বুধবার ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৫ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বিলুপ্তির পথে গ্রামবাংলার খোঁয়াড়

খোঁয়াড় জমির ফসল অথবা বসতবাড়ির বাগান বিনষ্টকারী গবাদিপশু আটক রাখার গারদ বিশেষ। ফসল বিনাশ করার আশঙ্কা রয়েছে এমন অবাধ বিচরণকারী গবাদিপশুও খোঁয়াড়ে আটক রাখা হতো। গ্রামীণ প্রতিষ্ঠান ‘খোঁয়াড়’ ফার্সি শব্দ। এর অর্থ ইতস্তত বিচরণশীল উচ্ছৃঙ্খল গবাদিপশু। বিশ শতকের চল্লিশের দশক অবধি সাধারণত গ্রামবাংলায় গ্রামীণ সমাজ কর্তৃক এই প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হতো।

মুঘল আমলে যখন সরকারী আয়ের প্রধান উৎস ছিল কৃষি, তখন জমির ফসল রক্ষার ক্ষেত্রে এই প্রতিষ্ঠানটি বিশেষ গুরুত্ব পায়। এ সময়ের অর্থনীতিতে গবাদিপশুর ভূমিকাও ছিল গুরুত্বপূর্ণ। সরকার এবং জমিদারদের অনুমতি নিয়ে প্রায় প্রত্যেক গ্রামেই খোঁয়াড় ব্যবস্থা গড়ে ওঠে। এর উদ্দেশ্য ছিল গবাদিপশুর কবল থেকে জমির ফসল ও বসতবাড়ির বাগান রক্ষা করা। খোঁয়াড় ব্যবস্থায় গবাদিপশু কর্তৃক ফসল হানিতে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট গবাদিপশু খোঁয়াড়ে আটক রাখতে পারতেন। এক্ষেত্রে যতদিন গবাদিপশুর মালিক ফসলের ক্ষতিপূরণ না দিতেন ততদিন ওই গবাদিপশু খোঁয়াড়ে আটক রাখা হতো। খোঁয়াড়ের ব্যবস্থাপক খোঁয়াড়ে আটক গবাদিপশু ফিরিয়ে নেয়ার জন্য পশুর মালিককে খবর পাঠাতেন। গ্রামের মাতব্বর শ্রেণীর প্রবীণ ব্যক্তিদের দ্বারা ধার্যকৃত জরিমানা প্রদান করে মালিক তার গবাদিপশু ছাড় করে নিতে পারতেন। গবাদিপশু কর্তৃক শস্যক্ষেত্র এবং বসতবাড়ির বাগান বিনাশ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে খোঁয়াড় পদ্ধতি ছিল একটি মোক্ষম প্রতিরোধ ব্যবস্থা। গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে একটি খোঁয়াড় ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠিত হতো। জরিমানার অর্থে খোঁয়াড়ের ব্যয় নির্বাহ করা হতো। এ ছাড়াও যে কৃষক তার গবাদিপশুকে আর্থিক বা অন্য কোনো কারণে খাবার দিতে সক্ষম ছিল না, সেক্ষেত্রে খোঁয়াড়ে সে সব পশুর খাবারের ব্যবস্থা করা হতো।

অন্যদিকে পশুর মালিক গ্রাম থেকে দূরে কোথাও গেলে তাদের গবাদিপশু খোঁয়াড় কমিটির তত্ত্বাবধানে রেখে যেতে পারতেন। গ্রামে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে খোঁয়াড়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। এই ব্যবস্থার মাধ্যমে গবাদিপশু চুরি বা ফসল নষ্টের মতো কিছু অপরাধকে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়। গ্রামের চৌকিদার খোঁয়াড় কমিটির সদস্য থাকত। তবে কৃষি ও উৎপাদন ব্যবস্থার ব্যাপক পরিবর্তনের ফলে বর্তমানে এ ব্যবস্থা অনেকটা বিলুপ্তির পথে।

-মাজহার মান্না, কিশোরগঞ্জ থেকে

শীর্ষ সংবাদ:
‘পর্যাপ্ত সবুজ ও বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা রেখেই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে’         প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা : ফাঁসির আসামি গ্রেফতার         বাংলাদেশ ও সার্বিয়ার মধ্যে দু’টি সমঝোতা স্মারক সই         লক্ষ্য সাশ্রয়ী মূলে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত ও জ্বালানি সরবরাহ ॥ নসরুল হামিদ         জাতীয় সংসদের জন্য ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট অনুমোদন         দিনাজপুরে ঘুষের ৮০ হাজার টাকাসহ কর্মকর্তা আটক         দায়িত্ব গ্রহণ করলেন ফায়ার সার্ভিসের নবনিযুক্ত মহাপরিচালক         আপনারা যুদ্ধাপরাধীদের সঙ্গে নির্বাচনে অংশ নেবেন না ॥ জাফর ইকবাল         মাঙ্গিপক্স ভাইরাসের বিস্তার ঠেকানো সম্ভব ॥ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা         দেশের অন্তত: ৩০ শতাংশ মানুষ ভুগছে থাইরয়েডে         ইউক্রেনে নিহত হাদিসুরের পরিবার পাচ্ছে ৫ লাখ ডলার         দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩০ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু নেই         টাকা আত্মসাতের দায়ে সোনালী ব্যাংকের সাবেক এমডিসহ ৯ জনের কারাদণ্ড         পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপির বুকে বড় জ্বালা ॥ কাদের         কামরাঙ্গীরচরে দুই যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু         সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্মসাত করেন চক্রটি         শাহরাস্তিতে ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে, নিহত ১         নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কিন্তু আমার আয় বাড়েনি         সংযুক্ত আরব আমিরাতেও প্রথম মাঙ্কিপক্স আক্রান্ত রোগী শনাক্ত