ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

রেখা-অমিতাভের প্রেমের দৃশ্য দেখে অবিরাম কেঁদেছিলেন জয়া! 

প্রকাশিত: ১৫:১২, ১১ অক্টোবর ২০২২; আপডেট: ১৬:৩১, ১১ অক্টোবর ২০২২

রেখা-অমিতাভের প্রেমের দৃশ্য দেখে অবিরাম কেঁদেছিলেন জয়া! 

অমিতার ও রেখা

১৯৮১ সালে যশ চোপড়া রেখা এবং অমিতাভ বচ্চন  ও জয়া বচ্চনকে নিয়ে তৈরি করেন ‘সিলসিলা’। 

০১
মুকদ্দর কা সিকন্দর সিনেমায় রেখা এবং অমিতাভের প্রেমের দৃশ্য চলছে। সিনেমা হলের একেবারে সামনের আসনে বসে সেই দৃশ্য দেখছিলেন জয়া বচ্চন। হঠাৎ তাঁর চোখ ভিজে গেল। গাল বেয়ে পড়ল জল। চলল অবিরাম।

 

০২
সেদিন রেখা ছিলেন হলের প্রজেকশন রুমে। পর্দার পাশ থেকে তিনি স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছিলেন জয়াকে। কিন্তু জয়ার পিছনের আসনে বসা অমিতাভ সেই অশ্রুপাত দেখতে পাননি। 

এক সাক্ষাৎকারে সেদিনের ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ দিয়েছিলেন রেখা। 

 ১৯৭৮ সালে স্টারডাস্ট পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সেদিনের ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ দিয়েছিলেন রেখা। এ-ও বলেছিলেন, জয়াকে দেখে তাঁর খারাপ লেগেছিল।

 

০৩
সাক্ষাৎকারে রেখা বলেছিলেন, ‘‘মুকদ্দর কা সিকন্দর মুক্তি পাওয়ার আগে গোটা বচ্চন পরিবারের জন্য ছবিটির আগাম স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। আমিও সেদিন ছিলাম হলে। তবে প্রজেকশনের ঘরে। জয়া একেবারে সামনের আসনে বসেছিলেন। আমি ওঁকে স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছিলাম। আমার আর অমিতজীর ঘনিষ্ঠদৃশ্যের সময় ওঁর চোখ থেকে জলে পড়েই যাচ্ছিল।’’

 

০৪

এই ঘটনার পর দিন থেকেই রেখাকে জনে জনে এসে বলে গিয়েছিল, অমিতাভ আর তাঁর সঙ্গে ছবি করবেন না। এ ব্যাপারে নাকি প্রযোজকদের সঙ্গে কথাও বলতে শুরু করেছেন তিনি।

 

০৫
বলিউডে সে সময় রটে গিয়েছিল, অমিতাভের ওই সিদ্ধান্তের জেরেই রেখা আর জয়ার মুখ দেখাদেখি বন্ধ হয়ে যায়।

 

০৬

কিন্তু সেই ঘটনার বহুদিন পর দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিষয়টিকে গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছিলেন রেখা।

 

০৭
জয়াকে ‘দিদিভাই’ বলে ডাকতেন রেখা। সিমি গরেওয়ালকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রেখা বলেছিলেন, ‘‘দিদিভাই অনেক বেশি পরিণত। অনেক ধীর স্থির। আমি ওঁর মতো মর্যাদাবোধ সম্পন্ন মহিলা আজ পর্যন্ত দেখিনি।

 

০৮

রেখা বলেছিলেন, ‘‘আমাদের খুব ভাল সম্পর্ক ছিল একটা সময়ে। আমরা একই বাড়িতে থাকতাম একটা সময়ে। আমি ওঁকে দিদিভাই বলে ডাকতাম। এখনও ডাকি। যা-ই হয়ে থাক না কেন এই সম্পর্ক কেউ আমার থেকে কেড়ে নিতে পারবে না।’’

 

০৯
রেখা বলেছেন, ‘‘আমি সেটা বরাবর মনে করেছি। আর আমি নিশ্চিত উনিও সেটা বু‌ঝতে পেরেছিলেন।’’

 

১০

জয়ার সম্পর্কে  বলতে গিয়ে রেখা বলেছেন, ‘‘পুরো ব্যাপারটাই ছিল গুজব, সংবাদমাধ্যমের জন্য সব গোলমাল হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু তারপরও যখনই আমাদের দেখা হয়েছে সব সময় হাসিমুখে কথা বলেছেন দিদিভাই। আমার কাছে ওঁর সম্মান প্রতিমুহূর্তেই বেড়েছে।’’   

টিএস

monarchmart
monarchmart