ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

মান-অভিমানের কী সুফল আছে?

প্রকাশিত: ১৯:৩৫, ১০ জুলাই ২০২৪

মান-অভিমানের কী সুফল আছে?

ঝগড়া হোক স্বাস্থ্যকর। ছবি: সংগৃহীত

সম্পর্ক মানেই হাসি-খেলা আর প্রমোদেরও মেলা নয়। ভালবাসার মানুষটির সঙ্গে মান-অভিমানের পালা চলতেই থাকে। মাঝে মাঝে ঝগড়া করে কথা বন্ধ করে দেন দুই জনে। কথা না বলার মেয়াদ নির্ধারিত হয় রাগের তীব্রতার উপরে। 

সাম্প্রতিক গবেষণা জানাচ্ছে, ঝগ়ড়া যত বেশি হবে, সম্পর্কের বুনিয়াদ তত দৃঢ় হবে। ঝগড়া তো শুধু একে অপরের প্রতি বিরক্তি, রাগ, অভিমান উগড়ে দেওয়ার মাধ্যম নয়। ঝগ়ড়ার মাধ্যমে অনেক কিছু নিষ্পত্তিও হয়। 
ঝগড়া করলে সম্পর্ক কতটা লাভবান হয়?

সঙ্গীর মন বোঝা যায়
ঝগড়ার সময় অনুভূতি, আবেগ চেপে রাখা যায় না। মনের মধ্যে কী চলছে তা বাইরে বেরিয়ে আসে। এমনি সময়ে কথা বললে হয়তো মনের আঘাত জানা যায় না। দুই জনের বাগ্‌যুদ্ধে তা বেরিয়ে আসে। উল্টোদিকের মানুষটি মনের মধ্যে কতটা ক্ষত লুকিয়ে রেখেছে, তা প্রকাশ্যে আসে। ফলে ভুল বোঝাবুঝি অনেকটাই কমে।

নিজের ভুল বোঝা যায়
কোনো বিষয় নিয়ে মনোমালিন্য হলে, নিজের ভুল কেউই বুঝতে পারেন না। ঝগড়া হলে একে-অপরের সঙ্গে কথাবার্তায় নিজের ভুলগুলি ধরা পড়ে। সুস্থ-স্বাভাবিক আলোচনায় হয়তো সেটা আড়ালেই থেকে যেত। ঝগড়া সেদিক থেকে উপকারী হতে পারে।

সম্পর্কের বন্ধন মজবুত হয়
আদর্শ সম্পর্ক বলে কিছু হয় না। সুখী সম্পর্কের নির্দিষ্ট কোনো ফর্মুলাও নেই। সম্পর্কের বন্ধন মজবুত করে তোলার নেই বিশেষ কোনো কৌশলও। প্রেমের জোয়ারে ভেসে যেতে যেতে একে-অপরের প্রতি বিদ্রোহী হয়ে উঠলেও মন্দ হয় না। তাতে সঙ্গীর মনের আরও কাছাকাছি পৌঁছনো যাবে।

 

এসআর

×