হালকা কুয়াশা, তাপমাত্রা ১৭.৮ °C
 
২০ জানুয়ারী ২০১৭, ৭ মাঘ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

লক্ষ্মীপুরে জোয়ারের পানিতে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ১১:৪১ এ. এম.
লক্ষ্মীপুরে জোয়ারের পানিতে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত

নিজস্ব সংবাদদাতা, লক্ষ্মীপুর॥ বিভিন্ন স্থানে বেড়িবাধ ভেঙ্গে যাওয়ায় জোয়ার এলেই সদর উপজেলা, কমলনগর ও রামগতির মেঘনা উপকূলীয় বেশ ক‘টি ইউনিয়নের প্রায় ৫০ হাজার হাজার পানিতে বন্দি হয়ে পড়েছে। এতে ফসলের মাঠ ও মাছের ঘের পুকুর ভেসে গিয়ে বাড়ীঘরে পানি ডুকে পড়েছে। দুর্ভোগে পড়েছে ঊপকূলীয় এলাকাবাসী। এর সাথে টানা ভারী বর্ষন। মরার ওপর খাড়ার ঘা। এতে রোপা আমন বীজতলা, উড়তি আউশ ও সবজি ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। সাথে সাথে বেড়েছে মেঘনার ভাঙ্গন। অপরদিকে কমলনগর পূরো অংশ এবং রামগতির দক্ষিণ পশ্চিমাংশে বেড়িবাধ না থাকায় জোয়ারের সাথে সাথে মেঘনার প্রচন্ড জোয়ারের পানি ফসলি জমি ও বাড়ী ঘরে ঢুকে প্লাবিত হয়েছে। একই সঙ্গে বিভিন্ন স্থানে অপরিকল্পিত বাঁধ ও মাছের জন্য পানি আটকে রাখার কারণে পানি সহজে নিষ্কাশন হচ্ছে না। এতে পানি বন্দি মানুষের দূর্ভোগ আরো কয়েক গুন বেড়েছে। পূর্ণিমার প্রভাবে মেঘনা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তীব্র জোয়ারে উপকূলীয় এলাকা প্লাবিত হয়েেেছ। মঙ্গলবার পর্যন্ত গত ৪দিন থেকে এ জোয়ার অব্যাহত রয়েছে। একই সাথে টানা ভারী বর্ষন অব্যাহ রয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়ন গুলো হচ্ছে, সদর উপজেলার চররমনীমোহন, শাকচরসহ বিভিন্ন নি¤œ্ঞ্চাল, কমলনগর উপজেলার চরফলকন, সাহেবেরহাট, চরকালকিনি, পাটারিরহাট ইউনিয়ন। রামগতির আলেকজান্ডার, চররমিজসহ দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চল। স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, গত কয়েক বছরে মেঘনা নদীর ভাঙনে ৩৭কি.মি. বেড়িবাধ বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে কমলনগর অরক্ষিত। বেড়িবাধ না থাকায় বর্ষা মৌসুমের অমাবস্যা-পূর্ণিমায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। এতে করে ওই সব এলাকায় জোয়ারের পানিতে রাস্তা-ঘাট ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এ ছাড়াও বাড়ি ঘরে পানি ঢুকে চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে ওই এলাকার সহ¯্রাধিক বাড়ীঘর, উপজেলা কমপ্লেক্স, সরকারী কলেজ, আলেকজান্ডার বাজার হুমকির মুখে রয়েছে।

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ১১:৪১ এ. এম.

০১/০৯/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: