ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

নিউ ইয়র্কের একটি রাস্তার নাম এখন ‘বাংলাদেশ স্ট্রিট’

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭:০১, ২৭ মার্চ ২০২৩; আপডেট: ২১:১৬, ২৭ মার্চ ২০২৩

নিউ ইয়র্কের একটি রাস্তার নাম এখন ‘বাংলাদেশ স্ট্রিট’

বাংলাদেশ স্ট্রিট

বাঙালির স্বপ্ন পূরণ। বাংলাদেশিদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ করলো নিউইয়র্ক সিটি কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের দিনই কুইনসের বাঙালিপাড়া হিসেবে খ্যাত জ্যাকসন হাইটসের ৭৩ নম্বর সড়কটিতে বাংলাদেশ স্ট্রিট নামের নতুন নামফলক উন্মাচন করা হয়। 

স্থানীয় সময় রবিবার নামফলক উন্মোচনের সময় সেখানে উপস্থিত কয়েকশ’ বাংলাদেশি বাংলাদেশ বাংলাদেশ বলে স্লোগান দেয়।  

কুইন্স বরোর ২৫ ডিস্ট্রিক্ট কাউন্সিল মেম্বার শেখর কৃষ্ণান প্রধান অতিথি হিসেবে নামফলকটি উন্মোচন করেন। এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশিরা বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে অনেক সংগ্রাম করেছে তা সবাই জানে। যারা নিজেদের ভাষার জন্য সংগ্রাম করেছে, জীবন দিয়েছে। নিজেদের ইতিহাস, ঐতিহ্য ধারণ করে বাংলাদেশিরা যুক্তরাষ্ট্রে এক বিশাল কমিউনিটি গড়ে তুলেছে। নিউইয়র্কে বাংলাদেশিরা বিভিন্ন সেক্টরের উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখে চলেছে।  

কংগ্রেসওমেন গ্রেস মেং বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেটে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রেখে বাংলাদেশের নাম উজ্বল করছে। তারা রেস্তোরা, হোম কেয়ারসহ রাষ্ট্রীয় উচ্চ পদে কাজ করছে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সিটি কাউন্সিলর লিন্ডা লি, ক্যাটলিনা ক্রুস, সিনেটর মাইকেল জিনারিজ, কংগ্রেস সদস্য স্টিভেন রেগা ও জেসিকা গুঞ্জলেস রোজাস।

২০২১ সালের সিটি কাউন্সিল নির্বাচনের সময় জ্যাকসন হাইটসের ৭৩ স্ট্রিটকে বাংলাদেশ স্ট্রিট করার প্রস্তাব আসে। জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশি বিজনেস অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ফাহাদ সোলায়মান এক অনুষ্ঠানে প্রথম এ দাবি তোলেন। ওই সময় জ্যাকসন হাইটসের কাউন্সিলম্যান পদপ্রার্থী শেখর কৃষ্ণান প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, নির্বাচিত হলে তিনি বাংলাদেশিদের এই দাবি তিনি পূরণ করবেন। 

জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশি বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন-জেবিবিএ এর সাধারণ সম্পাদক ফাহাদ সোলায়মান দৈনিক জনকণ্ঠকে বলেন, জ্যাকসন হাইটস এলাকাটি মূলত বাংলাদেশিদের নিজের এলাকা মনে হয়। এখানকার বেশিরভাগ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক বাংলাদেশি। 

দীর্ঘদিন ধরে ৭৩ নম্বর সড়কটি বাংলাদেশ স্ট্রিট নামকরণ করার দাবি ছিল বাংলাদেশিদের। অবশেষে আমাদের সেই স্বপ্ন পূরণ হলো। স্বাধীনতা দিবসের দিনই আমরা দেশের নামে নিউইর্কের একটি সড়কের নাম পেলাম এটা অনেক আনন্দের। নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আহবান জানান নিউইয়র্কের এই ব্যবসায়ী নেতা।

এমএস

×