বৃহস্পতিবার ১৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০১ অক্টোবর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বিপ্লবী চেতনার প্রতি কবির অভিনন্দন

কাজী নজরুল ইসলাম প্রথমবারের মতো মাদারীপুরে আসেন ১৯২৬ সালের ১০ মার্চ। মাদারীপুরে নিখিল বঙ্গীয় ও অসম প্রদেশীয় মৎস্যজীবী সম্মেলনের তৃতীয় অধিবেশনে যোগদান করতে। অধিবেশনে ধীবর বা জেলেদের জন্য উদ্বোধনী গান রচনা ও পরিবেশন করেন। তৎকালীন সমাজ ব্যবস্থায় জেলেরা ছিল অবহেলিত জনগোষ্ঠী। কিন্তু নজরুল ছিলেন মানবতার ও সাম্যের কবি, তাই তাঁর কাছে উঁচু-নিচুর কোন ভেদাভেদ ছিল না, তাঁর চোখে সবাই মানুষ। এ কারণে সারা জীবন তিনি মানুষের জয়গান গেয়ে গেছেন। ওই সম্মেলনে কুমিল্লা থেকে এসেছিলেন রাজনৈতিক নেতা বসন্ত কুমার মজুমদার এবং তাঁর স্ত্রী নারীনেত্রী হেমপ্রভা মজুমদার। এখানেই তাঁদের সঙ্গে নজরুলের পরিচয় হয়। নজরুল তাৎক্ষণিক হেমপ্রভাকে নিয়ে একটি গান ‘কোন অতীতের আঁধার ভেদিয়া’ রচনা করেন এবং গেয়ে শোনান। মাদারীপুর শহর তখন ছিল বর্তমান রাস্তি ইউনিয়নের লক্ষ্মীগঞ্জে। ওখানেই ছিল হাট-বাজার, কোট-কাচারি, হাসপাতাল, জেলখানা অফিস-আদালত সবকিছু। মৎস্যজীবীদের টোলঘর ওখানেই ছিল, যেখানে নিখিল বঙ্গীয় ও অসম প্রদেশীয় মৎস্যজীবী সম্মেলেনের তৃতীয় অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে আড়িয়াল খাঁ নদের ভাঙ্গনে সেসব বিলীন হয়ে যায়।

দ্বিতীয়বার নজরুল ইসলাম মাদারীপুরে আসেন ১৯৩৭ সালে। তখন তিনি উঠেছিলেন মাদারীপুর শহরের অদূরে মহিষেরচর এ্যাডভোকেট আবুল ফজল মিয়ার বাড়িতে। সেখানে তিনি তিন দিন অবস্থান করেন এবং রাজৈর উপজেলার সমাজ ইশিবপুর গ্রামের বিপ্লবী নেতা পূর্ণচন্দ্র দাসের বাড়িতে যান। মাদারীপুরে নজরুলের বন্ধু ছিলেন দত্তকেন্দুয়ার কালিপদ গুহ রায় ও এ্যাডভোকেট আবুল ফজল মিয়া। কালিপদ গুহ রায়ের বড় ভাই প্রতাপচন্দ্র গুহ রায় ছিলেন কলকাতা প্রাদেশিক পরিষদের স্পীকার।

সামান্য সময়ের জন্য কাজী নজরুল ইসলাম মাদারীপুরে এসে এখানকার মাটি ও মানুষের সঙ্গে মিশে গিয়েছিলেন। আরও বিপ্লবী চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন মাদারীপুরের অগ্নিযুগে সশস্ত্র বিপ্লবীদের আদর্শে। এই মাদারীপুরের মাটিতে জন্ম নিয়েছিলেন অগ্নিপুরুষ পূর্ণচন্দ্র দাস, পুলিনবিহারী দাস, প্রণবানন্দজী মহারাজ (বিনোদ দাস), প্রমোদ দাশগুপ্ত, মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য, মনোরঞ্জন রায়, সন্তোষ দত্ত, হরিপদ চক্রবর্তী, হরিপদ দাসের মতো বিপ্লবী নেতা।

পূর্ণচন্দ্র দাসের বিপ্লবী চেতনায় আকৃষ্ট নজরুল তাঁর কারামুক্তি দিবসে তাঁরই উদ্দেশ্যে ‘পূর্ণ অভিনন্দন’ নামে কবিতা রচনা করেন। এই কবিতায় নজরুল পূর্ণচন্দ্র দাসের দেশপ্রেমের গুণকীর্তন করে তাঁকে বিপ্লবের শীর্ষে স্থান দিয়েছেন। এটি অসাধারণ কবিতা, যার ভেতরে ফুটে উঠেছে বিপ্লবী মননশীলতা আর দেশপ্রেমের নিখাদ প্রেরণা এবং মাদারীপুরের এই কৃতি সন্তানের প্রতি নজরুলের গভীর শ্রদ্ধা ও ভালবাসা। নজরুল এই কবিতার প্রায় প্রতিটি লাইনে পূর্ণচন্দ্র দাসকে কখনও পূর্ণিমার চাঁদের সঙ্গে, কখনও ফরিদপুরের শাহ্ ফরিদের সঙ্গে, কখনও মহাভারতের ঐতিহাসিক চরিত্রের সঙ্গে, কখনও যুদ্ধক্ষেত্রের মহাসেনাপতির সঙ্গে তুলনা করেছেন। নজরুল পূর্ণচন্দ্র দাসকে ‘মাদারীপুরের মর্দ্দবীর’ হিসেবেও আখ্যায়িত করেন।

-সুবল বিশ্বাস, মাদারীপুর থেকে

শীর্ষ সংবাদ:
জীববৈচিত্র্য রক্ষায় চারটি পদক্ষেপ নিতে বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর         যুক্তরাষ্ট্রে শেষকৃত্যানুষ্ঠানে বন্দুকধারীর হামলা ॥ গুলিবিদ্ধ ৭         মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসি ॥ বরগুনায় চাঞ্চল্যকর রিফাত হত্যা মামলা         ট্রাম্প-বাইডেন প্রথম নির্বাচনী বিতর্কে তিক্ততা, বিশৃঙ্খলা         সরকার দেশের স্বার্থে ব্যবসায়ীদের সুবিধা দিচ্ছে ॥ অর্থমন্ত্রী         শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়ছে         কোমল পানীয়ের নামে আমরা কী খাচ্ছি?         আলোচনার শীর্ষে টিলাগড় ॥ দুই আসামি রিমান্ডে         বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র বিমান চলাচল চুক্তি সই         জাপানী বড় বিনিয়োগের হাতছানি         ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আজ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন         ১৬ কোটি মানুষের একমাত্র আশা ভরসা শেখ হাসিনা         চাকরির প্রলোভনে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক গ্রেফতার         জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ         একাদশ সংসদের ৬১ শতাংশ সদস্যই ব্যবসায়ী         বিকাশের টাকা ডাকাতির ঘটনায় গাড়িসহ ৪ জন গ্রেফতার         বাংলাদেশ কখনো জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেয়নি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         ৪ থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন পালন করবে ডিএনসিসি’         দেশের স্বার্থে সরকার ব্যবসায়ীদের পক্ষে সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে : অর্থমন্ত্রী         জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেবে ব্র্যাক ব্যাংক