ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২ আশ্বিন ১৪২৯

নিচের হোটেলের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে অগ্নিকাণ্ড

চকে প্লাস্টিক কারখানায় আগুন ॥ ৬ জনের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:২৫, ১৬ আগস্ট ২০২২

চকে প্লাস্টিক কারখানায় আগুন ॥ ৬ জনের মৃত্যু

চকে প্লাস্টিক কারখানায় আগুন

রাজধানীর চকবাজারে একটি প্লাস্টিক কারখানায় ও গোডাউনে অগ্নিকাণ্ডে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছেমৃতদের সবাই অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হওয়া বরিশাল হোটেলের কর্মী ছিলেনছয়জনের মধ্যে পাঁচজনের শরীর এমনভাবে পুড়েছে যে, তাদের চেহারা দেখে চেনার উপায় নেইপাঁচ মরদেহের হাড় বেরিয়ে গেছেডিএনএ পরীক্ষা করা ছাড়া তাদের পরিচয় শনাক্ত করা সম্ভব নয়

তাই ডিএনএ পরীক্ষা করে পরিচয় শনাক্ত হওয়ার পর মরদেহগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরাসোমবার দুপুর ১২টার দিকে চকবাজারের কামালবাগে এ ঘটনা ঘটেপরে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিটের প্রায় ২ ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে

চতুর্থ তলা ভবনটির নিচতলার সামনের দিকে ছিল হোটেল (বরিশাল হোটেল)পেছনের দিকে ছিল প্লাস্টিকের গোডাউনদ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় ছিল পলিথিন ও জুতার সোলের গোডাউনআর ভবনের চতুর্থ তলায় ছিল প্লাস্টিকের খেলনা ও খেলনা তৈরির সরঞ্জামের গোডাউন এবং কারখানা

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, নিচতলার বরিশাল হোটেলথেকে অগ্নিকা-ের সূত্রপাতএরপর আগুন ওপরের ফ্লোরগুলোতে ছড়িয়ে পড়েমূলত আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার মতো সব ধরনের সরঞ্জামাদিতে ভরপুর ছিল ভবনটিতাই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদেরএ ঘটনা তদন্তে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ

উদ্ধার কাজে নিয়োজিত কয়েকজন ফায়ার সার্ভিস কর্মী জানান, ভবনের দ্বিতীয় তলায় ভেতর থেকে দরজা আটকানো একটি কক্ষে ছয়জনের মরদেহ পাওয়া যায়মরদেহগুলো আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছেকার লাশ কোনটি তা চেহারা দেখে চেনার উপায় নেই। 

ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম জানান, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পরে ভবনের একটি কক্ষে ছয়টি মরদেহ পাওয়া গেছেসবার মরদেহ স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছেউদ্ধার হওয়া মরদেহের মধ্যে চার জনের নাম জানা গেছেতারা হলো- বিল্লাল (৩৫), ওসমান (২৫), মোঃ শরীফ (১৬), স্বপন সরকার (১৯), মোতালেব (১৬) ও রুবেল (২৮)

মৃত বিল্লাল বরিশাল হোটেলের মেসিয়ার ছিলেনতার বাবার নাম আলম সরদারথাকতেন ভবনটির দ্বিতীয় তলায়গ্রামের বাড়ি বরিশালের মুলাদিতার স্ত্রী তানিয়া আক্তার গ্রামের বাড়িতে থাকেন

বিল্লালের শ্যালক আব্বাস আলী বলেন, তার দুলাভাই বিল্লাল বরিশাল হোটেলের মেসিয়ার ছিলেননাইট ডিউটি করে ভবনের দ্বিতীয় তলায় ঘুমাচ্ছিলেনআগুন লাগার পর থেকে তার আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল নাবিকেলের দিকে ফায়ার সার্ভিস তার লাশ উদ্ধার করে

মৃত ওসমান বরিশাল হোটেলের রুটির কারিগর ছিলেনতার বাবার নাম আবুল কালাম সরদারগ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরের গোসাইরহাটেওসমানের খালাত ভাই মোঃ রুবেল জানান, আমার খালাত ভাই যে ভবনটিতে আগুন লেগেছে সেটির নিচতলায় থাকা বরিশাল হোটেলে চাকরি করতরাতে কাজ করে সে ভবনটির দুই তলায় ঘুমিয়েছিলকিন্তু আগুন লাগার পরে তার আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না

একাধিকবার তার ফোনে কল করলে নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়আমরা আগুন লাগা ভবনটির দুই তলায় গিয়েছিলামসেখানে মানুষের হাড়ের মতো কিছু দেখতে পেয়েছিফায়ার সার্ভিস যে চারজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে, তার মধ্যে আমার খালাত ভাইয়ের লাশও রয়েছে

মোঃ শরীফের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার চান্দিনায়বাবার নাম মিজানতার মামা আরিফ এসে লাশ শনাক্ত করেনস্বপন সরকারের গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জের লাখাইবাবার নাম রাকেশ সরকারতার বড়ভাই সজল সরকার স্বপনের লাশ শনাক্ত করেনমৃত মোতালেবের গ্রামের বাড়ি বরিশালের হিজলায়বাবার নাম মোস্তফা

তার মামা নিজাম দপ্তরী লাশ শনাক্ত করেনমৃত রুবেলের লাশ শনাক্ত করেন বড়ভাই মোহাম্মদ আলী হিলালুরুবেলের গ্রামের বাড়ি মাদারীপুরবাবার নাম সাত্তার হিলালুএরা সবাই বরিশাল হোটেলের কর্মচারী ছিলেনথাকতেন ভবনটির দ্বিতীয় তলায়

ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা সদরের জোন-১ এর উপ-সহকারী পরিচালক মোঃ বজলুর রশিদ বলেন, মৃত ছয়জনের মধ্যে পাঁচজনের শরীর এমনভাবে পুড়েছে যে, তাদের চেহারা দেখে চেনার উপায় নেইআরেকজনের চেহারা দেখলে কিছুটা বুঝা যায়ছয়জনের মধ্যে অপর দুজনের পরিচয় এখনও (রাত ৮টা পর্যন্ত) নিশ্চিত হওয়া যায়নি

ধারণা করা হচ্ছে, অগ্নিকা-ের শুরুর দিকে তারা মারা গেছেনমরদেহগুলো দেখে প্রাথমিকভাবে আমাদের ধারণা তারা ঘুমন্ত অবস্থায় ছিলেনমরদেহগুলো মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছেএছাড়া ভবনের ভেতরে আমাদের সার্চ অভিযান চলছে

আগুনে পুড়ে মরদেহগুলো অঙ্গার হয়ে যাওয়ায় ডিএনএ পরীক্ষা করে পরিচয় শনাক্ত হওয়ার পর মরদেহগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির লালবাগ বিভাগের ডিসি মোঃ জাফর হোসেন

চুড়িহাট্টার কায়দায় আগুনের সূত্রপাত আগুনটির সূত্রপাত ভবনটির নিচতলার বরিশাল হোটেলের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে হয়েছে বলে দাবি করেছেন কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শীএছাড়া সেখানে কাজ করতে যাওয়া ফায়ার সার্ভিস কর্মী, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের অনেকেও বলছেন, ওই হোটেল থেকেই আগুনের সূত্রপাতপ্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, সিলিন্ডার বিস্ফোরণের পর আগুন শুরুতে বিদ্যুতের ট্রান্সফরমারে যায়সেখানে আরেক দফা বিস্ফোরণের পর প্লাস্টিকের খেলনা তৈরির কারখানায় আগুন লাগে২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে একই কায়দায় চুড়িহাট্টায় অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটে

কেমিক্যাল গোডাউন থেকে বিদ্যুতের ট্রান্সফরমারে, এরপর সেখান থেকে ভবনটির অন্যান্য ফ্লোরে থাকা গোডাউনে ছড়িয়ে পড়েসোমবার প্লাস্টিকের গোডাউনের অগ্নিকা-ের সূত্রপাতও একইভাবেভবনটির নিচতলা থেকে চতুর্থ তলা পর্যন্ত পলিথিন, প্লাস্টিকের খেলনা, জুতার সোলসহ বিভিন্ন খেলনা তৈরির সরঞ্জামে ভরপুর ছিল, যা আগুনকে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে সহায়ক হিসেবে কাজ করেছে

সরেজমিনে দেখা যায়, যেই ভবনটিতে অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটেছে, সেটি ঘিঞ্জি এলাকায়প্লাস্টিকের বিভিন্ন সরঞ্জাম থাকায় ভবনটি আগ থেকেই ঝুঁকিপূর্ণ ছিলভবনটির চারপাশে ইটের দেয়াল, ওপরে টিনশেডদেয়ালে সিমেন্টের প্রলেপ দেয়ার আগেই গড়ে তোলা হয় হোটেলসহ বিভিন্ন কারখানা ও গোডাউনওই ভবনে আবাসিক বসবাস না থাকলেও আশপাশের ভবনগুলো ছিল আবাসিক

আগুন আতঙ্কে পাশের ভবনের বাসিন্দারা রাস্তায় বেরিয়ে আসেনকেউ কেউ ছাদে গিয়ে আশ্রয় নেনঅল্প সময়ের মধ্যে আগুন ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করেআশপাশের ভবনের ছাদেও আগুনের তাপের কারণে টিকতে পারছিলেন না বাসিন্দারাপরে তারা নিরাপদ স্থানে চলে যানবাতাসের কারণে আগুন একেক বার একেক দিকে মোড় নেয়ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ভবনটির কাছে এগোতেই পারছিলেন নাতাই আগুন নিয়ন্ত্রণে বেগ পেতে হয় তাদের

এদিকে নিখোঁজদের স্বজনরা ভবনটির সামনে আসেন স্বজনদের খোঁজেতারা নাম ধরে ডাকতে থাকেন, খোঁজতে থাকেন স্বজনদেরকেউ কেউ আগুনের ভেতর দিয়েই ভবনে ঢোকার চেষ্টা করেনতবে ফায়ার সার্ভিস কর্মী, পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবীরা তাদের অন্যত্র সরিয়ে দেনতাদের সঙ্গে উসুক জনতার কারণে পুরো এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়

ভবনটিতে জুতার সোল, পলিথিনসহ প্লাস্টিকের বিভিন্ন সরঞ্জাম থাকায় এলাকাজুড়ে কালো ধোঁয়া উড়তে দেখা গেছেআশপাশের বেশির ভাগ ভবনগুলোও টিনশেডের হওয়ায় আগুনে সেসব সরঞ্জামাদি পুড়ে টিনের ওপরে পড়ছিল আর শব্দ হচ্ছিলজাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে পাশের ভবনের ছাদে টাঙ্গানো পতাকাগুলোর পত পত করে ওড়া বন্ধ হয়ে যায়কালো ধোঁয়ায় পতাকাগুলো লোহার মতো শক্ত হয়ে নিস্তেজ ও দ-ায়মান হয়ে যায়যেন পতাকাগুলোর স্বাধীনভাবে উড়ার স্বাধীনতা কেউ নিজ হাতে হরণ করল!

দুপুর আড়াইটার দিকে ব্রিফিংয়ে ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশনস এ্যান্ড মেইনটেন্যান্স) লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান জানান, আগুন লাগা কারখানার ভবনসহ আশপাশের সব ভবনই ঝুঁঁকিপূর্ণ ছিলআমরা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসে দেখি আশপাশের অনেক ভবনেই যত্রতত্র এ রকম বিভিন্ন ধরনের কারখানা গড়ে উঠেছে, যা খুবই ঝুঁকিপূর্ণএকদিকে ঘিঞ্জি এলাকা, অন্যদিকে এসব কারখানায় যখন-তখন যে কোন ঘটনা ঘটে যেতে পারে

পাশাপাশি অনেক ভবনে মানুষ বাসও করছেনতাদের জন্যই ঝুঁঁকি তৈরি হতে পারেতবে আগুন লাগা ভবনের কোন কেমিক্যাল পাওয়া যায়নিআমরা এখন প্লাস্টিকের খেলনা, জুতার সোল, পলিথিন থাকতে দেখেছিআগুনের সূত্রপাতের বিষয়ে জানতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি

ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে পুলিশের লালবাগ বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মোঃ জাফর হোসেন বলেন, ঘটনা প্রাথমিকভাবে দুর্ঘটনাই মনে হচ্ছেআমরা এটাকে নাশকতা মনে করছি নাআগুনের ঘটনায় যদি কোন পক্ষের গাফিলতি থাকে তা সঠিকভাবে তদন্ত করে বের করার জন্য আমরা প্রাথমিকভাবে একটি সাধারণ ডায়েরি করে রাখছিযদি কারও গাফিলতি থাকে তাহলে আমরা আইনগত কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করব

এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি লালবাগ বলেন, অবৈধ কেমিক্যাল গোডাউনের বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেছিপুরান ঢাকায় অবৈধ কারখানার বিরুদ্ধে এর আগেও অনেক অভিযান পরিচালনা করা হয়েছেসব সংস্থার সমন্বয় করে পুরান ঢাকাকে নিরাপদ করতে যা যা করার দরকার সে ধরনের উদ্যোগ আমরা গ্রহণ করব

তবে আগুনে ছয়জনের মৃত্যুর ঘটনার পরও রাত পর্যন্ত ভবনটির মালিকের কোন হদিস পাওয়া যায়নি