বুধবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৫ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চ্যালেঞ্জের মুখে রফতানিমুখী শিল্প খাত

  • ইউরো, পাউন্ডের মতো মুদ্রার অবমূল্যায়নে সরকারের নীতি সহায়তা ও প্রণোদনা প্রয়োজন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বর্তমানে পোশাক শিল্প খাত চ্যালেঞ্জের মধ্য রয়েছে। এ খাতের উদ্যোক্তারা প্রতিযোগী দেশগুলো তাদের সরকারের কাছ থেকে সুযোগ-সুবিধা ও নীতি সহায়তা পাচ্ছে। একই সঙ্গে বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমার ফলে ওই সব বেশ কয়েকবার দাম সমন্বয় করেছে। কিন্তু আমাদের দেশে জ্বালানি তেলের দাম সমন্বয় করা হয়েছে মাত্র একবার। মঙ্গলবার এক প্রতিক্রিয়ায় রফতানিকারকদের সংগঠন এক্সপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইএবি) সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বেক্সিটের একটা বড় চ্যালেঞ্জের মধ্যে রয়েছি আমরা। তিনি বলেন, বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বাজার যুক্তরাজ্যে সাড়ে ৩ বিলিয়ন ডলার রফতানি হচ্ছে। কিন্তু পাউন্ডের দরপতনে দেশটিতে রফতানিমুখী সব খাতই মুখ থুবড়ে পড়বে। এজন্য এ দেশের রফতানিমুখী শিল্প বাঁচাতে সরকারকে এখনই নীতি সহায়তা কিংবা বিশেষ প্রণোদনা দেয়া প্রয়োজন। না হলে যুক্তরাজ্যে আমাদের অংশীদারিত্ব কমে আসবে। সালাম মুর্শেদী বলেন, প্রতিযোগী দেশগুলোর মধ্যে ভারত কিংবা ভিয়েতনামে মুদ্রার অবমূল্যায়নে সেদেশের সরকার বিশেষ প্রণোদনা দিয়েছে। তিন বছর আগে ভারতের একজন রফতানিকারক ১ ডলারের বিপরীতে পেতেন ৪৪ রুপী। বর্তমানে দেশটির রফতানিকারকরা ১ ডলারের বিপরীতে পাচ্ছেন ৬৮ রুপী। আমাদের দেশও পোশাক শিল্পের উন্নয়নে নানা ধরনের প্রণোদনা দিলেও তা যথেষ্ট নয় বলে তিনি মনে করেন। সালাম মুর্শেদী বলেন, বিদেশী উদ্যোক্তারা যখন দেখেন আমার গ্যাস-বিদ্যুতের সমস্যা তখন আর কেই বিনিয়োগ করতে এগিয়ে আসবে না। তিনি বলেন, ধারাবাহিক পোশাকের দরপতন হচ্ছে।

তিনি বলেন, একদিকে ঋণের সুদের হার কমানোর কথা বলা হচ্ছে, অন্যদিকে সিঙ্গেল ডিজিটে ছোট ছোট প্যাকেজে ঋণ দিচ্ছে ব্যাংকগুলো। কিন্তু ব্যাংকের মেয়াদী ঋণের বিনিয়োগ খুবই কম। মেয়াদী ঋণের ক্ষেত্রে সিঙ্গেল নয়, ডাবল ডিজেটেই ঋণ দিচ্ছে ব্যাংকগুলো। মেয়াদী ঋণ না পেলে উদ্যোক্তারা অর্থনৈতিক জোন প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসবে না।

সব উদ্যোক্তাদের সুযোগও নেই বিদেশী ঋণে পেয়ে বিনিয়োগ করবে। আমানতের সুদ হার এবং ঋণের সুদ হার কমানোর পরও ব্যক্তি খাতে বিনিয়োগ বাড়ছে না। এর মূল কারণই হচ্ছে অবকাঠামোগত সমস্যা। এ সমস্যা সমাধানে বাজেটে সুনির্দিষ্ট ঘোষণা নেই। সরকারের কাছে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব তুলে ধরে পোশাক শিল্পের এ উদ্যোক্তা বলেন, মুদ্রানীতিতে একটু বাড়িয়ে পোশাক শিল্পের উন্নয়নে লক্ষ্যমাত্রা রাখা উচিত ছিল।

গত বাজেটে সরকার শতাধিক ইকোনমিক জোন পাস করেছে। কিন্তু এমন কোন নীতিমালা নাই যে, কেউ যদি শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে তাকে বিদ্যুত-গ্যাসের সংযোগ পাবে। এ ধরনের ঘোষণা না থাকার কারণে উৎসাহী উদ্যোক্তারা বিনিয়োগে আসছে না। বাজেটে অর্থনৈতিক জোনের প্রস্তাবনা থাকলেও কোনটি আগে তৈরি হবে সে রকম সুনির্দিষ্ট ঘোষণা নেই। তিনি বলেন, ফার্মসিটিকিউলস, চামড়া, প্লাস্টিক, পাট, তথ্যপ্রযুক্তিসহ এমন কিছু সম্ভাবনাময় খাতকে বিশেষ অগ্রাধিকার দিয়ে ইকোনমিক জোনে জায়গা দিতে হবে। এসব খাতের উদ্যোক্তাদের স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদে ঋণ দিতে হবে। বিশেষ করে নারী উদ্যোক্তাদের সহজ শর্তে ঋণ দেয়ার ব্যবস্থা করে দিতে হবে।

রাজধানীর বাইরে যদি কোন উদ্যোক্তা শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে চান তাহলে সরকারের উচিত বিশেষ কোন প্যাকেজ দেয়া। পোশাক শিল্পের মালিকগণ পণ্য রফতানি করে আয় দেশে না এনে বিদেশে রাখছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানের মন্তব্য প্রসঙ্গে সালাম মুর্শেদী বলেন, ঢালাওভাবে এ খাতের উদ্যোক্তাদের নিয়ে এমন মন্তব্য করা সমীচীন নয়।

শীর্ষ সংবাদ:
স্বপ্ন পূরণে ভাগ্য বদল ॥ পদ্মা সেতু নামেই ২৫ জুন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী         রোহিঙ্গারা অপরাধে জড়াচ্ছে প্রত্যাবাসন অনিশ্চয়তায়         ১৩৫ বিলাসবহুল পণ্যে ২০ ভাগ নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক আরোপ         আমি ত্রাস সঞ্চারি ভুবনে সহসা সঞ্চারি ভূমিকম্প...         দিনের ভোট দিনেই হবে, রাতে হবে না ॥ সিইসি         সম্রাটকে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠালেন আদালত         হাতিরঝিলের পানির ক্ষতি করা যাবে না ॥ হাইকোর্ট         এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে লড়ছে দুদল         মাঙ্কিপক্সের প্রবেশ রোধে সর্বোচ্চ সতর্ক হতে হবে         ঢাবিতে ছাত্রলীগ ছাত্রদল সংঘর্ষ ॥ আহত ৩০         জামায়াতের সঙ্গেও সংলাপে বসবে বিএনপি ॥ ফখরুল         সিলেটে বন্যার পানি নামছে ধীরে, নানা সঙ্কট         জলাবদ্ধতা থেকে এবারের বর্ষায়ও মুক্তি মিলছে না চট্টগ্রামবাসীর         শেখ হাসিনা সরকার পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়ে এনেছে ॥ কাদের         প্রত্যাবাসন নিয়ে রোহিঙ্গারা দীর্ঘ অনিশ্চয়তার কারণে হতাশ হয়ে পড়ছে : প্রধানমন্ত্রী         হাতিরঝিলে স্থাপনা উচ্ছেদসহ ওয়াটার ট্যাক্সি নিষিদ্ধে রায় প্রকাশ         মাদকাসক্ত সন্তানকে গ্রেফতারে বাবা-মা আসেন ॥ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         নিয়মানুযায়ী দিনের ভোট দিনেই হবে ॥ সিইসি         রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসনই স্থায়ী সমাধান         ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন