শনিবার ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২১ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

বরিশালে শিশুর মুখে গামছা বেঁধে ধর্ষণ

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ হিজলা উপজেলার গুয়াবাড়িয়া ইউনিয়নের চর নরসিংহপুর গ্রামে দ্বিতীয় শ্রেণীতে পড়ুয়া আট বছরের এক শিশুর মুখে গামছা বেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার শিশুকে মুমূর্ষু অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রবিবার সকালে হিজলা থানার ওসি অসীম কুমার সিকদার জানান, ওই গ্রামের এক দিনমজুরের মাদ্রাসায় পড়ুয়া দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় শনিবার রাতে শিশুর বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। অভিযুক্ত ধর্ষককে গ্রেফতারের জন্য পুলিশের অভিযান চলছে। এজাহারের বরাত দিয়ে ওসি জানান, গত ২২ নবেম্বর সকাল ১০টার দিকে শিশুটি বাড়ির পাশের পানের বরজের কাছ দিয়ে যাচ্ছিল। এসময় পান বরজে শ্রমিকের কাজ করা একই গ্রামের ওয়াহেদ মাঝির পুত্র নাসির মাঝি (৩০) কৌশলে শিশুটিকে পান বরজের মধ্যে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে শিশুর মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষণের পর শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ি ফিরে তার দাদির কাছে ঘটনা খুলে বলে। তাৎক্ষণিক ওই শিশুকে প্রথমে হিজলা উপজেলা হাসপাতাল ও পরে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রূপগঞ্জে গার্মেন্টস শ্রমিক

নিজস্ব সংবাদদাতা রূপগঞ্জ থেকে জানান, রূপগঞ্জে এক গার্মেন্টস শ্রমিককে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। রবিবার সকালে ধর্ষিতা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলাটি দায়ের করেন। ধর্ষকের নাম স্বপন বিশ্বাস (২৬)। বাবার নাম মৃত জতীষ বিশ্বাস। বাড়ি বাগেরহাট জেলার মংলা থানার কাইনমারি।

ধর্ষিতার বরাত দিয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান জানান, ওই নারী শ্রমিক রূপগঞ্জ উপজেলার মৈকুলী এলাকায় বসবাস করে গার্মেন্টসে শ্রমিক হিসেবে কাজ করে আসছিল। স্বপন প্রায় সময়ই নারী শ্রমিককে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। গত ৭ নবেম্বর মধ্যরাতে মৈকুলী বসবাসরত ঘরে প্রবেশ করে জোরপূর্বক তাকে ধর্ষণ করে।

সাতক্ষীরায় ধর্ষকআটক

স্টাফ রিপোর্টার সাতক্ষীরা থেকে জানান, পাঁচ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক শরিফুজ্জামান (২২) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় শিশুটিকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যায় শহরের কাশেমপুর ঘটনাটি ঘটে। ধর্ষক শরিফুজ্জামান কলারোয়া উপজেলার রাজনগর গ্রামের শেখ ওহিদুজ্জামানের ছেলে ও সাতক্ষীরা পলিটেকনিকের ছাত্র। সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, কাশেমপুর এলাকার বাসিন্দা পাঁচ বছর বয়সী মেয়েটি বাড়ির পাশে খেলা করছিল। তার পাশে একটি ছাত্রাবাস আছে। ধর্ষক শরিফুজ্জামান শিশুটিকে ফুঁসলিয়ে তার রুমের ভেতর নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। শিশুটি তার পিতামাতার কাছে ঘটনাটি বললে তারা সাতক্ষীরা সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করে। শনিবার গভীর রাতে কাশেমপুর এলাকার অন্য একটি ছাত্রাবাস থেকে পুলিশ ধর্ষককে গ্রেফতার করে। শিশুটি সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

শীর্ষ সংবাদ: