ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

পাঁচ বিষয় মাথায় রেখে করতে পারেন সঞ্চয়ের পরিকল্পনা

প্রকাশিত: ২১:১৪, ১৫ মার্চ ২০২৩

পাঁচ বিষয় মাথায় রেখে করতে পারেন সঞ্চয়ের পরিকল্পনা

জীবনের শুরুতেই পরিকল্পনা করতে হবে

দৈনন্দিন জীবনে আমরা অনেক বিষয় জানি কিন্তু করিনা। আর এসব বিষয়ে যুক্ত রয়েছে আমাদের জীবনযাপনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্র। অবসরের জন্য পরিকল্পনা করে সঞ্চয় না করাটাও এই তালিকার অন্যতম।

মাথায় রাখুন আপনার বর্তমান বয়স এবং কতদিন বাঁচতে পারেন সেই অঙ্কটা

অবসরের জন্য সঞ্চয়ের জন্য অন্যতম প্রাথমিক হিসাবের জায়গা এটি। আপনার বর্তমান বয়স এবং অবসরের পরের কত বছরের জন্য আপনাকে সংস্থান করতে হতে হবে। আপনি যদি তাড়াতাড়ি অবসর নিতে চান তাহলে ভাবতে হবে জীবনের বাকি অংশটাই কিন্তু নিয়মিত আয়ের সুযোগ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কথা এবং সঞ্চয় থেকে পাওয়া মাসিক আয়ের উপর নির্ভর করে বাঁচার কথা। ধরুন, আপনি ৫০ বছরে অবসর নিতে চান। তাহলে তার আগেই আপনাকে অন্তত ৩৫ থেকে ৪০ বছরের সংস্থানের পরিকল্পনা করতে হবে। আর সেটা যে একদিনেই করতে পারবেন তাও নয়। এর জন্য আপনাকে জীবনের শুরুতেই পরিকল্পনা করতে হবে।

আপনি আজ ভাবছেন অবসরের পরে মাস গেলে হাজার পঞ্চাশেক টাকাতেই আপনার চলে যাবে। আপনি আসলে ভাবছেন ৫০ হাজার টাকা আজ যা কিনতে পারে, আজ থেকে ৩০ বছর পর সেই পরিমাণ জিনিস কিনতে পারলেই আপনার চলে যাবে। সমস্যা হচ্ছে আপনি কিন্তু মুদ্রাস্ফীতির কথা ভাবছেন না। আজ যা ৫০ হাজার টাকায় কিনতে পারছেন তা কিন্তু অবসরের পরে কিনতে আরও অনেক বেশি টাকা লাগবে মুদ্রাস্ফীতির কারণেই। তাই গড় মুদ্রাস্ফীতির অঙ্কটা মাথায় রেখে হিসাব করুন।

সঞ্চয়ের উপর রিটার্ন 

আপনি অবসর নিয়েই পুরো সঞ্চয় তো তুলে নেবেন না। তাই কীভাবে প্রয়োজনের অতিরিক্ত টাকা তুলবেন না, তার উপর রাশ এবং সঞ্চয়ের বাকি অংশটা কীভাবে খরচ করবেন তা কিন্তু ভাবতে হবে। 

সঞ্চয় ছড়ানো

অবসরের আগে যেমন রিটার্নের কথা ভেবে নানান জায়গায় বিনিয়োগ করেছিলেন, অবসরের পরেও সেই রাস্তাতেই হাঁটতে হবে। কিন্তু অবসরের আগে যেভাবে তা করেছিলেন, অবসরের পরে তা করা যাবে না। অবসরের আগে হয়ত আপনি বেশি রিটার্নের খোঁজে শেয়ারে একটা বড় অংশ রাখতেন। কিন্তু অবসরের পরে আপনাকে শেয়ারে বিনিয়োগের অংশ কমাতে হতে পারে।

সঞ্চয়ের ঝুলি নিয়মিত খতিয়ে দেখা

আপনার সঞ্চয়ের সব থেকে দীর্ঘকালীন পরিকল্পনা হলো অবসরের সংস্থান। তাই এই লক্ষ্যে এগোতে আমরা সাধারণত এমন ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করি যেখানে বহুদিন টাকা ফেলে রাখলে রিটার্ন অনেক বেশি হয়। কিন্ত ঝুঁকিটা হল যেহেতু সময়টা লম্বা আজ যেখানে স্বস্তির আশ্বাস পেয়ে টাকা ঢেলেছেন, কিছু বছর বাদে বাজারের নানান পরিবর্তনের ফলে সেই ক্ষেত্রটিই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠল। তাই সঞ্চয়ের ঝুলি নিয়মিত খতিয়ে দেখুন।

এমএইচ

×