শুক্রবার ১৩ কার্তিক ১৪২৮, ২৯ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

প্রস্রাবে সংক্রমণ হলে করণীয়

প্রস্রাবে সংক্রমণ হলে করণীয়

অনলাইন ডেস্ক ॥ কিডনি বা প্রস্রাবসংক্রান্ত যেসব নৈমিত্তিক সমস্যা আমাদের ভোগান্তিতে ফেলে, তার মধ্যে ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন বা সোজা ভাষায় ইউরিন ইনফেকশন উল্লেখযোগ্য।

হিসাব করে দেখা যায়, রোগীদের মধ্যে আনুমানিক শতকরা তিনজন প্রস্রাবের ইনফেকশনে ভুগে থাকে। একটু সচেতন হলে এ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

প্রস্রাব যে পথে তৈরি ও নিঃসরণ হয়, তার ইনফেকশন বা প্রদাহই হলো প্রস্রাবে সংক্রমণ বা ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন। সে হিসেবে এ রোগ মানে কিডনি, ইউরেটার, মূত্রথলি ও মূত্রনালির ইনফেকশন বোঝায়।

যদিও মানুষ বেশি আক্রান্ত হয় মূত্রথলি ও মূত্রনালির ইনফেকশনে, যাদের যথাক্রমে সিস্টাইটিস ও ইউরেথ্রাইটিস বলে। জটিল অবস্থায় ইনফেকশন কিডনি পর্যন্ত ছড়িয়ে যেতে পারে, যাকে পাইলোনেফ্রাইটিস বলে।

কাদের বেশি হয়:

ইউরিন ইনফেকশন সাধারণত মূত্রনালি থেকে ওপরে কিডনি পর্যন্ত ছড়ায়। নারীদের মূত্রনালি লম্বায় অপেক্ষাকৃত ছোট এবং অবস্থান পায়ুপথের কাছাকাছি হওয়ায় পুরুষদের তুলনায় নারীদের আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে।

কারা বেশি ঝুঁকিতে থাকেন:

ডায়াবেটিস রোগী

< মূত্রপথের কোথাও সরু অথবা বন্ধ হয়ে যাওয়া বা জন্মগত গঠনমূলক সমস্যা যাঁদের আছে

< যাঁরা অতিরিক্ত ব্যথার ওষুধ খান

< যেসব নারীর মাসিক বন্ধ হয়ে গেছে

< যাঁদের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কম

< যাঁদের ইউরিনারি ক্যাথেটার ব্যবহার করতে হয়

< কিছু বিশেষ জন্মবিরতিকরণ পদ্ধতি, যেমন ডায়াফ্রাম, জেল গ্রহণ করেছেন যাঁরা।

লক্ষণ :

< প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া করা

< বারবার প্রস্রাবের চাপ আসা, কিন্তু প্রস্রাব করার পরও মূত্রথলি ভরা থাকার অনুভূতি হওয়া

< ঘোলাটে প্রস্রাব হওয়া, যা রেখে দিলে তলানি পড়ে

< দুর্গন্ধযুক্ত প্রস্রাব হওয়া

< গাঢ় রঙের (লাল, কালো) প্রস্রাব হওয়া

< তলপেটে ব্যথা হওয়া

< বমিভাব বা বমি হওয়া।

প্রতিরোধব্যবস্থা

< প্রতিদিন কমপক্ষে ২-৩ লিটার পানি পান করা, যাতে দৈনিক দুই-তিনবার ঈষৎ হলুদ প্রস্রাব হয়

< ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা।

< প্রস্রাব আটকে না রাখা

< সহবাসের আগে ও পরে প্রস্রাব করা

< প্রয়োজনবোধে জন্মবিরতিকরণ পদ্ধতি পরিবর্তন করা

< সম্ভব হলে ক্র্যানবেরি জুস পান করা

পরীক্ষা

< প্রস্রাবের রুটিন পরীক্ষা

< প্রস্রাব কালচার টেস্ট

< আলট্রাসনোগ্রাফি

< প্রয়োজনবোধে সিটি স্ক্যান ও এমআরআই

চিকিৎসা

সাধারণত রোগবাহী জীবাণু চিহ্নিত করে তার বিপরীতে কর্মক্ষম অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল দিয়ে চিকিৎসা করা হয়। অপর্যাপ্ত ও ভুল চিকিৎসা উল্টো বিপদ ডেকে আনতে পারে।

চিকিৎসা না করা বা অপচিকিৎসার জটিলতা

< বারবার আক্রান্ত হওয়া

< আরও জটিল জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হওয়া

< মূত্রনালি সরু অথবা বন্ধ হয়ে যাওয়া

< গর্ভবতী নারীদের ক্ষেত্রে কম ওজনের এমনকি মৃত বাচ্চা প্রসব হওয়া

< কিডনি নষ্ট হওয়া

< রক্তে জীবাণু ছড়িয়ে জীবননাশী ইনফেকশন

লেখক: রেসিডেন্ট, নেফ্রোলজি বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
২৪৫৪০৪৪৯৬
আক্রান্ত
১৫৬৮৫৬৩
সুস্থ
২২২৪৫৬৫৬৯
সুস্থ
১৫৩২৪৬৮
শীর্ষ সংবাদ:
যোগাযোগে বিপ্লব ॥ উড়াল ও পাতাল রেল আসছে         ই-কমার্সের সঙ্গে যুক্তদের নিবন্ধন করতে হবে         চট্টগ্রামে টিকা নিলেন সাড়ে ৩ লাখ মানুষ         টিকে থাকার লড়াই আজ বাংলাদেশ উইন্ডিজের         ওসিসহ ৫ জনকে বরখাস্তের নির্দেশ হাইকোর্টের         ‘না করলে সময়ক্ষেপণ স্ট্রোক হলেও বাঁচবে জীবন’         চট্টগ্রামে ফ্লাইওভারগুলোর অবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ         কুমিল্লাকাণ্ডে ইন্ধনদাতা ১০ প্রভাবশালী যেকোন সময় গ্রেফতার         নতুন ধরনের ইয়াবা ভয়ঙ্কর         সেগুনবাগিচার হোটেল থেকে ঢাবি শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার         পাটুরিয়ায় ডুবে যাওয়া ফেরি উদ্ধারে ধীরগতি         নদীভাঙ্গনে ভিটেহারারা খুঁজে পেয়েছেন নতুন ঠিকানা         সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিহত করতে হবে         ক্লাউড সেবার বিস্তারে হুয়াওয়ের নতুন সহযোগী যারা         আসন্ন শীতে করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে : প্রধানমন্ত্রী         ডেঙ্গু : ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১৭৩         ‘দুই মাসের মধ্যে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিবন্ধন নিতে হবে’         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৬, শনাক্ত ২৯৪         সাম্প্রদায়িক হামলা ॥ বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের