শুক্রবার ৭ কার্তিক ১৪২৮, ২২ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ব্যবসায়ীকে ভয় দেখিয়ে ৯ লাখ টাকা আদায় করায় দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা

ব্যবসায়ীকে ভয় দেখিয়ে ৯ লাখ টাকা আদায় করায় দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা

স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া অফিস ॥ বগুড়ায় এক বিড়ি ব্যবসায়ীর নিকট থেকে জোর করে ৯ লাখ টাকা নেয়ার ঘটনায় ডিবি পুলিশের দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তি মুলক ব্যবস্থা ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ প্রশাসন। এরা হলেন- ডিবি ইন্সপেক্টার(বগুড়া পুলিশের সাইবার সেলে কর্মরত) এমরান হোসেন তুহিন ও ডিবির সাব ইন্সপেক্টার(এসআই) শওকত আলম।

এদের মধ্যে এসআই শওকতকে বরখাস্ত করে ক্লোজড করা হয়। রবিবার দু’ পুলিশ কর্মকর্তাকেই রাজশাহীতে পুলিশের রিজার্ভ রেঞ্জ ফোর্সে(আরআরএফ) ক্লোজড করা হয়। এবিষয়ে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি কাজ কাজ করছেন।

পুলিশ সুত্র জানায়, ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা ২৭ মে মধ্য রাতে শহরের আল আমিন কমপ্লেক্সে মাস্টার বিড়ির স্বত্বাধিকারী হেলাল উদ্দিনের অফিসে অরো একজন মাস্ক পড়া ব্যক্তিকে নিয়ে তল্লাশি চালায়। এসময় মামলার ভয় দেখিয়ে তার নিকট থেকে ৯ লাখ টাকা আদায় করা হয়।

তবে অপর একটি সুত্র জানায়, অবৈধ ব্যান্ড রোল সর্ম্পকিত কারণে তারা সেখানে অভিযান চালায়। তবে অবৈধ ব্যান্ড রোল পাওয়া গেলেও তা পুলিশ উদ্ধার করেনি বরং পুলিশের এক সিনিয়র কর্মকর্তার নাম বলে বিষয়টি ম্যানেজ করার কথা বলে কোটি টাকার ওপরে তারা দাবি করে।

শেষমেষ বৈঠকে একটি নির্দিষ্ট অংকের টাকার বিনিময়ে রফা হয় এবং এরই একাংশ ৯ লাখ টাকা ওই রাতেই দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে রফা হওয়া অংকের বাকি টাকা দেয়ার কথা থাকলেও ব্যবসায়ী আর দেননি।

এবিষয়ে জানাজানি হওয়ার পর পুলিশ প্রশাসনের নিকট ওই ব্যবসায়ী ১৩ জুলাই লিখিত অভিযোগ করেন। এর প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলী হায়দার চৌধুরীকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

শনিবার ২৪ জুলাই ডিবি ইন্সপেক্টর তুহিনকে বগুড়া পুলিশ লাইন্সে ক্লোজড এবং এস আই শওকত আলমকে সাময়িক বরখাস্ত করে ক্লোজড করা হয়। রবিবার তাদের তাদের রাজশাহী আরআরএফ’তে সংযুক্ত করা হয়।

এব্যাপারে বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুয়া জানিয়েছেন, ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে শাস্তি মুলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।অভিযুক্ত একজনকে বরখাস্তসহ দু’জনকেই আরআরএফ রাজশাহীতে ক্লোজড করার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেন।

তিনি আরো জানান, কোন সিনিয়র অফিসারের নামে নয়, দুই কর্মকর্তা মামলার কথা বলে নিজেরাই ৯ লাখ টাকা নিয়েছিলেন বলে প্রমান পাওয়া গেছে। কয়েক দিনের মধ্যেই তদন্ত রিপোর্ট দাখিল হবে বলে তিনি আশা করেন।

অপর দিকে তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, বিষয়টি তদন্ত চলছে এবং মাস্ক পড়া অপর ব্যক্তির বিষয়েও খোঁজ নেয়া হচ্ছে। ব্যবসায়ীর অফিসে গিয়ে টাকা নেয়া হয়েছে এটি প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে।

শীর্ষ সংবাদ:
সুপার টুয়েলভে ॥ টাইগারদের চমৎকার নৈপুণ্য         সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে নজরদারি বাড়ান         জনকণ্ঠ ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম         বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটের রেকর্ড সাকিবের         অবশেষে কুমিল্লাকাণ্ডের হোতা ইকবাল গ্রেফতার         মূল্যস্ফীতি বাড়ছে         হঠাৎ বন্যায় তিস্তাপাড়ে ১৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী         শেখ হাসিনার হাতের ছোঁয়ায় উন্নত হচ্ছে রাজবাড়ী         সরকারের ধারাবাহিকতা থাকায় অভ‚তপূর্ব উন্নয়ন ॥ প্রধানমন্ত্রী         সন্ধ্যার পর ভাসানচর থেকে নৌযান চলাচল বন্ধ         বানরের শরীরে সফল ট্রায়াল, সব ভেরিয়েন্টে কার্যকর বঙ্গভ্যাক্স         শাহজালালে বসবে বিশ্বসেরা থ্যালাসের রাডার         হাসপাতালে আর থাকতে চাচ্ছেন না, বাসায় ফিরতে চান খালেদা         আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর, স্বস্তি ফিরছে জনমনে         জনকণ্ঠ ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম         ডাকসেবাকে ডিজিটাল করতে আসছে ‘ডিজটাল ডাকঘর’         সারাদেশের রেলপথ ব্রডগেজে রূপান্তর করা হবে : রেলমন্ত্রী         টি-টোয়েন্টি : বড় জয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ         শ্লীলতাহানির মামলা : কাউন্সিলর চিত্তরঞ্জন দাসের জামিন         দাম কমল পেঁয়াজের