মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২২.৮ °C
 
২৬ মে ২০১৭, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

জাতীয় সঙ্গীতই বাঙালির আত্মপরিচয় ॥ বি বি ফাউন্ডেশনের গোলটেবিলে বক্তারা

প্রকাশিত : ২৫ জুন ২০১৬, ০৫:৫২ পি. এম.
জাতীয় সঙ্গীতই বাঙালির আত্মপরিচয় ॥ বি বি ফাউন্ডেশনের গোলটেবিলে বক্তারা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাঙালির আত্মপরিচয় হলো জাতীয় সঙ্গীত। বাঙালির হাজার বছরের পরিচয় নিহিত রয়েছে ওই ১০ লাইনে। কিন্তু বর্তমানে ধর্মের নামে বাংলাদেশের সেই চিরায়ত চরিত্র পরিবর্তনের চেষ্টা চলছে। বিএনপি-জামায়াতের মতো দল ধর্মীয় উগ্রবাদিতাকে লালন-পালন করছে শুধু রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠা লাভের জন্য। তবে এদেশে জঙ্গিবাদ কখনো প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পায়নি, ভবিষ্যতেও পাবে না। মাদারীপুরে কলেজ শিক্ষকের ওপর হামলার ঘটনায় সাধারণ জনতার হাতে জঙ্গির আটক হওয়া এটাই প্রমাণ করে।

শনিবার রাজধানীর ধানমণ্ডির বিলিয়া অডিটোরিয়ামে ‘বাঙালি জাতীয়তাবোধের উত্থান রুখতে পারে উগ্র সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গবেষনা প্রতিষ্ঠান বি বি ফাউন্ডেশন এ বৈঠকের আয়োজন করে। ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বাহাদুর বেপারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা অপু উকিল, বাংলা একাডেমির উপপরিচালক ড. সাইমন জাকারিয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. সাইম রানা, বাংলাদেশ খ্রিস্টান এসোসিয়েশনের সাংগাঠনিক সম্পাদক উইলিয়াম প্রলয় সমাদ্দার, সাপ্তাহিক বর্তমান সংলাপের নির্বাহী সম্পাদক ড. আলাউদ্দীন আলন, আওয়ামী লীগ নেতা স্থপতি মাসুম ইকবাল, অনলাইন মিডিয়া এসোসিয়েশনের মহাসচিব জয়ন্ত আচার্য, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মাহাবুবুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবু সালেহ টুটুল, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা এ্যাডভোকেট রানু আখতার প্রমুখ। সঞ্চালনায় ছিলেন সাংবাদিক নজরুল ইশতিয়াক।

বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, বঙ্গবন্ধু পরিবারকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান বংশানুক্রমে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়া প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলেন। শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্যই ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার নেপথ্যে ছিলেন খালেদা-তারেক। এখন লন্ডনে বসে সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ ও হত্যার ষড়যন্ত্র করছে তারেক জিয়া। জঙ্গিবাদের প্রধান পৃষ্ঠপোষকও খালেদা-তারেক। এজন্য তাদের বিচার হওয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

বৈঠকে অন্য বক্তারা বাংলাদেশের ইতিহাসের নানা অধ্যায় বিশ্লেষণ করে বলেন জিয়াউর রহমান-খন্দকার মোশতাকরা জাতীয় চরিত্রকে কলুষিত করেছে। তারা একটি সাংস্কৃতিক বিপ্লবের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে বলেন, বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসের সব জানা অজানা অধ্যায়কে নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরতে হবে। জাতি বিনাশী সব উগ্র সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা রুখতে তারুণ্যের জাগরণ তথা জনগনের ব্যাপক অংশগ্রহন জরুরী হয়ে পড়েছে। আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পর থেকে আজ পর্যন্ত কোন অপশক্তির কাছে মাথা নত করেনি, করবেও না। জনগণকে সাথে নিয়েই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উগ্র সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে রুখে দেবেন।

প্রকাশিত : ২৫ জুন ২০১৬, ০৫:৫২ পি. এম.

২৫/০৬/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

জাতীয়



শীর্ষ সংবাদ: