ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

ঢাকার কাছেই কোথাও...

প্রকাশিত: ২১:২৭, ২১ এপ্রিল ২০২৪

ঢাকার কাছেই কোথাও...

.

ঈদের লম্বা ছুটিতে অনেকেরই কোথাও যাওয়া হয়নিমন তো ছটফট করছে কোথাও গিয়ে একটু বেড়িয়ে আসার জন্যএতদিন ছুটির পর আবার ছুটি পাওয়াটা সবার জন্য সহজ নয়তাহলে কি বেড়ানো হবে না? কেন হবে না! ছুটির দিনে ঢাকার কাছেই প্রাকৃতিক পরিবেশ আর বিশুদ্ধ বাতাসে সারাদিনের জন্য বেড়িয়ে আসুন কোথাও থেকেঅথবা যেতে পারেন বাচ্চারা পছন্দ করবে, আবার নিজেদেরও সময়

কাটবে এমন কোথাওতেমনি সুন্দর দুটি জায়গায়

বেড়ানোর অভিজ্ঞতা জানাচ্ছেন- শোয়েব মাহমুদ

মাটির মায়ায় একদিন...

ঢাকা থেকে সকালে গিয়ে সন্ধ্যায় চলে আসা যায় এমন নিরিবিলি এবং সুন্দর একটা জায়গা খুঁজছিলামউদ্দেশ্য পরিবারের সবাই মিলে প্রকৃতির কাছাকাছি কিছুটা সুন্দর সময় কাটানোখুঁজতে খুঁজতে মন মতো একটা জায়গা পেয়েও গেলামরোজার আগেই ঘুরে এলাম মাটির মায়া থেকেএকদম সকাল সকাল ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই আমরা পৌঁছে গেলাম মাটির মায়ায়গাজীপুরের শ্রীপুরে উত্তর পেলাইদে এর অবস্থানভিতরে প্রবেশের পর যেদিকেই তাকাচ্ছিলাম, সবুজের দেখা মিলছিলএখানে এসে মাটির মায়ানামকরণের স্বার্থকতাও খুঁজে পেলামথাকার জন্য যেসব কটেজ রয়েছে, সেগুলো মাটির তৈরিকেউ বলে না দিলে সেটা বোঝার উপায় নেইপ্রতিটা কটেজ এতো সুনিপুণভাবে মাটি দিয়ে তৈরি করা হয়েছে যে মুগ্ধ হতে হয়মাটির তৈরি ঘর তো আগেও দেখেছি, তবে এই কটেজগুলোতে আধুনিক সব সুযোগ সুবিধাও বিদ্যমানঐতিহ্য আর আধুনিকতার মিশেলে তাই এটা রূপ নিয়েছে নান্দনিকতায়

রিসোর্টে পৌঁছে কটেজে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে আমরা সকালের নাস্তার পর্ব সেরে নিলামএরপর চারপাশটা ঘুরে দেখতে বের হলামপুরো জায়গাটাই বেশ খোলামেলাচারপাশের সবুজ প্রকৃতি আর অসংখ্য গাছগাছালি চোখের আরাম দিচ্ছিলএখানে অহরহ ঝিঁঝিঁপোকার আর পাখিদের ডাক শোনা যায়শহুরে কোলাহলময় ব্যস্ত জীবনের বাইরে নিরিবিলি এরকম একটা জায়গায় ঘুরে বেড়াতে বেশ লাগছিলবাচ্চারা এদিক ওদিক ছুটোছুটি করছিলদুপুরের আহার পর্ব শেষে আমরা গেলাম মাটির মায়ার পুকুরপাড়ের দিকেছায়া সুনিবিড় এই জায়গাটা দারুণপুকুরপাড়ে পানির ওপর একটা দোলনা আছে, যেটায় দোল খেতে খেতে অনায়াসে একটা অলস দুপুর পার করে দেওয়া যায়বাচ্চারা এর মধ্যে কিছুক্ষণ সুইমিংপুলে দাপাদাপিও করে এলোশেষ বিকেলে স্ন্যাক্স আর কফি খেতে খেতে আড্ডাটাও জমেছিলো বেশসবমিলিয়ে মাটির মায়ায় মায়াময় রিফ্রেশিং একটা দিন কাটিয়ে আমরা ফেরার পথ ধরলাম

জিরো গ্র্যাভিটি বাংলাদেশ

ঢাকায় প্রথমবারের মতো চালু হয়েছে ট্রাম্পোলিন পার্ক জিরো গ্র্যাভিটি বাংলাদেশ১০০ ফিট মাদানি এভিনিউতে শেফস টেবিল কোর্ট সাইডের ঠিক পাশেই এর অবস্থানএখানে বিশাল জায়গা নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে এই ট্রাম্পোলিন থিম পার্কছুটির দিনে পরিবার নিয়ে গেলাম জিরো গ্র্যাভিটিতেভিতরে ঢুকতেই চারপাশের ঝা চকচকে রঙিন সাজসজ্জা মুগ্ধ করলটিকেট কাউন্টার থেকে টিকেট সংগ্রহ করে জুতা এবং অন্যান্য জিনিসপত্র এখানকার লকারে রেখে ঢুকে পড়লাম লাফানোর জগতেএখানে প্যাকেজ আছে ৩ ধরনের- ৩০ মিনিট, ৬০ মিনিট, ১২০ মিনিটজনপ্রতি খরচ পড়বে সময়সীমা অনুযায়ী ৭২০-১৫০০ টাকা পর্যন্তবিশাল জায়গা জুড়ে লাফালাফি, ঝাপাঝাপি করার জন্য আছে নানারকম আয়োজনঅন্য যেকোনো কিডস পার্কে গেলে দেখা যায় শুধু বাচ্চারা লাফালাফি করছেকিন্তু এখানে বাচ্চা-বুড়ো সবাই মিলে লাফাচ্ছেওজন, গ্র্যাভিটি এগুলো এখানে কোনো ব্যাপারই নাছেলেমেয়েরা ইচ্ছামতো লাফালাফি শুরু করে দিয়েছে

কেউ তাদের বারণ করছে নাবাসায় যেখানে বাচ্চারা লাফালাফি করলে তাদের মা বকুনি দিতে থাকে, সে নিজেও এখানে এসে লাফাচ্ছেএই দৃশ্য দেখে বেশ মজা লাগলআমি নিজেও লাফিয়েছি জান-প্রাণ দিয়েলাফালাফি করার পাশাপাশি এখানে আছে বেশ কিছু রাইড আর একটিভিটিজডোনাট স্লাইড, ক্লাইম্বিং ওয়াল, জিপ লাইন, ওয়াইপ আউট, ট্রাম্পোলিন ব্যাটেল- প্রতিটা একটিভিটিই ছিল বেশ মজারআমাদের মনের ভিতর লুকানো বাচ্চামি যেন বের হয়ে এসেছিলসবমিলিয়ে, ক্রেজি লেভেলের ফান আর এন্টারটেইনমেন্টে ভরপুর দারুণ কিছু সময় কাটল আমাদেরপরিবারের সবাই মিলে একসঙ্গে মজা করার জন্য খুব বেশি জায়গা নেই আমাদের দেশেতাই নিশ্চিতভাবেই জিরো গ্র্যাভিটি নতুন হাইপড প্লেস হতে যাচ্ছেএবার লাফাবে বাংলাদেশ! ঈদের এই ছুটিতে যারা ঢাকাতেই থাকছেনতারা পরিবার নিয়ে ছুটির দিনটি কাটিয়ে আসতে পারেন চমকার এই জায়গাগুলোতে

×