বুধবার ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২০ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ফসলের জমিতে ইটভাঁটি

  • কমছে আবাদি জমি ॥ হুমকিতে পরিবেশ

নিজস্ব সংবাদদাতা, কেশবপুর, ১৯ ফেব্রুয়ারি ॥ সরকারি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে কেশবপুরে অবাধে নির্মাণ করা হচ্ছে অবৈধ ইটভাঁটি। ফসলের মাঠ নষ্ট করে বিত্তবান ও ক্ষমতাশীন লোকেরা অনুমতি ছাড়াই ইটভাঁটি নির্মাণ করে চলেছে। নিচু জমিতে মাছের ঘের আর উঁচু জমিতে ইটভাঁটি দখল হয়ে যাচ্ছে কৃষি জমির পরিমাণ। কেশবপুরের ৯০ ভাগ কৃষিজীবী মানুষ দিন দিন তাদের ফসলের জমি হারিয়ে দিশাহারা হয়ে পড়ছেন। ফসলের মাঠ, জনবসতি এলাকা, শহর-বাজার, স্কুল-কলেজের পাশেসহ যত্রতত্র অবৈধ ইটভাঁটি স্থাপন করায় কেশবপুরের পরিবেশ হুমকির মুখে পড়েছে। অথচ ইট প্রস্তুত ও ভাঁটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০১৩ অনুযায়ী পৌরসভা এলাকায়, আবাসিক এলাকায় ও কৃষি জমিতে ইটভাঁটি স্থাপন করা যাবে না। পরিবেশ অধিদফতরের অনুমতি ছাড়াই শুধু ট্রেড লাইন্সেস এবং উপজেলা চেয়ারম্যানের অনাপত্তিপত্র নিয়ে কেশবপুরে ফসলি জমিতে নতুন করে তিনটি অবৈধ ইটভাঁটি নির্মাণের কাজ চলছে। এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসী ইটভাঁটি বন্ধের দাবিতে পরিবেশ অধিদফতর, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন দফতরে লিখিত আবেদন করেছেন।

শনিবার সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, কেশবপুর-সাতবাড়িয়া সড়কের পাশে সাতবাড়িয়া বাজারসংলগ্ন বিশাল ফসলের মাঠের মাঝখানে মেসার্স সুপার ব্রিকস নামে একটি ইটভাঁটি নির্মাণ করা হচ্ছে। ফসলে জমির উপর নির্মিত ইটভাঁটির চিমনির কাজ প্রায় শেষ। এর চারপাশে ইরি ধান, মসুরি, সূর্যমুখী, বেগুন ক্ষেত, পানের বরজ, ফলদ গাছে পরিপূর্ণ। এর পশ্চিমে ৩শ’ গজ দূরে সাতবাড়িয়া বালিকা বিদ্যালয়। তিন পাশে জনবসতি। একশ’ গজের মধ্যে বসবাসকারী রেজাউল ইসলামের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম জানান, এখানে বসবাস করা যাবে না ধোঁয়া ও ইটের গুড়োর কারণে। বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী রিতু, পূজা, তাওসিয়াসহ অনেকেই জানায়, ভাঁটির কালো ধোঁয়ায় শ্বাস-প্রশ্বাসে কষ্ট হওয়াসহ পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হবে। ট্রাক ও ট্রলির শব্দে শব্দ দূষণ হবে।

কেশবপুর-চিংড়া সড়কের কাস্তা-বারুইহাটি চৌরাস্তা মোড়ে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় ও ফসলি জমিতে রোমান ব্রিকস নামে আর একটি ইটভাঁটি নির্মাণের কাজ চলছে। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার লোক চলাচল করে। ইটভাঁটির চারপাশে ফসলি জমি ছাড়াও একটি কওমি মাদ্রাসা, একটি সারদীয় পূজা মন্দির, একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি কমিউনিটি ক্লিনিক, একটি বাজার ও একটি মসজিদ রয়েছে। সরেজমিনে গেলে এলাকাবাসী জানান, এখানে ইটভাঁটি চালু হলে ফসল আবাদে ব্যাহত হবে, পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হবে। জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়বে। এলাকাবাসী ইটভাঁটি বন্ধ করতে প্রায় একশ’ জন স্বাক্ষরিত লিখিত আবেদন করেছেন জেলা প্রশাসক, পরিবেশ অধিদফতর, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন দফতরে। রোমান ব্রিকসের মালিক সাতবাড়িয়া গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, জেলা প্রশাসকের কাছে এখনও আবেদন করেনি। ইউনিয়ন পরিষদের ট্রেড লাইন্সেস ও উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুমতিতে ইটভাঁটি করেছি। এছাড়া কেশবপুর পৌরসভার ভোগতি এলাকায় একই কায়দায় ফসলি জমিতে অপর একটি ইটভাঁটি নির্মাণের কাজ চলছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ রায়হান কবির জানান, ইটভাঁটি নির্মাণের ক্ষেত্রে উপজেলা চেয়ারম্যানের অথবা উপজেলা পরিষদের অনাপত্তিপত্র দেয়ার কোন নিয়ম নেই। একমাত্র জেলা প্রশাসকের অনুমতির পরই কেবল ইটভাঁটি নির্মাণ করা যাবে।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা : ২৪ ঘণ্টায় আরও ৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৬৮         ভারী বর্ষণের পূর্বাভাস         গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার ‘ক’ ইউনিটের ফল প্রকাশ         করোনা ভাইরাসে টিকা নিবন্ধনে বয়সসীমা সর্বনিম্ন ১৮ বছর নির্ধারণ         এসকে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে রায় বৃহস্পতিবার         জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে পান্থকুঞ্জ : মেয়র তাপস         গুজব : বদরুন্নেসা কলেজের শিক্ষিকা আটক         ডেঙ্গু : গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১১২ জন হাসপাতালে         ‘ইসলাম কখনো অন্য ধর্মের ওপর আঘাত সমর্থন করে না’         অর্থনীতির স্বাভাবিক অবস্থা ফেরাতে অনেকদূর এগিয়েছে বাংলাদেশ : অর্থমন্ত্রী         ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ নিভে গেল আজমীরের চোখের আলো         সপ্তাহে ৫ দিন চলবে ঢাকা-দিল্লি ফ্লাইট         ২৪ অক্টোবর পায়রা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী         করোনা ভাইরাস ॥ দেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ শিশু ঝুঁকিতে         রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে আটক ৬১         ভারতের উত্তরাখাণ্ডে দুর্যোগ ॥ নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬         সিরিয়ায় বোমা হামলায় ১৩ সেনা সদস্য নিহত         বদলে যাচ্ছে ফেসবুকের নাম !         আমিরাতে গেলেন আরও ২৪৭৭ প্রবাসী