২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ইউরিক এ্যাসিড তথা বাত বাড়ে যেসব খাদ্যে


ইউরিক এ্যাসিড পিউরিন ভেঙে হয়, ইউরিক এ্যাসিড শরীরে একটা গ্রহণযোগ্য সীমার মধ্যে শরীরে থাকে এবং কিডনির মাধ্যমে তা নিষ্কাশিত হয়। যদি খাদ্যে পিউরিনের গ্রহণ বেশি হয় তবে ইউরিক এ্যাসিড অগ্রহণযোগ্য মাত্রায় বেড়ে যায়।

এবং গাউট বা বাত করতে পারে।

যে খাদ্যগুলো শরীরে ইউরিক এ্যাসিড বাড়ায়

মাংস: মাংসে সবচেয়ে বেশি পিউরিন থাকে। গরু বা খাসির লিভার, হৃৎপি-, কিডনি ও ব্রেনে সবচেয়ে বেশি পিউরিন থাকে। যদি আপনি বাতে ভোগেন তবে অবশ্যই আপনাকে লাল মাংস পরিত্যাগ করতে হবে।

সামদ্রিক মাছ : ক্রাব, চিংড়ি সারদীন, টুনাতে এবং স্যামন ফিসে প্রচুর পিউরিন থাকে। তাই গ্রহণে ইউরিক এ্যাসিড বেড়ে যাবে। পরিত্যাজ্য বাতের রোগীদের বেলায়।

শাকসবজি : যদিও কিছু শাকসবজিতে প্রচুর পিউরিন থাকে। কিন্তু তা লাল মাংস বা সামুদ্রিক মাছের মতন ইউরিক এ্যাসিড বাড়ায় না। তবে পরিমাণ মতন এগুলো খেতে হবে যেমন মাশরুম, সিম, পিয়াজ, ডাল ব্রোকোলি, কফি, গাজর, স্পিনাক।

ইস্ট : যে খাদ্যে ইস্ট থাকে তা অবশ্যই পরিত্যাজ্য কারণ এগুলোতে অতি মাত্রায় পিউরিন থাকে। যেমন বেয়ার এবং ব্রেডে।

ফল : কিছু ফলে পিউরিন থাকে যেমন খেজুর ও ডুমুর। কলা, আপেলে পিউরিন থাকে।

দুভাবে শরীরে ইউরিক এ্যাসিডের ব্যালান্স সম্ভব, যে খাদ্যে শরীরে ইউরিক এ্যাসিড বেড়ে যায় তা পরিত্যক্ত করে এবং যে খাদ্যে বা ফলে কার্বহাইড্রেট ও পানির পরিমাণ বেশি তা গ্রহণ করে।

ফ্যাট কমিয়ে দেয় যে খাদ্য

মিাছ: ওমেগা-৩ থাকে প্রচুর

সম:সকল প্রকার সিমে ফ্যাট কম আঁশ বেশি, প্রোটিন বেশি এবং গ্লুকোজে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম।

বিাদাম: বাদামও আপনার চর্বি পোড়াতে সাহায্য করে

ডিম ও চর্বি পোড়ানোর মোক্ষম খাদ্য

ব্রকোলিতে খুব বেশি ভিটামিন সি থাকে। চর্বি পোড়ানোর খুবই ভাল খাদ্য ব্রোকোলি।