বুধবার ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৮ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ঢাকায় প্রতি তিনজনে একজন বস্তিতে বাস করে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্রতি বছর সারাদেশ থেকে পাঁচ লাখ মানুষ বসবাসের জন্য ঢাকায় আসে। এ শহরের লোকসংখ্যা দিন দিন বাড়লেও এখনও ঢাকার প্রতি তিনজনে একজন মানুষ মৌলিক সুযোগ-সুবিধাহীন বস্তিতে বাস করে। সারাদেশের শহরাঞ্চলে প্রায় ৬০ লাখ গৃহের সঙ্কট রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে টেকসই উন্নয়ন (এসডিজি-১১) লক্ষ্যমাত্রা অর্জন, পরিকল্পিত নগরায়ন এবং বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় নগরের দরিদ্রদের আবাসন নিশ্চিত করা জরুরী।

সম্প্রতি রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত নগরের দরিদ্রদের জন্য গৃহায়নে অর্থায়ন বিষয়ক জাতীয় সম্মেলনে বিশিষ্টজনরা এ অভিমত ব্যক্ত করেন। বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের নগর উন্নয়ন কর্মসূচ দিনব্যাপী এ সম্মেলনের আয়োজন করে। সহ-আয়োজক হিসেবে ছিল জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ, নগর উন্নয়ন অধিদফতর, মিউনিসিপ্যাল এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ম্যাব), বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বিআইপি) এবং ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গবর্নেন্স এ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, শহরের বেশিরভাগ গরিব বস্তিতে অবৈধভাবে বসবাস করে, যেখানে জীবনমান অত্যন্ত নিম্নমানের। বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রধান সমস্যা হচ্ছে পর্যাপ্ত ও উপযুক্ত বাড়ির অভাব। বাড়ির এ সঙ্কট আরও বাড়বে। ২০২১ সাল নাগাদ এ সঙ্কটের পরিমাণ দাঁড়াবে ৮৫ লাখ বাড়ির। আর গ্রামে সঙ্কট হবে ৩৫ লাখ বাড়ির।

অনুষ্ঠানে নগর দরিদ্রদের আবাসন সঙ্কট মোকাবেলার লক্ষ্যে তৈরি ব্র্যাকের কমিউনিটি লিড হাউজিং মডেল, ইউএনডিপির ও জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের লো ইনকাম হাউজিং মডেল তুলে ধরে আলোচনা করা হয়।

দারিদ্র্যবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও নগর দরিদ্রদের গৃহায়ন ঋণের জন্য সরকারী-বেসরকারীসহ বিভিন্ন পর্যায়ে অংশীদারিত্ব জোরদারকরণ এবং মেয়র ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ নগর উন্নয়ন সংশ্লিষ্টদের সম্পৃক্তকরণের লক্ষ্যে এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সম্মেলনে দেশের সবগুলো সিটি কর্পোরেশনসহ প্রায় ৭৫ জন পৌর মেয়র এবং ইউএনডিপি ও বেসরকারী সংস্থা, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন পর্যায়ের আরও তিন শতাধিক প্রতিনিধি অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে ঢাকার মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, দ্রুত নগরায়ন, ত্রুটিপূর্ণ পরিকল্পনা, জমির অপ্রতুলতার কারণে ঢাকাসহ বিভিন্ন শহরে স্বাস্থ্যকর ও নিরাপদ বাসস্থান গড়া আমাদের জন্য এই সময়ে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি পরিকল্পিত আবাসন নির্মাণে ব্র্যাকসহ নগরীতে পরিকল্পিত আবাসন গড়তে ও আবাসন সঙ্কট মোকাবেলায় ছোট টিনের আবাসনের পরিবর্তে উঁচু ভবন নির্মাণের তাগিদ দেন।

তিনি বলেন, ঢাকাসহ বিভিন্ন শহরে নদীভাঙ্গন, দারিদ্র্য ও জীবন-জীবিকার তাগিদে মানুষ যেভাবে ছুটে আসছে তাতে টিনের ঘর দিয়ে নগরীর আবাসন সমস্যা মোকাবেলা করা সম্ভব নয়। এজন্য ২০০ পরিবারকে মডেল হিসেবে ধরে টোকিও, সিঙ্গাপুর ও কোরিয়ার আদলে বিভিন্ন বেসরকারী সংস্থা, হাউজিং কোম্পানি, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষসহ (রাজউক) সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানকে সমন্বয় করে আবাসিক ভবন গড়ে তোলা যেতে পারে।

শীর্ষ সংবাদ:
কক্সবাজারকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলা অপরিহার্য ॥ প্রধানমন্ত্রী         বিদ্যুতের দাম ৫৮ শতাংশ বাড়ানোর সুপারিশ         ‘নিত্যপণ্যের দাম বাড়ার জন্য দায়ী আন্তর্জাতিক বাজার’         দেশে আরও ২২ জনের করোনা শনাক্ত         দেশে খাদ্যের কোনো ঘাটতি নেই ॥ খাদ্যমন্ত্রী         ১৯৮২ সালের পর যুক্তরাজ্যে সর্বোচ্চ মুদ্রাস্ফীতি         রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ॥ চিকিৎসাধীন তিন জনের মৃত্যু         রায়পুরে মাদ্রাসা ছাত্রী হত্যায় ৪ জনের যাবজ্জীবন         বাতাসে জলীয়বাষ্প বেশি থাকায় ভ্যাপসা গরম         বিদেশী মনোপলি ব্যবসা বন্ধ করে দেশীয় মালিকানাধীন তামাক শিল্প রক্ষা করুন         ১ জুন ফের শুরু বাংলাদেশ-ভারত ট্রেন চলাচল         হাইকোর্টে সম্রাটের জামিন বাতিল         পরীমনির মামলায় নাসিরসহ ৩ জনের বিচার শুরু         আজ আন্তর্জাতিক জাদুঘর দিবস