ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১

রাজশাহীর নদী-জলাশয় দখল ও দূষণমুক্ত করার দাবি

​​​​​​​স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী

প্রকাশিত: ২১:৩২, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩

রাজশাহীর নদী-জলাশয় দখল ও দূষণমুক্ত  করার দাবি

বিশ্ব নদী দিবস উপলক্ষে সোমবার মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে বাপা

পদ্মা নদী বাঁচলে রাজশাহী বাঁচবে, পরিবেশ দূষণ থেকে রাজশাহী রক্ষা পাবে’- স্লোগানে রাজশাহীতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বাংলদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) রাজশাহী কমিটি। বিশ্ব নদী দিবস উপলক্ষে সোমবার সকাল ১০টা থেকে ঘণ্টাব্যাপী নগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্টে কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

রাজশাহী বাপার জামাত খানের সভাপতিত্বে কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, পদ্মা নদীর বেশিরভাগ এখন দখল হয়ে গেছে। পদ্মার ভেতরে অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয়েছে বাণিজ্যিক স্থাপনা, ক্লাব, বিভিন্ন গোষ্ঠীর অফিস দোকান-পাট। গত এক দশকে রাজশাহী নগরের অসংখ্য পুকুর-জলাশয় ভরাট করা হয়েছে। এখনো এসব ভরাট অব্যাহত রয়েছে। পুকুর নদীখেকোদের বিরুদ্ধে প্রমাণসহ প্রশাসনে বারবার আবেদন করা হলেও কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করে না। ফলে রাতারাতি পুকুর-জলাশয় নদ-নদী দখলে চলে যাচ্ছে। এসব অবিলম্বে বন্ধ করার আহ্বান জানানো হয়।

বক্তব্য রাখেন রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি লিয়াকত আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. আবদুল মান্নান, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপার উপদেষ্টা দেবাশিষ প্রামাণিক দেবু, বাপা কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আফজাল হোসেন, নাচোল উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আবু তাহের খোকন, সিনিয়র সাংবাদিক সাজু, আদিবাসী নেতা সুভাষ চন্দ্র হেমব্রন, নারী নেত্রী ডা. সেলিনা বেগম, কেএম জোবায়েদ হোসেন জিতু, জাহিদ হাসান, ফরহাদ হোসেন রিংকু, সোনিয়া খাতুন চাইনা বেগম প্রমুখ।

নরসুন্দা নদী রক্ষায় মানববন্ধন

নিজস্ব সংবাদদাতা কিশোরগঞ্জ  থেকে জানান, ‘নদী হলো জীবন্ত সত্তা। জীবন্ত সত্তাকে যারা দূষিত করে তারা অপরাধীস্লোগান নিয়ে কিশোরগঞ্জ শহরের বুকচিরে বয়ে চলা এককালের নরসুন্দা নদী রক্ষায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকালে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) জেলা কমিটি কিশোরগঞ্জ পরিবেশ রক্ষা মঞ্চের (পরম) যৌথ উদ্যোগে শহরের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্বরে কর্মসূচি পালন করে। পরমের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ শরীফ সাদীর সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন প্রভাষক শহিদুল ইসলাম রুবেল, টিআইবির আঞ্চলিক সমন্বয়কারী মাসুদুল আলম, পরমের সদস্য আব্দুল খালেক, তানভীর আহমেদ জুবায়ের প্রমুখ।

×