয়ার ফলে ৩২ বছরের মেসি আর্জেন্টিনার জার্সিতে আগামী সেপ্টেম্বরে চিলি ও মেক্সিকোর বিরুদ্ধে খেলতে পারবেন না। পাশাপাশি অক্টোবরেও জার্মানির বিরদ্ধে দুই ম্যাচেও মাঠে নামতে পারবেন না। মেসির শাস্তি কমানোর বিরুদ্ধে আর্জেন্টিনার ফুটবল ফেডারেশন কনমেবলের কাছে আবেদন করতে পারবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদের পক্ষ থেকে মেসির এই বিতর্কিত বক্তব্য নিয়ে কোন মন্তব্য শোনা যায়নি। ২০১৯ কোপা আমেরিকার আয়োজক ছিল ব্রাজিল। শেষ চারে এই ব্রাজিলের কাছেই হারতে হয় আর্জেন্টিনাকে। এরপরেই কনমেবলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন এলএম টেন। সংগঠনের বিপক্ষে দুর্নীতির অভিযোগ আনেন আর্জেন্টিনার এই তারকা ফুটবলার। এমনকী গড়াপেটার কথাও বলেন বার্সিলোনার পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ফুটবলার। সেই সময়ে মেসি বলেছিলেন যে, ব্রাজিলই কোপার চ্যাম্পিয়ন হবে, এটা পূর্ব নির্ধারিত ছিল। এরপরই কনমেবল জানিয়ে দেয় মেসির মন্তব্য ‘গ্রহণযোগ্য নয়।’ গেল কোপা আমেরিকায় লিওনেল মেসির নতুন এক রূপ দেখেছে বিশ্ব। যেখানে চিরচেনা সৌম্য-শান্ত রূপ ছেড়ে প্রতিবাদী ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। মহাতারকার এমন ‘গুণে’ মুগ্ধ আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি ডিয়েগো ম্যারাডোনা। তার এমন গুণে প্রাণখোলা প্রশংসা করেছেন দেশটির বিশ্বকাপজয়ী এই কিংবদন্তি। সম্প্রতি টিওয়াইসি স্পোর্টসকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে ম্যারাডোনা বলেন, ‘আমার বারবারই মনে হয়েছে সে মেসি ম্যারাডোনা। আমি ওকে অনেক বেশি বিদ্রোহী রূপে দেখেছিলাম। তার মনের কথাটাই বলেছে সে। এবং সে মাঠের খেলায় জিতেছে, অন্য কারও দয়ায় নয়।’ নেতৃত্বগুণ, দেশের প্রতি নিবেদন নিয়ে কম গঞ্জনা সইতে হয়নি মেসিকে। জাতীয় সঙ্গীতে গলা না মেলানোর জন্য সমালোচিত হয়েছিলেন। গেল বছরই মেসির নেতৃত্বগুণ নিয়ে প্রশ্ন তুলে ম্যারাডোনা বলেছিলেন, গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে বেশ কয় বার প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে হয় তাকে! এবার সেই ম্যারাডোনাই মুগ্ধ মেসির নিবেদন আর নেতৃত্বগুণে, ‘এই মেসিকে আরও বেশি পছন্দ করি আমি। সে তার পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছে, পোষা কুকুরের সঙ্গে খেলছে, বিয়ার পান করছে। জাতীয় সঙ্গীতে গলা না মেলানোর জন্য সমালোচিত হওয়া মেসির সঙ্গে এর পার্থক্য বেশ! মেসি যা করে আর্জেন্টিনার ভালর জন্যই করে।’ ফুটবল ছাড়ার পর থেকেই ফিফা আর আর্জেন্টাইন ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের বিভিন্ন ব্যাপারে সমালোচনা করেছেন ম্যারাডোনা। ২০১০ বিশ্বকাপের পর কোচের দায়িত্ব ছাড়ার সময় তো এএফএকে ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ই বলে বসেছিলেন! এ ব্যাপারে ম্যারাডোনার ভাষ্য, ‘সেপ ব্ল্যাটার (সাবেক ফিফা সভাপতি) আর হুলিও গ্রান্দোনার (সাবেক এএফএ সভাপতি) বিরুদ্ধে ২৫ বছর আমি লড়ে গেছি কারণ আমি খেলাটাকে সমর্থন করি। তারা আমাকে কিনতে পারেনি। আমি খেলোয়াড়দের সমর্থন করেছিলাম। আর আজ দেখুন! আজ আমি মহারথীদেরও পাচ্ছি আমার পাশে!’ এদিকে, ইতোমধ্যেই নতুন মৌসুম শুরু হয়ে গেছে। তার আগেই দুঃসংবাদ শুনতে হয় স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়ন বার্সিলোনাকে। ইনজুরিতে পড়েছেন যে দলের প্রাণভোমরা লিওনেল মেসি। ডান পায়ের কাফ স্ট্রেইনের কারণে প্রাক-মৌসুমে দলের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে যেতে পারেননি পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী এ তারকা। শুধু তাই নয়, নতুন মৌসুমে এখন পর্যন্ত বার্সিলোনার হয়ে মাঠেই নামতে পারেননি এলএম টেন। যদিও বা রবিবার রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে মাঠে নামার জন্য অনুশীলনে বেশ ঘাম ঝরিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা যথেষ্ট হয়নি। সম্পূর্ণ ফিট না হওয়ায় তাকে নিয়ে কোন ঝুঁকি নেননি কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে। যে কারণে বেটিসের বিপক্ষে স্কোয়াডে মেসিকে রাখেননি তিনি। তার জায়গায় লা মাসিয়ার ১৬ বছর বয়সী কিশোর স্টাইকার আনসু ফাতিকে দলে রাখেন বার্সিলোনার কোচ। অবশ্য গত বুধবারই ফাতিকে ডেকে এনেছিলেন ভালভার্দে। মূল স্কোয়াডের সঙ্গে অনুশীলনও করছিলেন। বেটিসের বিপক্ষে মাঠে নেমেই নতুন ইতিহাস গড়লেন ফাতি। বার্সিলোনার জার্সি গায়ে অভিষেক হওয়া দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় (১৬ বছর ২৯৮ দিন) এখন তিনি। ১৭ বছর ১১৪ দিনে বয়সে বার্সিলোনার মূল দলের হয়ে খেলেছিলেন মেসি। এ তালিকায় পাঁচ নম্বরে আছেন এ আর্জেন্টাইন। গায়ানা-বিসাউয়ে জন্ম নেয়া ফাতি ১০ বছর বয়সে লা মেসিয়ায় যোগ দেন। জুভেনিল ‘এ’ দলের হয়ে ভিক্টর ভালদেসের অধীনে প্রশিক্ষণ নিচ্ছিলেন এ তরুণ। চলতি বছরেই বার্সিলোনা বি দলে খেলার সুযোগ মিলে তার। বার্সিলোনার সঙ্গে তার চুক্তি রয়েছে ২০২২ সাল পর্যন্ত।