ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

যৌথ ঘোষণায় শি ও পুতিন

বৈশ্বিক স্থিতি ক্ষুণ্ণ করছে যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:৩৯, ২২ মার্চ ২০২৩

বৈশ্বিক স্থিতি ক্ষুণ্ণ করছে যুক্তরাষ্ট্র

ক্রেমলিনে বৈঠকের পর চীনের প্রেসিডেন্টকে বিদায় জানান রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও  চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বাণিজ্য, শিল্প, বিজ্ঞান ও সামরিক খাতে সহযোগিতা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে একডজনেরও বেশি নথিতে স্বাক্ষর করার মাধ্যমে মস্কো-বেজিং বন্ধুত্ব জোরদার করেছেন। 
মঙ্গলবার ক্রেমলিনে কয়েক ঘণ্টাব্যাপী শীর্ষ বৈঠকে দুই নেতা ইউক্রেনের শান্তির সম্ভাবনা নিয়েও আলোচনা করেছেন বলে জানিয়েছে রুশ গণমাধ্যম আরটি। 
বৈঠকের পর আনুষ্ঠানিক নৈশভোজে পুতিন বলেছেন, ‘বিশ্ব শক্তিগুলো যারা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য এবং যাদের এই গ্রহের স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা বজায় রাখার বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে, তারা কীভাবে পরস্পরের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলবে এটি তার একটি উদাহরণ।’
দুজনের যৌথ ঘোষণায় জানানো হয়, রাশিয়া ও চীন ‘ব্যাপক অংশীদারিত্ব ও কৌশলগত মিথস্ক্রিয়ার একটি নতুন যুগে প্রবেশের মাধ্যমে সম্পর্ক গভীর’ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে।  তারা ২০৩০ সালের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতার মূল ক্ষেত্রগুলোর জন্য একটি উন্নয়ন পরিকল্পনা তৈরি করবে বলেও জানিয়েছে। এর পাশাপাশি পুতিন ও শি পশ্চিমা দেশগুলোর কড়া সমালোচনা করেছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, চীনের নেতার মস্কো সফরকে ক্রেমলিন তাদের প্রতি সবচেয়ে প্রভাবশালী বন্ধুর সমর্থন হিসেবে দেখানোর চেষ্টা করছে। সফরের দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবারও নানা অনুষ্ঠানে ছিল দুই দেশের মধ্যকার বর্তমানের সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের প্রদর্শনী।  শি আর পুতিন একে অপরকে ‘প্রিয় বন্ধু’ সম্বোধন করেছেন, অর্থনৈতিক সহযোগিতা জোরদারের প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পাশাপাশি দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ককে ‘যে কোনো সময়ের মধ্যে সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ’ বলে অভিহিত করেছেন।

যৌথ ঘোষণায় তারা বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র বৈশ্বিক স্থিতিশীলতা ক্ষুণ্ণ করছে, ন্যাটো তাদের এখতিয়ারে বাইরে গিয়ে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে নাক গলাচ্ছে। ইউক্রেন নিয়ে শান্তি প্রস্তাব দেওয়ায় শির প্রশংসা করেছেন পুতিন; ইউক্রেন ও পশ্চিমা দেশগুলো এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় তাদের দোষারোপ করেছেন তিনি। তবে শি ইউক্রেন সংঘাত নিয়ে খুব কমই মুখ খুলেছেন; জানিয়েছেন, এই ইস্যুতে ‘চীনের অবস্থান নিরপেক্ষ’। 
সফর শেষে বুধবার মস্কো ছেড়ে নিজ দেশে ফিরে যান চীনের প্রেসিডেন্ট। এ দুই বিশ্ব নেতার বৈঠক নিয়ে দেওয়া প্রতিক্রিয়ায় হোয়াইট হাউস চীনের অবস্থান ‘মোটেও নিরপেক্ষ নয়’ বলে দাবি করেছে। রাশিয়াকে ইউক্রেনের সার্বভৌম অঞ্চল থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করানোসহ যুদ্ধ বন্ধে মস্কোকে চাপ দিতে বেজিংয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে তারা।

×