বুধবার ৭ আশ্বিন ১৪২৭, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বলিউডে অভিষেক মীনাক্ষীর

নিম্নবিত্ত পরিবারের আর্থিক অস্বচ্ছলতার যাঁতাকলে পিষ্ট নিরূপায় এক তরুণী। জীবনের তাগিদে যে কিনা ঘটনাচক্রে নিষিদ্ধ জীবনে প্রবেশ করে। পেটের দায়ে সাদাসিধে ঘরের এই তরুণী বাধ্য হয় পতিতাবৃত্তিতে নামতে এবং শেষ পর্যন্ত অবশ্য এই নিষিদ্ধ জীবনের অন্ধকারই তাকে জীবনযুদ্ধে জয়ী হতে শেখায়। সবার নিকট নিশিকন্যা হিসেবে পরিচিত এই তরুণী দেহ ব্যবসার ক্ষেত্রে সাধারণ কিছু নিয়ম মেনে চলত, যা তাকে ওই নিষিদ্ধজীবনেও এক অনন্য মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করে। পতিতারূপী এই তরুণী খদ্দেরদের কাছে মাত্র দুই শ’ টাকার বিনিময়ে দেহ ব্যবসা করে; একটি টাকা কমও নয় আবার বেশিও নয়। সেই তরুণীটিই একদিন জড়িয়ে পড়ে সক্রিয় রাজনীতিতে। কিন্তু তার অবশ্য আদৌ রাজনৈতিক হওয়ার কোন ইচ্ছাই ছিল না। নিষিদ্ধপল্লীর লক্ষণরেখা মুছে বাইরের জগতে বেরিয়ে এসে পড়াশোনা না জানা দৃঢ়চেতা এই তরুণী মাত্র ৪ দিন সময় নিয়ে হয়ে উঠেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।

এতক্ষণে অবশ্যই সকলের জানার আগ্রহ বেড়ে নাভিশ্বাস ওঠার উপক্রম হয়েছে যে, কে এই তরুণী এবং কেনই বা এমন মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার অবাস্তব গল্প এভাবে বলছি? এটি আসলে বাস্তবে নয়। বলিউডের নতুন সিনেমা ‘পি সে পিএম তাক’ ঘটনা। আসছে ২৯ মে সাড়া ভারতের বড় পর্দাজুড়ে দক্ষিণী চলচ্চিত্রকার কুন্দন শাহ তার ফিল্ম ‘পি সে পিএম তাক’ নিয়ে আবির্ভূত হচ্ছে বলিউডে নতুন মুখ মীনাক্ষী দীক্ষিতকে সঙ্গে নিয়ে। তামিল, মালায়ালম ও তেলেগু ফিল্ম জগতে খুবই পরিচিত মুখ মীনাক্ষী দীক্ষিত-একজন মডেল, কথক ও ওয়েস্টার্ন নৃত্যশিল্পী এবং অভিনেত্রী হিসেবে ও সমানভাবে সমাদৃত। গত চার-পাঁচ বছরে বেশ কয়েকটি দক্ষিণী ছবিতে তাকে দেখা গেলেও, বলিউডে প্রথম মুখ দেখাতে চলেছেন। মাত্র ৪ কোটি রুপী বাজেটের এই ছবিতে আর অভিনয় করেছেন ভারত যাদব, ইয়াস্পাল শর্মা, ইন্দ্রজিত সনি, অঞ্জন শ্রীবাস্তব, ভিদিশ, চিন্ময় যাদব, আকাশ পা-েসহ আরও অনেক শক্তিমান অভিনেতা-অভিনেত্রী।

তবে একথা ঠিক যে, চলচ্চিত্র নির্মাতা কুন্দন শাহের দুই দশকের অপেক্ষার অবসান ঘটেছে অর্থাৎ শেষ পর্যন্ত তিনি তার দৃষ্টিতে মাধুরী দীক্ষিতের একজন বিকল্পের সন্ধান পেয়েছেন। ২৭ বছর আগে ফিরোজ খানের ‘দয়াবান’ চলচ্চিত্রে মাধুরী দীক্ষিত ‘নীলু’ নামে এক সাহসী প্রমোদবালার ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন। তিনি তার ‘পি সে পিএম তাক’ নামের এই রাজনৈতিক প্রহসন ধারার চলচ্চিত্রে মাধুরীকে প্রত্যাশা করেছিলেন অনেক আগে থেকেই। কিন্তু মাধুরী দুই সন্তানের মা বলে এই ধরনের চরিত্রে অনীহা প্রকাশ করে কুন্দনকে ফিরিয়ে দেন। কুন্দন জানান, ‘১৯৯৪ সালে ‘আনজাম’ চলচ্চিত্রের সেটে তিনি ‘পি সে পিএম তাক’ চলচ্চিত্রটির ‘কস্তুরীর’ চরিত্রে অভিনয়ের জন্য মাধুরীকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন এবং শেষ পর্যন্ত তিনি চিত্রনাট্য পছন্দও করেছিলেন। তবে সে সময় মাধুরীর ডেট ছিল না বলে শেষ পর্যন্ত ‘মীনাক্ষী দীক্ষিত’ নামের এক নবাগত তারকার মাঝে কুন্দন শাহ তার চলচ্চিত্রের ‘কস্তুরী’কে খুঁজে পেয়েছেন। পরিচালক কুন্দন শাহ জানিয়েছেন যে, ‘মীনাক্ষীকে চূড়ান্তভাবে মনোনীত করার আগে তিনি এক হাজারের মতো তরুণীর অডিশন নিয়েছেন। তারপর বাছাই করে মীনাক্ষীকে চার দিনের পরীক্ষা দেয়ার পর সিদ্ধান্ত নেয়া হয় তিনিই হবেন ‘কস্তুরী’ চরিত্রে মাধুরীর বিকল্প।

অন্যদিকে মজার ব্যাপার এই যে, পদবী দীক্ষিত হলেও মাধুরীর কেউ নন মীনাক্ষী । কিন্তু রূপালী পর্দায় তাকে দেখে মাধুরীকে মনে পড়তেই পারে। এই আকর্ষণীয় ও সুন্দরী ভাল নাচতে পারেন বলেই চলচ্চিত্রকার কুন্দন শাহ তাকে সুযোগ করে দেন। কিন্তু মজার বিষয় হলো, উত্তর প্রদেশের জমিদারি বাড়ির রক্ষণশীল পরিবারের এই তরুণী নাচের জন্য কখনও কারও কাছে প্রথাগত তালিম নেননি। রক্ষণশীল পরিবারের মেয়ে বলে সিনেমায় মেয়ের অভিনয় করা নিয়ে বাবার আপত্তি থাকাটাই স্বাভাবিক। সেই আপত্তি এসেও ছিল; কিন্তু শেষ পর্যন্ত বাবাকে রাজি করাতে পেরেছেন এই যৌন আবেদনময়ী অভিনেত্রী।

এক প্রেস ব্রিফিংয়ে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, ‘এমন একটি পরিবারের মেয়ের প্রথম বলিউড ছবিতেই যৌনকর্মীর চরিত্র নিয়ে অভিনয় করাটা কতটুকু অস্বস্তিকর?’ মীনাক্ষীর কথায়, ‘অস্বস্তি হয়নি বললে ভুল হবে; কিন্তু কুন্দনজির সঙ্গে বার কয়েক কথা বলে এবং কয়েক দিন ধরে কর্মশালা করে মনের সেই দ্বিধা ভাবটা কাটিয়ে ফেলেছি। তবে মিস ইউনিভার্স বা যৌনকর্মী, যখন যে চরিত্রেই অভিনয় করি সেটা মন দিয়ে করতে চেষ্টা করি। আর এ জন্যই ছুটেছি নিষিদ্ধ পল্লীতে এবং যৌনকর্মীর চরিত্রকে ফুটিয়ে তুলতে যৌনকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের কথা বলা থেকে শুরু করে হাঁটাচলা, আদব-কায়দা আত্মস্থ করে নিজের চরিত্রে ফুটিয়ে তুলেতে চেষ্টা করেছি।’ এখন দেখার পালা নতুন দীক্ষিত বলিউডপাড়ায় মাধুরী দীক্ষিতের বিকল্প হয়ে পর্দায় আবির্ভূত হয়ে দর্শকের মনে কতখানি সাড়া ফেলতে পারে। তবে সেটা দেখার জন্য আরও কিছুদিন তো অপেক্ষা করতেই হবে!

শীর্ষ সংবাদ:
প্রতিরোধের প্রস্তুতি ॥ শীতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা         বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাস্তবসম্মত রোডম্যাপ চাই         সাউদিয়ার টিকেট নিয়ে হাহাকার- ক্ষোভ প্রবাসীদের         স্বাস্থ্যখাত যেন লুটপাটের সোনার খনি         নেদারল্যান্ডস-নিউজিল্যান্ড থেকে পেঁয়াজ আসছে         করোনায় দেশে মৃত্যু পাঁচ হাজার ছাড়িয়েছে         জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিনরাত কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী         ৮ বিভাগে ৭১ উপজেলায় প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে         শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগে এইচএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না         কুকুর নিধন কিংবা অপসারণ করবে না উত্তর সিটি         জলবায়ু পরিবর্তনে ঠিক থাকছে না শরতের আবহাওয়া         স্ত্রীর কথায় হাতি কিনলেন দরিদ্র কৃষক         অবশেষে কালুরঘাটে সড়ক-রেল সেতু নির্মাণ হচ্ছে         জার্মানির সঙ্গে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে কাজ করতে হবে : স্পিকার         অর্থনীতি সচল রেখে করোনার দ্বিতীয় ওয়েভ মোকাবিলা করা হবে : মন্ত্রিপরিষদ সচিব         ৫৪ হাজার রোহিঙ্গাকে ফেরত দিতে চায় সৌদি : পররাষ্ট্রমন্ত্রী         শ্রমিকের বেতন নিয়ে তালবাহানা মানা হবে না : সাকি         আইন অনুযায়ী নুরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         বাড়ির পাশ দিয়ে রাস্তা নেয়ার জন্য বাড়তি সড়ক না নির্মাণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর         কারা ডিআইজি বজলুরের সম্পতি ক্রোক ও ব্যাংক হিসাব ফ্রিজের নির্দেশ