ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১

কলাপাড়ায় ২২ বছরে  ৮০ ভাগ ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছপালা নিশ্চিহ্ন 

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ১২:১৫, ২১ মার্চ ২০২৩

কলাপাড়ায় ২২ বছরে  ৮০ ভাগ ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছপালা নিশ্চিহ্ন 

গাছপালা নিশ্চিহ্ন

সাগরপারের উপকূলীয় জনপদ কলাপাড়ায় গত ২২ বছরে বেড়িবাঁধের রিভার সাইটের অন্তত ২০০ কিলোমিটার এলাকার ম্যানগ্রোভ প্রজাতির হাজার হাজার গাছ নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। ফলে সবুজ দেয়ালখ্যাত ঝড়-জলোচ্ছ্বাসের ঝাপটার প্রাথমিক রক্ষাকবচ নেই। বাঁধগুলো অরক্ষিতে হয়ে গেছে। ঝুঁকি বেড়েছে বাঁধের। পাশাপাশি তীব্র ঝড়-জলোচ্ছ্বাসকালীন মানুষের জীবন ও সম্পদের ঝুঁকি বাড়ছে। মানুষ আশ্রয় নেয়ার মতো আশ্রয় কেন্দ্র থাকলেও সম্পদ থাকছে অরক্ষিত। এছাড়া জলবায়ুর পরিবর্তনজনিত কারণে সাগরপাড়ের ম্যানগ্রোভ প্রজাতির সংরক্ষিত বনের দুই তৃতীয়াংশ সাগরগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

সরকার যখন মানুষকে দূর্যোগের কবল থেকে রক্ষায় আশ্রয়কেন্দ্রসহ ম্যানগ্রোভ প্রজাতির বনাঞ্চল রক্ষায় বহুবিধ পদক্ষেপ নিয়েছে তখন বনবিভাগ, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদসহ একশ্রেণির মানুষের নিধন তান্ডবে এই বনাঞ্চল হারিয়ে গেছে। প্রাচীন এই গাছগুলো এখনও যেসব এলাকায় রয়েছে তাও মেরে ফেলার প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। এসব গাছ উজাড় করে সেখানে মানুষ বাড়িঘরসহ পুকুর তৈরি করছে। করা হয়েছে ইটভাঁটি থেকে শুরু করে মাছের ঘের। এছাড়া বাঁধ মেরামতের নামে স্কেভেটর দিয়ে মাটি কাটার ফলে অন্তত ৩০/৩৫ কিলোমিটার এলাকার ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছ মারা পড়েছে। বেড়িবাঁধের ৪৮ নম্বর পোল্ডারে এই দৃশ্য দেখা গেছে।

২০০৭ সালের সিডরের মতো সুপার সাইক্লোনে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসের প্রাথমিক ঝাপটাও এই সবুজ দেয়ালখ্যাত ম্যানগ্রোভ প্রজাতির প্রাচীন গাছগুলো বুক পেতে ঠেকিয়ে দিয়েছে।  মূলত ২০০১ সাল থেকে বাঁধের রিভার সাইটের গাছগুলো নিধনের মহোৎসব চলে আসছে। একসময় বাঁধের বাইরে ২০-৫০ মিটার প্রস্থ ছইলা-কেওড়া, গেওয়া, গোলপাতা, বাইনসহ গুল্মজাতীয় গাছপালা লতাপাতায় আচ্ছাদিত ছিল। বাঁধের ওপর দিয়ে চলতে গেলে শরীর ছম ছম করত। বন্যপ্রাণী বসবাস করত। সন্ধ্যার পরে বেড়িবাঁধে মানুষ শেয়ালের ভয়ে চলাচল করতে ভয় পেত। আর এখন এসব বিরানভূমিতে পরিণত হয়েছে। সবচেয়ে বেশি বনাঞ্চল ছিল লতাচাপলী, কুয়াকাটা, ধুলাসার, বালিয়াতলী, মিঠাগঞ্জ, ডালবুগঞ্জ, মহিপুর, ধানখালী, চম্পাপুর ও লালুয়ায়।

লতাচাপলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনছার উদ্দিন মোল্লা জানান,  ইউনিয়নে প্রায় ৩০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ রয়েছে। তিনি জানালেন, আশি শতাংশ এলাকার ম্যানগ্রোভ বাগান নেই। এগুলো থাকলে ঝড়-জলোচ্ছ্বাস গাছের ওপর আছড়াইয়া পড়তো। এখন তো বাঁধের ওপর পড়বে। দূর্যোগকালীন জলোচ্ছ্বাস ঝুঁকি বাড়ছে। গঙ্গামতির ধোলাইর খাল মার্কেটের দোকানি সাইফুল ইসলাম জানান, এই বাঁধের দুই দিকে গভীর বন ছিল। যা ২০০১ সাল থেকে ধ্বংস শুরু হয়। এখন বেড়িবাঁধ পানির ঝাপটায় ভেসে যাবে। কারণ পানির ঝাপটা প্রতিরোধের মতো কোন গাছপালা নেই।

ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছপালার বিকল্প নেই বলে মতামত দিলেন ধুলাসার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল। তিনি জানান, এই বাগান দূর্যোগকালে দেওয়ালের মতো জলোচ্ছ্বাসের ঝাপটা ঠেকায়। অধিকাংশ জনপ্রতিনিধিগণ জানান, অন্তত আশি ভাগ বেড়িবাঁধের বাইরের ভেতরের গাছপালা বনাঞ্চল নেই। কেটে সাবাড় করে দেয়া হয়েছে। 

পানি উন্নয়ন বোর্ড কলাপাড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, কলাপাড়া উপজেলায় ৩২৯ দশমিক ৫১ কিলোমিটার বন্যানিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ রয়েছে। তিনিও স্বীকার করেন এই বাঁধের দুই পাশেই ম্যানগ্রোভ প্রজাতির বনাঞ্চল ছিল। সঠিক তথ্য বনবিভাগ দিতে পারবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। কারণ এমনিতেই কিছু গাছ জন্মেছে, বাকিটা বনবিভাগ সৃজন করেছে। তবে নতুন জেগে ওঠা চরে ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছের চারা রোপনের কাজ চলমান রয়েছে।

এ ছাড়াও কিছু কিছু এলাকায় আশির দশকের মাঝামাঝি সামাজিক বনায়ন করা হয় বেড়িবাঁধের ঝোঁপে। কিন্তু কাঠ জাতীয় এই গাছগুলোও এখন অধিকাংশ নেই। মিঠাগঞ্জ ইউনিয়নের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া শাখা নদীকে মধুখালী লেক বলা হয়। এই লেকের দুই পাড়ে বেড়িবাঁধের বাইরে এখনও ৫-৬ কিলোমিটার এলাকায় কালের স্বাক্ষীর মতো দাঁড়িয়ে আছে ম্যানগ্রোভ প্রজাতির প্রাচীন ছইলা-কেওড়া গাছ। কিন্তু বনাঞ্চলের এই গাছগুলোর মধ্যে বাড়িঘর পুকুর করা হয়েছে। গাছগুলো জোয়ার-ভাটার পানি থেকে বঞ্চিত থাকায় মরে যাচ্ছে। এখনও কিছু গাছ কঙ্কালের মতো দাড়িয়ে আছে। একদিন কেটে ফেলা হবে। এই সব বনাঞ্চল আবার ভূমি অফিসের এক শ্রেণির দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা চাষযোগ্য জমি দেখিয়ে বন্দোবস্ত দিয়ে ম্যানগ্রোভ প্রজাতির বাগানের সর্বনাশ করেছে। মোট কথা যে যেভাবে পারছে এসব গাছ কেটে আবার যত্রতত্র গড়ে ওঠা লাইসেসন্সবিহীন করাতকলে নিয়ে চেরাই করে বিক্রি করা হচ্ছে। আর এই ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছের সবুজ দেয়াল নিশ্চিহ্ন হওয়ায় সাগরপারের কলাপাড়ার মানুষ দূর্যোগকালীন ঝুঁকির কবলে  রয়েছে। সাগরঘেঁষা জনপদে নতুন করে ম্যানগ্রোভ প্রজাতির বনায়ন করার দাবি পরিবেশ কর্মীদের।

টিএস

×