ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০

বাংলার মেয়েদের শিরোপা পুনরুদ্ধারের চ্যালেঞ্জ

​​​​​​​জাহিদুল আলম জয়

প্রকাশিত: ২২:০০, ১৯ মার্চ ২০২৩

বাংলার মেয়েদের শিরোপা পুনরুদ্ধারের চ্যালেঞ্জ

ঢাকায় মিডিয়ার মুখোমুখি সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেয়া বাংলাদেশ, নেপাল, রাশিয়া, ভারত ও ভুটানের কোচ ও অধিনায়কেরা

পর্দা উঠছে পাঁচ জাতির সাফ অনূর্ধ্ব-১৭ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের। ঢাকার কমলাপুর স্টেডিয়ামে আজ বিকেল ৩টা ১৫ মিনিটে টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নেপাল সর্বোচ্চ দুইবারের শিরোপাধারী ভারত। শিরোপা পুনরুদ্ধারের মিশনে সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে স্বাগতিক বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম ম্যাচে লড়বে ভুটানি মেয়েদের বিরুদ্ধে। টুর্নামেন্টে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা অপর দেশ ইউরোপের রাশিয়া।

এই টুর্নামেন্টে রাশান মেয়েদের অভিষেক হতে যাচ্ছে। আগামী বুধবার বাংলার মেয়েদের বিরুদ্ধে নিজেদের মিশন শুরু করবে রাশিয়া। বাংলাদেশে পা দিয়েই দেশটি জানিয়ে দিয়েছে ট্রফি জয় করাই তাদের একমাত্র লক্ষ্য। রবিবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনে (বাফুফে) টুর্নামেন্ট পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে রাশিয়া দলের কোচ স্পষ্ট করেই জানিয়ে দিয়েছেন, ট্রফি নিয়ে ফিরতে চান তারা। অন্যদিকে স্বাগতিক বাংলার কোচ গোলাম রব্বানি ছোটনেরও অভিন্ন লক্ষ্য।  সাধারণত দক্ষিণ এশিয়ার সাত দেশকে নিয়েই সাফের (সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন) খেলা অনুষ্ঠিত হয়।

সম্প্রতি সাফের বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্টে অবশ্য পাওয়া যায় না সাফের সব দেশকে। যে কারণে এবার প্রথমবারের মতো এই আসরে খেলতে যাচ্ছে রাশিয়া। টেনিস সুন্দরী মারিয়া শারাপোভা, আনা কুর্নিকোভার দেশের মেয়েরা অতিথি হিসেবে খেলতে ইতোমধ্যে ঢাকায় অবস্থান করছেন। যে কারণে ভারত নেপালের পাশাপাশি বাংলার মেয়েদের নতুন চ্যালেঞ্জ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে রাশিয়ান মেয়েরা। ইউক্রেনের ওপর রাশিয়া হামলা করার কিছুদিন পরই দেশটির ফুটবলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা ইউরোপিয়ান ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা উয়েফা। এই নিষেধাজ্ঞা থাকার মধ্যেই রাশিয়ার অনূর্ধ্ব-১৭ দলের মেয়েরা সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে ঢাকায় অবস্থান করছে। সত্তরের দশকে বাংলাদেশে এসেছিল রাশিয়ার ফুটবল ক্লাব প্রিন্স ডায়নামো। এরপর দীর্ঘদিন আর বাংলাদেশে পা পড়েনি দেশটির ফুটবল দলের। অবশেষে শনিবার সাফের টুর্নামেন্ট খেলতে ঢাকা এসেছে রাশিয়ার অনূর্ধ্ব-১৭ নারী ফুটবল দল। সফরকারী চার দলের মধ্যে রাশিয়া সবার আগে বাংলাদেশে এসেছে। রাশিয়ার সিনিয়র ফুটবল দল উয়েফা থেকে নিষিদ্ধ। ইউরোপের প্রতিযোগিতায় তারা অংশগ্রহণ করতে পারছে না। সাফের এই টুর্নামেন্ট যদিও উয়েফার অর্থায়নেই হচ্ছে। তবে উয়েফা কর্তৃপক্ষই রাশিয়াকে সাফে খেলার জন্য পাঠিয়েছে।

ইউক্রেনে হামলার কারণে রাশিয়াকে অনেক মাশুল দিতে হচ্ছে। দেশটির ক্লাবগুলো খেলতে পারছে না উয়েফার আসরে। শুধু তাই নয়, সবশেষ কাতার বিশ্বকাপেও খেলা হয়নি রাশিয়ানদের। কারণে রাশিয়ান মেয়েরা আসলেই খেলতে পারবেন কি না, এটা নিয়ে অনেকের মনে প্রশ্ন ছিল। শেষ পর্যন্ত সব শঙ্কা কাটিয়ে টুর্নামেন্টে খেলতে যাচ্ছে তারা। শুধু খেলাই নয়, শিরোপা জিতে দেশে ফিরতে চায় রাশিয়া। রবিবার সংবাদ সম্মেলনে রাশিয়ার কোচ ইয়েলেনা মেদভেদ বলেন, ‘অবশ্যই আমরা চ্যাম্পিয়ন হতে চাই। প্রতিটা দলই চায় চ্যাম্পিয়ন হতে। শিরোপা জিতে ট্রফি রাশিয়া নিয়ে যেতে চাই। ঢাকায় খেলতে আসলেও বাংলাদেশ নিয়ে তেমন কিছুই বলতে পারেননি রাশিয়ান কোচ। তিন বলেন, ‘বাংলাদেশ দল সম্পর্কে কিছু বলা খুবই কঠিন আমাদের কাছে। কারণ এই দল সম্পর্কে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই। মেদভেদ আরও বলেন, ‘আমাদের দলের জন্য দারুণ একটি টুর্নামেন্ট হতে যাচ্ছে। এশিয়া অঞ্চলে আমরা কখনোই কোনো টুর্নামেন্টে অংশ নেইনি। এমন টুর্নামেন্টের জন্য আমরা অপেক্ষা করছিলাম। দুই মাস আগে এই টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণপত্র পেয়ে তুরস্কে অনুশীলন ক্যাম্প করেছে রাশিয়া। দুটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলেছে তারা।

পাঁচ দল হওয়ায় টুর্নামেন্টের ফরম্যাট থাকছে লিগ পদ্ধতিতেই। সবার সঙ্গে সবাই খেলার পর পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দল হবে চ্যাম্পিয়ন। এবার হবে বয়সভিত্তিক এই ফুটবলের পঞ্চম আসর। এর আগের আসরগুলো হয়েছে অনুর্ধ-১৫ বছর বয়সীদের নিয়ে। এবার দুই বছর বাড়িয়ে নামকরণ করা হয়েছে অনূর্ধ-১৭ চ্যাম্পিয়নশিপ। আগের চার আসরে বাংলার মেয়েরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছে একবার। সেটা ২০১৭ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত আসরে। আসরে সেরা সাফল্যের দল ভারত। তারা ২০১৮ ২০১৯ সালে টানা চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। একবারের চ্যাম্পিয়ন (২০২২) নেপাল আসরের বর্তমান শিরোপাধারী।

×