ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০

সংস্কৃতি সংবাদ

শিল্পকলায় বিবেকানন্দ থিয়েটারের ‘উত্তরণ’ নাটকের দুই প্রদর্শনী

সংস্কৃতি প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০০:২৯, ১ ডিসেম্বর ২০২৩

শিল্পকলায় বিবেকানন্দ থিয়েটারের ‘উত্তরণ’ নাটকের দুই প্রদর্শনী

শিল্পকলার স্টুডিও থিয়েটারে মঞ্চস্থ হয় নাটক ‘উত্তরণ’

মঞ্চ থেকে ভেসে আসছে নাটকের সংলাপ ‘কৈশোরে পেয়েছি বঞ্চনা, যৌবনে চৌর্যবৃত্তি আর এই বার্ধক্যে এসে শুধু অপরাধবোধ আর মনে মনে ঘৃণা। কত মানুষের ক্ষতি করেছি, কত লোকের সর্বস্ব নিয়েছি কেড়ে, কত সতীর্থদের করুণ পরিণতি দেখেছি। তবুও এতটুকু সান্ত¡না পেতে চেয়েছি এই ভেবেÑতোমরা এপথে আক্রান্ত না হও। আমি পারিনি যে তা কিন্তু না। তবু মনের মাঝে একি হাহাকার, কেন এই শূন্যতা, কেন এই অতৃপ্তি, আঁধারের হাতছানি, জুড়াইতে চাই তবু না জুড়ায় কোথা হতে আসি কোথা ভেসে যাই’Ñ বিবেকানন্দ থিয়েটারের ‘উত্তরণ’ নাটকের এসব সংলাপ রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির স্টুডিও থিয়েটারে উপস্থিত দর্শক মুগ্ধ চিত্তে উপভোগ করছে। 
দলের ২৩তম প্রযোজনা ‘উত্তরণ’ নাটকের পর পর দুটি প্রদর্শনী হয় বৃহস্পতিবার বিকেলে এবং সন্ধ্যায়। নাটকটি লিখেছেন অপূর্ব কুমার কু-ু এবং নির্দেশনার পাশাপাশি এতে অভিনয়ও করেছেন শুভাশীষ দত্ত তন্ময়। 
নাটক ‘উত্তরণ’ একদল পথভ্রষ্ট মানুষের দিকহীন, দিশাহীন পথে পথ চলা। তাদের চলতি পথ কৌশলী, কল্পনানির্ভর কিন্তু পুনঃপুনঃ আল্ডান্ত হয়ে মরা বাঁচার মধ্যবর্তী খাদ বেয়ে চলা। তারা বোঝে তাদের চলতি পেশাহীন, মন্দ, লোক সমাজ দ্বারা ঘৃণিত তবু তারা মনের দৃঢ়তার অভাবে এই পেশার বৃত্তির গ-ি থেকে বেরিয়ে আসতে পারে না। অথচ তারা চায় সুস্থ-স্বাভাবিক সুন্দর জীবনে অবগাহন করতে, অপরাপর মানুষের মাঝে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দাঁড়াতে।

একদিকে নিকৃষ্ট জীবিকায় জীবন ধারণ, অপরদিকে মনের দিক দিয়ে দায়িত্বশীল ভূমিকায় অবতারণের প্রবল ইচ্ছার টানাপোড়েনের কেন্দ্রীয় চরিত্রের নাম উত্তরণ। এই উত্তরণ অনেকটা বৃক্ষের মতন, যার শিকড় মাটির তলে অন্ধকারে পচা মাটিতে অথচ যে ডালে ডালে ফুলে ফলে ধরিত্রীকে রঙিন করে, নিজের জীবনকে সার্থক করে। পচা মাটি এখানে উত্তরণদের জীবিকা আর ফুল ফল তাদের জীবন বোধ এবং বোধ থেকে উচ্চারিত সংলাপ। 
নাটকটির অভিনয় শিল্পীরা হলেন শুভাশীষ দত্ত তন্ময়, শান্তনু সাহা, তারক নাথ দাস, অমিতাভ রাজীব, এসএম মাশফিক আহমেদ, এ আর কিবরিয়া, সুমিত চন্দ্র দাস, হিমেল হিমু, রতন মোহন বিশ্বাস, ফাহতিন মাহতাব হক প্রমুখ। নাটকের পোস্টার ডিজাইন ও আবহ সংগীত করেছেন হামিদুর রহমান পাপ্পু। মঞ্চ পরিকল্পনা ফজ্জলে রাব্বি সুকর্ণ, আলো পলাশ হেন্ড্রী সেন, কোরিওগ্রাফি কামরুল হাসান ফেরদৌস, পোশাক-রূপসজ্জা ও নির্দেশনায় শুভাশীষ দত্ত তন্ময়।

×