রবিবার ২ কার্তিক ১৪২৮, ১৭ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সুদিনের অপেক্ষায় ফুল ব্যবসায়ীরা

সুদিনের অপেক্ষায় ফুল ব্যবসায়ীরা

অনলাইন ডেস্ক ॥ রাজধানীর শাহবাগের ফুলের দোকানগুলোতে বছরজুড়েই পাওয়া যায় থরে থরে সাজানো বাহারি জাতের ফুল। সকাল-সন্ধ্যা এখানে ফুল বিক্রি চলে হরদম। সভা-সমাবেশ থেকে শুরু করে বিয়ে, জন্মদিন, ধর্মীয় উৎসবসহ ফুলের প্রয়োজন হলেই নগরবাসী ছুটে এ হাটে।

তবে করোনা মহামারী চিরচেনা চিত্রটা বদলে দিয়েছে। গত প্রায় দেড় বছর ধরে শাহবাগের ফুলের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের জটলা চোখে পড়ে না। সামাজিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানাদিতে সরকারী বিধিনিধিষ থাকায় শাহবাগের ফুলের ব্যবসায় ভাটা পড়েছে। এতে চোখে অন্ধকার দেখছেন সেখানকার ফুল ব্যবসায়ীরা।

এরইমধ্যে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা শিথিল হওয়ায় জনজীবন স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। শপিংমল-দোকানপাট খুলেছে, সামাজিক অনুষ্ঠানে বাধা কেটেছে। আর এতে শাহবাগের ফুল বাজারের দৃশ্যপটও ধীরে ধীরে পুরোনো রূপে ফিরছে। দোকানিদের ব্যস্ততা বাড়ছে মালা গাঁথা ও স্তবক সাজানোয়।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ফুল বেচাবিক্রি কিছুটা বাড়লেও আগের তুলনায় এখনও কম। বিক্রি বাড়লেও মহামারীর স্থবিরতা কাটাতে আরও সময় লাগবে। আপাতত তারা সে অপেক্ষাতেই দোকান খুলে বসে আছেন।

দেখা গছে, আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) ভোর থেকেই ব্যবসায়ীরা ফুল সাজানো ও বিক্রিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তবে সকাল পেরুলেও অধিকাংশ ফুলই অবিক্রিত রয়ে গেছে। দোকানিরা জানিয়েছেন, এখনও ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠানগুলো পুরোপুরি উন্মুক্ত হয়নি। সে কারণে ফুল বিক্রিতে প্রাণ ফেরেনি। এছাড়া রাজনৈতিক কর্মসূচিও আগের চেয়ে অনেক কম। বিয়ে-জন্মদিন-গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানও হচ্ছে সীমিতভাবে। এসব কারণে ফুলের চাহিদা অনেক কমে গেছে।

ফুল ব্যবসায়ীরা জানান, এখন ব্যবসার যে অবস্থা, তাতে সপ্তাহের অন্তত পাঁচদিন তাদের বসেই কাটাতে হয়। বেচাবিক্রি খুবই কম। বৃহস্পতি ও শুক্রবার মোটামুটি ভালো চলে ব্যবসা হয়। এ দুদিন চাহিদা থাকে ফুলের। কিন্তু সপ্তাহের মাঝামাঝি বৃষ্টি হলে গ্রাম থেকে ফুলের আমদানিও কমে যায়। তখন চাহিদা মতো যোগান দেয়া সম্ভব হয় না। ধর্মীয় ও রাজনৈতিক অনুষ্ঠানাদি উন্মুক্ত হলে ফুল ব্যবসায় আবারও সুদিন ফিরবে।

শাহবাগের ফুল ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন বলেন, করোনার আগে আমার দোকানে প্রতিদিন ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকার ফুল বিক্রি হতো। এখন সারা দিনে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকাই বিক্রি হয় না। তাছাড়া ফুল পচনশীল পণ্য হওয়ায় সময় মতো বিক্রি না করতে পারলে লোকসান গুনতে হয়। মহামারীকালে অনেক দোকানি ব্যবসা গুটিয়ে নিয়েছে। এখন ফুলের দামও কম, প্রায় অর্ধেক দামে বিক্রি হচ্ছে। অনুষ্ঠানাদি না থাকায় এমনটা হয়েছে।

আরেক ব্যবসায়ী জানান, এখনও আগের অবস্থায় ফিরে যেতে পারিনি। সব ধরনের অনুষ্ঠান উন্মুক্ত না হওয়ায় ফুল ব্যবসায় প্রাণ ফেরেনি। অনুষ্ঠানাদি উন্মুক্ত হলে ব্যবসাও জমে উঠবে। তখন হয়তো ক্ষতিগ্রস্ত ফুল চাষি ও ব্যবসায়ীরা ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবেন।

সরকারের কাছে সহায়তা চেয়ে ফুল ব্যবসায়ীরা বলছেন, করোনায় ফুল চাষি ও ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দেশে ফুলের উৎপাদন এবং সরবরাহ ঠিক রাখতে এ খাতে স্বল্প সুদে ঋণ দেয়া জরুরি।

করোনাভাইরাস আপডেট
বিশ্বব্যাপী
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
২৪১২৫৩৭৪৬
আক্রান্ত
১৫৬৫৪৮৮
সুস্থ
২১৮৪৮৭৭৮৯
সুস্থ
১৫২৭৮৬২
শীর্ষ সংবাদ:
রোহিঙ্গা ও আটকেপড়া পাকিস্তানিরা দেশের বোঝা : প্রধানমন্ত্রী         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ১৬         পিপিপিতে হচ্ছে না ঢাকা-চট্টগ্রাম এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ         ৯০ হাজার টন সার কিনবে সরকার         আগামী ২০ অক্টোবর ঈদে মিলাদুন্নবীর ছুটি         টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ: টস জিতে ফিল্ডিংয়ে স্বাগতিকরা         এবার হচ্ছে না লালন মেলা         দাঙ্গা বাঁধানোই ছিল কুমিল্লার ঘটনার উদ্দেশ্য ॥ স্থানীয় সরকারমন্ত্রী         ‘কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের শিগগিরই গ্রেফতার করা হবে’         দেশের বাতাসে ষড়যন্ত্র, ছাত্রলীগকে সতর্ক থাকার আহ্বান         মধুর ক্যান্টিনে মুখোমুখি ছাত্রলীগ-ছাত্রদল, ক্যাম্পাসে উত্তেজনা         জি বাংলার পর সম্প্রচারে স্টার জলসা         রাশিয়ার ইয়েকাতেরিনবুর্গে ভেজাল মদের বিষক্রিয়ায় ১৮ জনের মৃত্যু         অতিবৃষ্টি ও বন্যায় কেরালায় নিহত ১৮         কাকরাইলে সংঘর্ষের ঘটনায় দুই মামলা ॥ আসামি ৪ হাজার         সোমবার রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না         খিলক্ষেতে আরেক চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার         আইয়ুব বাচ্চু স্মরণে ‘আসা যাওয়া’ প্রকাশ পাচ্ছে আগামীকাল         প্রায় দুই বছর পর খুললো রাবির হল         বরিশালে তিনটি মন্দিরে ভাঙচুরের ঘটনায় মামলা