মঙ্গলবার ১২ মাঘ ১৪২৮, ২৫ জানুয়ারী ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

নীলফামারীতে বোরো ধানবীজ সঙ্কট ॥ দ্বিগুণ দাম

স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী ॥ বোরো আবাদের বিভিন্ন জাতের ধানবীজের সঙ্কট দেখা দিয়েছে জেলাজুড়ে। বিভিন্ন দোকান ও সরকারী বীজ বিক্রয় কেন্দ্রে পছন্দের বীজ খুঁজে পাচ্ছেন না কৃষক। যদিও চাহিদা অনুযায়ী বীজ মিলছে তবে দাম গুনতে হচ্ছে দ্বিগুণ। গত বছর ব্রি ধান ২৮ জাতে নেক ব্লাস্ট রোগ দেখা দেয়ায় কৃষকরা অন্য জাতের দিকে ঝুঁকে পড়েছেন। কৃষকের চাহিদার তুলনায় এসব জাতের সরবরাহ কম। গত দুইদিন বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে এ কথা জানা গেছে।

সদরের কুন্দপুকুর ইউনিয়নের শাহপাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল সাত্তার বলেন, পাঁচ বিঘা জমিতে বোরো আবাদের জন্য ১৫ দিন আগে বীজ সংগ্রহ করি। খোঁজাখুঁজির পর দোকান থেকে বিএডিসির ১৯ কেজি বীজ এক হাজার দুই শ’ টাকায় কিনেছি। কিন্তু বস্তার গায়ে প্রতি কেজির সরকার নির্ধারিত মূল্য ৫০ টাকা দেখেছি। একইভাবে ১০ কেজি ওজনের প্রতি বস্তা বীজের সরকারী মূল্য পাঁচ শ’ টাকা হলেও ওই বস্তা ছয় শ’ টাকায় কিনেছেন একই গ্রামের কৃষক জামাল উদ্দীন, সামসুল ইসলাম। কৃষক জামাল উদ্দীন বলেন, আমি ১৫ দিন আগে ওই বীজ সংগ্রহ করেছি। এখন শুনছি দাম আরও বেশি। এদিকে সদর উপজেলার পৌর এলাকার রেলগেট কুখাপাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল কাওসার বলেন, চার বিঘা জমিতে ব্রি ২৯ জাতের ধান আবাদের জন্য ১০ দিন আগে বীজ সংগ্রহের জন্য বিএডিসির বীজ বিক্রয় কেন্দ্রে যাই, সেখানে গিয়ে বীজ না পেয়ে চলে আসি। ওই বীজ এখন বাজারে বেশি দামে ক্রয় করতে হচ্ছে। জলঢাকা উপজেলার ধর্মপাল ইউনিয়নের উত্তর ধর্মপাল গ্রামের কৃষক গোলাম মোস্তফা অভিযোগ করে বলেন, এবারে পাঁচ বিঘা জমিতে হাইব্রীড জাতের বোরো ধান আবাদের পরিকল্পনা নিয়েছি। কিন্তু গত ১০ দিন ধরে ধানের বীজের জন্য বিভিন্ন দোকানে ঘুরছি। বীজ নেই বলে ব্যবসায়ীরা জানালেও গোপন আঁতাতে দ্বিগুণ দামে ওই ব্যবসায়ীদের কাছেই বীজ পাওয়া যাচ্ছে। তিনি বলেন, এলাকার অনেকে এভাবে বীজ সংগ্রহ করেছেন। অধিক দামের কারণে আমি সংগ্রহ করতে পারিনি। এদিকে বীজতলা তৈরির সময় পার হচ্ছে।

একই গ্রামের কৃষক সন্তোষ কুমার রায় আট বিঘা এবং খয়রাত হোসেন পাঁচ বিঘা জমিতে বোরো আবাদের প্রস্ততি নিয়ে বীজ সংগ্রহে হোঁচট খেয়েছে। শহরের উকিলের মোড়ের বীজ ব্যবসায়ী শাহ ট্রেডার্সের মালিক মামুনুর রশিদ বলেন, আমি খুচরা ব্যবসায়ী, ডিলারের কাছ থেকে কিনে এনে বীজ বিক্রি করি। এবারে ব্রি ধান ২৯সহ হাইব্রীড জাতের চাহিদা বেশি, এ কারণে বাজারে ওই বীজের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। নির্ধারিত মূল্যের বেশি দামে কেনার কারণে দাম বেশি পড়ছে। সালমা বীজ ভা-ারের মালিক আব্দুস সালাম বলেন, গত বছর ব্রি ধান ২৮ জাতে নেক ব্লাস্ট রোগ দেখা দেয়ায় কৃষকরা অন্য জাতের দিকে ঝুঁকে পড়েছেন। কৃষকের চাহিদার তুলনায় এসব জাতের সরবরাহ কম। জেলার বিএডিসি বীজ বিপণন কর্পোরেশন বিক্রয় কেন্দ্রের উপসহকারী পরিচালক আফসানা বেগম জানান, এবারে ব্রি ধান ২৮ বীজ সরবরাহ পাওয়া গেছে সাড়ে ১২ মেট্রিকটন, ব্রি ধান ২৯ বীজ পাঁচ মেট্রিক টন, সুপার হাইব্রীড এসএল ৮ এইচ ৩৪০ কেজি। ১০ দিন আগে ব্রি ধান ২৯ এবং সুপার হাইব্রীড এসএল ৮ এইচ শেষ হয়েছে। বর্তমানে ব্রি ধান ২৮ মজুদ রয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মহসীন রেজা বলেন, জেলায় এবারে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮৪ হাজার ২৭৯ হেক্টর জমিতে। ওই পরিমাণ জমি আবাদে বীজের চাহিদা এক হাজার ৬৯৮ মেট্রিকটন। এ ব্যাপারে বিএডিসি বীজ বিপণন কর্পোরেশনের সিনিয়র সহকারী পরিচালক আকতারুন নাহারের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলা হলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন জেলায় কৃষক এবং ডিলার পর্যায়ে এবারে বিএডিসি ২৪৩ মেট্রিকটন বীজ সরবরাহ করেছে। আমি বাজার মনিটরিং করেছি, দাম বেশির বিষয়টি নজরে এসেছে।

শীর্ষ সংবাদ:
ইউক্রেন বিষযে পশ্চিমা নেতাদের সঙ্গে আলোচনা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর         প্রথমবারের মত দক্ষিণ কোরিয়ায় দৈনিক সংক্রমণ ৮ হাজার ছাড়িয়েছে         ভারতে গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ৭ মেডিকেল শিক্ষার্থী নিহত         ওমিক্রনে শিশুদের ঝুঁকি বাড়ছে         ‘জাতিসংঘে চিঠি শান্তিরক্ষা মিশনে প্রভাব ফেলবে না’         রাজশাহীতে করোনায় ৩ জনের মৃত্যু, শনাক্তের হার ৫৫.৭৮%         ক্যামেরুনের স্টেডিয়ামে খেলা চলাকালে হুড়োহুড়িতে ছয় দর্শকের মৃত্যু         এবার র‌্যাবকে নিষিদ্ধ করতে ইইউতে চিঠি         ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ ১৩তম         গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় মারা গেছেন ৫ হাজার ৯২২ জন         ইন্দোনেশিয়ায় জাতিগত সংঘাতে ১৯ জন নিহত         কমতে পারে রাতের তাপমাত্রা         আজ বাংলাদেশ-রাশিয়া সম্পর্কের ৫০ বছর         আগুন যেন অপ্রতিরোধ্য ॥ একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে         শাবি ভিসির পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত         উলন বিদ্যুত উপকেন্দ্র পুড়ে ছাই         ইসি গঠনের বিলে দুই পরিবর্তনের সুপারিশ         খাদ্য মজুদ ২০ লাখ টন ছাড়িয়েছে         কিউকমের ২০ গ্রাহক ফেরত পেলেন আটকে থাকা টাকা         মধ্য ফেব্রুয়ারির আগে করোনা নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে