২৬ জানুয়ারী ২০২০, ১৩ মাঘ ১৪২৬, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

সান্তাহারে পতাকার ফেরিওয়ালাদের বিরামহীন ছুটে চলা

প্রকাশিত : ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৪০ পি. এম.
সান্তাহারে পতাকার ফেরিওয়ালাদের বিরামহীন ছুটে চলা

নিজস্ব সংবাদদাতা, সান্তাহার ॥ প্রতি বছর বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রাক্কালে বেড়ে যায় জাতীয় পতাকা এবং মাথায় পড়া ফিতা ও ইলাস্ট্রিকের হেডবেল্ড স্টিকারের। দেশের বিভিন্ন শহর থেকে আসেন এসবের ফেরিওয়ালা। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। ডিসেম্বর মাসের শুরু থেকেই দেখা মিলছে পতাকার ফেরিওয়ালাদের। পতাকা হাতে ফেরিওয়ালারা বিরামহীন ছুটে চলছেন পৌর শহরের হাট-বাজার, রাস্তা-ঘাট আর পাড়া মহল্লায়। যাচ্ছেন শহর আশপাশের হাট-বাজারেও। প্রতি বছর ওই দিবস গুলোর মাসের শুরুতে মানুষের মধ্যে পতাকা ও পতাকাস্টীকার কেনার ধুম পরে। দিবসের দিন গুলোতে সবাই নতুন পতাকা উড়াতে চায়। সরকারি-বেসরকারি অফিস, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন সামাজিক ও সাস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ছাড়াও বাসা বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, যানবাহনে এসব দিবসের পতাকা উড়ানো হয়। এছাড়াও বিজয় দিবসের বিভিন্ন বিভিন্ন যোগ দিতে শিশু-কিশোর, তরুণ-তরুনীদের হাতে নতুন পতাকার স্টিক শোভা পায়। এতে করে বেড়ে যায় জাতীয় পতাকার চাহিদা। একারণে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পতাকার ফেরিওয়ালারা সান্তাহার শহরে অবস্থান নেয়। এবারের ডিসেম্বর মাসের শুরু থেকে তারা ফেরি করে পতাকা বিক্রি শুরু করেছেন। আগামী ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিক্রি শেষে তারা ফিরে যাবেন। এমনই একজন ফেরিওয়ালা শেখ ফজলুর রহমানের সাথে কথা বলে জানা গেল তার বাড়ি ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা উপজেলার বোড়াদিয়া গ্রামে। তিনি জানান, তারা কয়েকজন সান্তাহার শহরে এসেছেন নবেম্বর মাসের শেষ দিকে। শহরে একটি ভাড়া বাসায় অবস্থান করছেন। সেখানে তারা রাতে বিভিন্ন মাপের পতাকা, ফিতা ও ইলাস্ট্রিকের হেডবেল্ড স্টিকার তৈরী করেন। সকালে হাতে-কাঁধে নিয়ে বিক্রির জন্য বেড়িয়ে পড়েন। তারা গত ৫ বছর ধরে সান্তাহার এসে অবস্থান নিয়ে শহরের রাস্তায় এবং পাড়া-মহল্লার পাশাপাশি এলাকার বিভিন্ন হাট-বাজারে পতাকা ফেরি করে বিক্রি করছেন। তিনি জানান, এবছরও পতাকার দাম বাড়েনি। গত বারের মত ৫০ টাকা থেকে ৩শত টাকায় পতাকা এবং ১০ টাকায় পতাকা স্টিকার ও হেড বেল্ট বিক্রি করছেন।

প্রকাশিত : ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৬:৪০ পি. এম.

১০/১২/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



শীর্ষ সংবাদ: