বুধবার ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৮ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

মহাব্যস্ত দর্জিপাড়া ॥ দম ফেলার ফুরসত নেই কারিগরদের

  • ঈদ বাজার

রহিম শেখ ॥ মহাব্যস্ত দর্জিপাড়া। বিরতিহীন সেলাই মেশিনের যান্ত্রিক শব্দ বলছে, দম ফেলার ফুরসত নেই কারিগরদের। এই ব্যস্ততা থাকবে চাঁদরাত পর্যন্ত। রাজধানীর পাড়া-মহল্লায় ফ্যাশনসচেতন তরুণ-তরুণী ও নারীদের পোশাক এখন বেশি তৈরি হচ্ছে। ছেলেদের শার্ট-প্যান্টের যোগান দিচ্ছে রাজধানীর নামকরা সব টেইলার্স। যদিও শব-ই-বরাতের পর থেকে এই পোশাক তৈরির অর্ডার নেয়া শুরু হয়েছে। ২০ রমজানের পর অর্ডার নেয়া বন্ধ করে দেবেন অনেক দোকানি। এবার কাপড়ের দাম বৃদ্ধি তো বটেই, ঈদ উপলক্ষে দর্জিরাও বাড়তি মজুরি নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন গ্রাহকরা।

‘দর্জিপাড়া’ খ্যাত রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউর রমনা ভবন, নীলক্ষেত, নিউমার্কেট, গাউসিয়া, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, ফার্মগেট ও মিরপুরের বিভিন্ন টেইলার্সে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, কাপড় তৈরি কারিগরদের এখন দম ফেলার সময় নেই। কাপড় সেলাইয়ের মেশিনের শব্দ একটানা একঘেয়ে, নাকি ছন্দময় তা চিন্তারও সুযোগও নেই তাদের। বাংলাদেশ ড্রেস মেকার এ্যাসোসিয়েশনের সূত্র মতে, রাজধানীসহ সারা দেশে তালিকাভুক্ত লক্ষাধিক টেইলার্স রয়েছে। তবে কোয়ালিটি টেইলার্সের সংখ্যা হবে হাজারের মতো। বাকি টেইলাসগুলো অতি সাধারণমানের এবং ছোট পরিসরের। সংগঠনের নেতারা বলছেন, ঈদের সময় হাল ফ্যাশনের তৈরি পোশাকের প্রতিই মানুষের আগ্রহ বেশি। এক্ষেত্রে শরীরের সঙ্গে মানানসই পোশাক পরতে হলে দর্জিপাড়ায় তাদের আসতেই হবে এবং আসছেনও। তাই এ সময়ে দর্জির দোকানগুলোতে বেশ ভিড় পড়ে। এবারও তাই হয়েছে। তিনি বলেন, এবার ঈদে বৃষ্টি এবং একই সঙ্গে তাপপ্রবাহ থাকার আশঙ্কা সামনে রেখে ক্রেতারা পছন্দের পোশাক বানাচ্ছেন।

বাংলাদেশ ড্রেস মেকার এ্যাসোসিয়েশনের তথ্য মতে, রাজধানীর ব্র্যান্ড টেইলার্সের মধ্যে রয়েছে সানমুন, সেঞ্চুরি, ক্লাইমেক্স, আইডিয়াল, র‌্যামন্ড, মিডল্যান্ড, স্টার, ফবস, ফেরদৌস, এলিগেন্স, ফাইভ মাস্টার, ম্যানচেস্টার, ক্যামব্রিজ, দি ব্লেজার বিডি, ড্রেস কিং, এম আকবর, হ্যানস টেইলার্স উল্লেখযোগ্য। এছাড়া নিউমার্কেট, গাউসিয়া ও এলিফ্যান্ট রোডেও বেশ কিছু ব্র্যান্ড টেইলার্স রয়েছে। এসব ব্র্যান্ডে কর্মরত কয়েক কর্মচারী জনকণ্ঠকে জানান, বছরের অন্য সময়ের তুলনায় এখন তাদের ব্যস্ততা দ্বিগুণ বেড়েছে। শব-ই-বরাতের পর থেকেই অর্ডার বেড়েছে। তারা এখন দিনরাত কাজ করছেন। বিশেষ করে শার্ট, প্যান্ট ও মেয়েদের পোশাকেরই অর্ডার আসছে বেশি। এবার একটি শার্ট তৈরিতে মাঝারি মানের টেইলার্সে মজুরি নেয়া হচ্ছে ৫৫০ থেকে ৭৫০ টাকা। প্যান্টের মজুরি ৬৫০ থেকে ৭৫০ টাকা। এ বিষয়ে নিউমার্কেটের সানসিটি টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী মোঃ দেলোয়ার হোসেন জনকণ্ঠকে বলেন, ‘অন্য সময় কাজের চাপ না থাকলেও ঈদকে সামনে রেখে কাজের চাপ বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। সব অর্ডারও এখন নেয়া যাচ্ছে না।’ চাঁদনী চক মার্কেটের সুচন্দা টেইলার্সের মফিজুল ইসলাম জানান, বেশিরভাগ অর্ডার আসছে মহিলাদের কাছ থেকে। কারণ মহিলা কিংবা তরুণীদের অনেকেই ফিটিংস পোশাক পছন্দ করেন। এ পোশাকের বড় একটা অংশের অর্ডার আসে রোজার ঈদেই। তাই অনেকে থান কাপড় কিংবা সেট নিয়ে চলে আসছেন দর্জিপাড়ায়। এ কারণে লেডিজ টেইলার্সগুলোয় অন্য সময়ের তুলনায় ব্যস্ততা বেড়েছে।

চাঁদনী চক, নিউ মার্কেট ও গাউছিয়া ঘুরে জানা যায়, এখানে থ্রি-পিস তৈরির মজুরি সর্বনিম্ন ৬৫০ টাকা থেকে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত। লং ফ্রক স্টাইলের পোশাক তৈরিতে খরচ পড়বে ৮০০ থেকে ২৫০০ টাকা পর্যন্ত। তবে ডিজাইনের ওপর মজুরির হেরফের হয়। নিউমার্কেটের নিউ ফ্যাশন টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী হোসেন মনসুর জনকণ্ঠকে বলেন, ঈদের অর্ডার নেয়া বন্ধ হয়ে গেছে। তবে কিছু নিয়মিত কাস্টমার আছে তারা যখন কাপড় আনবে তখনি তাদেরটা সেলাই করে দিতে হবে। কারণ তারা আমাদের নিয়মিত কাস্টমার। আমাদের মজুরি খুব একটা পরিবর্তন হয়নি। নরমাল সালোয়ার-কামিজের মজুরি ৬৫০ টাকা। সিটি কলেজ সংলগ্ন সিটি টেইলার্সের কাটিং মাস্টার প্রসেণজিৎ জানান, গতবারের চেয়ে এবার ঈদে কাজের চাপ বেশি। তাদের প্রতিষ্ঠানে ১২ কারিগর প্রতিদিন ৫০ সেট কাপড় সেলাই করে থাকেন। ঈদ উপলক্ষে প্রতিদিন ১৬ ঘণ্টা কাজ করেন তারা। নিউমার্কেটের দর্জি মাস্টার আমিনুল ইসলাম বলেন, সব কিছুর যেমন দাম বেড়েছে তেমনি কারিগরদের মজুরি বেড়েছে। আগে এক সেট সালোয়ার-কামিজ সেলাই করতে ২০০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা লাগত। এখন সেখানে লাগছে সর্বনিম্ন ৪৫০ টাকা থেকে ৬৫০ টাকা পর্যন্ত।

দর্জি দোকানের পাশাপাশি এবার গজ কাপড়ও ভাল বিক্রি হচ্ছে। ঈদকে সামনে রেখে বেশ কিছু নতুন গজ কাপড় এনেছেন চাঁদনী চক মার্কেটের দোকানিরা। নিউ মার্কেটে পিওর, অর্গেন্ডি, নেট, ভেলভেট, জর্জেট, তসর, সিল্ক, কাতান, টিস্যুসহ রিবন চিকেন, ভেলভেট চিকেন, লেইস চিকেন, ফুচকা চিকেনসহ বিভিন্ন সুতি কাপড় এসেছে। তবে এসব কাপড়ের দামটা একটু বেশি বলে জানান ক্রেতারা। এ মার্কেটের দোকানি ছদরুল ইসলাম বলেন, চাকচিক্য না থাকলে ঈদের কাপড় চলবে না। তবে অনেকে আবার একেবারে সাদামাটা কাপড়ও খোঁজেন। মঙ্গলবার মোহাম্মদপুর থেকে নিউমার্কেটে জামার কাপড় কিনতে এসেছিলেন জেসমিন সুলতানা। তিনি কাপড়ের দাম বেশি বলে অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, রোজার আগে যে কাপড় ৩০০ টাকা গজে পাওয়া যেত সে কাপড়ের গজ এখন ৬০০ টাকা লাগিয়েছে দোকানিরা। থানকাপড়ের রকমারি কালেকশন আছে; তবে এসব কাপড়ের দাম খুবই চড়া। এদিকে গজ বা থানকাপড়ের কেনাকাটার সঙ্গে বেড়েছে লেইস, পুঁতি, চুমকি, কুন্দন, পাথর, ডলার, ফিতার বিক্রি। লেইস-এর দাম ২০ টাকা গজ থেকে শুরু করে হাজার/বারো শ’ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। আর এক তোলা চুমকি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা পর্যন্ত। আর পুঁতি পাথর বিক্রি হচ্ছে পিস হিসেবে।

শীর্ষ সংবাদ:
লুটপাটে নিঃস্ব গ্রাহক ॥ পি কে হালদারের থাবা         অর্থ ব্যয়ে সাশ্রয়ী হোন অপচয় করা যাবে না         তামিমের সেঞ্চুরি- বাংলাদেশের দাপট         প্রকল্প কমিয়ে অর্থায়ন বাড়িয়ে উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন         জাতীয় সরকারের নামে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না         চুরি, ছিনতাই করতে কক্সবাজার থেকে ঢাকা আসত ওরা         পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণের উপায় খুঁজছে সরকার         অর্থপাচারকারীরা কোন দেশে গিয়েই শান্তি পাবে না         সিলেটে কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দী         সড়ক যেন ধান শুকানোর চাতাল, প্রাণ গেল বাইক আরোহীর         অবশেষে তথ্য অধিকার আইনে তথ্য দিল পুলিশ         ভোলায় বেইলি ব্রিজ ভেঙ্গে ট্রাক অটোরিক্সা খালে         ১১ ডিজিটের নতুন নম্বরে বিপাকে গ্রাহক         কিউআর কোড দিয়ে ভুয়া নিয়োগপত্র দিত ওরা         জিআই সনদ পেলো বাগদা চিংড়ি         জনগণের অর্থ ব্যয়ে সাশ্রয়ী হতে হবে ॥ প্রধানমন্ত্রী         বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান শিক্ষা উপমন্ত্রীর         ডলারের দাম ১০২ টাকার বেশি         সিলেটে বন্যার আরও অবনতির আশঙ্কা         কানের ভেন্যুতে ‘মুজিব’-এর পোস্টার