৩ এপ্রিল ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

৫ বছরে পৌনে পাঁচ লাখ মেট্রিক টন ফসল নষ্ট করেছে ইঁদুর ॥ কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত : ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০

সংসদ রিপোর্টার ॥ গত পাঁচ বছরে ইঁদুরে ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৮০৫ মেট্রিক টন ফসল নষ্ট করেছে। প্রতি বছর ইঁদুরের আক্রমণে আমন ধানের ৫-৭ শতাংশ, গমের ৪-১২ শতাংশ, আলু ৫-৭ শতাংশ, আনারস ৬-৯ শতাংশ নষ্ট হয়। গড়ে মাঠে ফসলের ৫-৭ শতাংশ এবং গুদামে জাত শস্য ৩-৫ শতাংশ ক্ষতি করে থাকে এই ইঁদুর। এর মধ্যে ২০১৮ সালে ইঁদুরের আক্রমণে প্রায় এক লাখ মেট্রিক টন ফসলের ক্ষতি হয়।

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে রবিবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে টেবিলে উত্থাপিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য হাবিবা রহমান খানের প্রশ্নের লিখিত জবাবে এ তথ্য জানান কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক।

সরকারী দলের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরীর প্রশ্নের লিখিত জবাবে কৃষিমন্ত্রী জানান, রেজিস্ট্রেশনবিহীন অবৈধ ও নিম্নমানের কীটনাশক বিক্রয় বন্ধের লক্ষে বর্তমান সরকার বালাইনাশক আইন ২০১৮ প্রণয়ন করেছে। নতুন বালাইনাশক বিধিমালা প্রণয়নের কাজ চলছে। মাঠপর্যায়ে প্রত্যেক উপজেলায় বালাইনাশক ডিলারের দোকান, গুদাম পরিদর্শন করার জন্য বালাইনাশক পরিদর্শক রয়েছে। নিম্নমানের বালাইনাশক পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করার সুযোগ রয়েছে। এছাড়া আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সদাতৎপর রয়েছে। কোথাও কোন ভেজাল, অননুমোদিত নিম্নমানের বালাইনাশক পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে।

সরকারী দলের সংসদ সদস্য মনজুর হোসেনের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৬ থেকে ৭ লাখ অর্কিড ফুলের স্টিকের চাহিদা রয়েছে। বছরে ৩ লাখ হতে সাড়ে ৩ লাখ অর্কিড ফুলের স্টিক উৎপাদিত হয় এবং প্রায় ৩ লাখ হতে সাড়ে ৩ লাখ অর্কিড ফুলের স্টিক আমদানি করতে হয়।

সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলমের প্রশ্নের লিখিত জবাবে মন্ত্রী জানান, পেঁয়াজ-রসুন ও আদা জাতীয় ফসল যেহেতু বাংলাদেশে উৎপাদনযোগ্য, সেহেতু উৎপাদনকারী কৃষকদের ভর্তুকি ও প্রণোদনা প্রদানের মাধ্যমে এর উৎপাদন বৃদ্ধির কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বাংলাদেশে পেঁয়াজের বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৩৩ লাখ মেট্রিক টন। গত বছর পেঁয়াজের উৎপাদন হয়েছে ২৩ লাখ ৩০ হাজার লাখ মেট্রিক টন। অন্যদিকে রসুনের চাহিদা প্রায় ৬ লাখ ৫৫ হাজার মেট্রিক টন, গত বছর রসুনের উৎপাদন হয়েছে ৬ লাখ ১৩ হাজার মেট্রিক টন।

প্রকাশিত : ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০

১৭/০২/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: