মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
১৭ আগস্ট ২০১৭, ২ ভাদ্র ১৪২৪, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

রেলের পতিত জমি ১৩ হাজার একর

প্রকাশিত : ৫ জুলাই ২০১৫, ০৩:১৭ পি. এম.

অনলাইন রিপোর্টার ॥ রেলওয়ের প্রায় ১৩ হাজার একর জমি অব্যবহৃত এবং সাড়ে ৪ হাজার বাড়ি বেদখলে রয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক।

রোববার জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে এসব তথ্য জানান তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের অব্যবহৃত ভূমির পরিমাণ ১২ হাজার ৯৬০ দশমিক ৪১ একর। ওই সকল ভূমিতে কিছু কিছু অবৈধ স্থাপনা/অবকাঠামো/দখলদার রয়েছে, যা পর‌্যায়ক্রমে উচ্ছেদ করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, ভবিষ্যতে রেলওয়ের সম্প্রসারণ ও উন্নয়নে কর্মকাণ্ডে প্রয়োজন হবে না রেলের এমন অব্যবহৃত ভূমিতে পিপিপির আওতায় পাঁচ তারকা হোটেল-কাম বাণিজ্যিক ভবন, মোটেল, মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এবং বহুতল শপিংমল ইত্যাদি নির্মাণ কার‌্যক্রম চলমান রয়েছে।

“ইতোমধ্যে চট্টগ্রামস্থ জাকির হোসেন রোডে পিপিপির আওতায় ফাইভ স্টার হোটেল নির্মাণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার‌্যালয়ের অধীন ‘ট্রানজেকশন অ্যাডভাইজার’ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তার দাখিলকৃত সম্ভাব্যতা প্রতিবেদন অনুমোদন হয়েছে। এছাড়া চট্টগ্রাম, খুলনা ও কুমিল্লা স্টেশনে শপিং কমপ্লেক্স কাম গেস্ট হাউজ নির্মাণে ‘ট্রানজেকশন অ্যাডভাইজার’ নিয়োগের চুক্তি হয়েছে।”

এক প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে রেলওয়েতে অনুমোদিত জনবলের সংখ্যা ৪০ হাজার ২৬৪। বর্তমানে কর্মরতদের বেতন খাতে বার্ষিক ব্যয় ৫২৪ কোটি ১০ লাখ ১৯ হাজার টাকা।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গত মেয়াদে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে ১০৬ কিলোমিটার নতুন রেললাইন নির্মাণ করা হয়েছে।

অপর প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ রেলওয়ের বেদখলে থাকা মোট ৪ হাজার ৫৩৮টি বাসা উদ্ধারে উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়েছে।

প্রকাশিত : ৫ জুলাই ২০১৫, ০৩:১৭ পি. এম.

০৫/০৭/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: