কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কয়লার ব্যবহার কবে হবে?

প্রকাশিত : ৪ মার্চ ২০১৫

মানুষের জন্য প্রকৃতি তার দু’হাত উজাড় করে যে সম্পদ দিয়েছে প্রতিবেশী দেশসহ উন্নত বিশ্ব তার সর্বোচ্চ ব্যবহার করলেও বাংলাদেশ এক্ষেত্রে এখনও পিছিয়ে। কার্যকর উদ্যোগ ও সিদ্ধান্তহীনতার কারণে প্রাকৃতিক সম্পদের ব্যবহারে বাংলাদেশ এসব শক্তির সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

দেশের ভূগর্ভস্থ খনিজ সম্পদ বিশেষ করে কয়লার সঠিক ব্যবহার করা যাচ্ছে না। দেশে আবিষ্কৃত বিপুল পরিমাণের কয়লা সম্পদ মজুদ থাকা সত্ত্বেও তা ব্যবহার না করে ভূগর্ভেই ফেলে রাখার কথা বলে আসছেন এক শ্রেণীর পরামর্শক।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তথ্য-প্রযুক্তির উন্নতির এই যুগে প্রতি মুহূর্তে চিন্তা-চেতনা, ধ্যান-ধারণা, উদ্ভাবন প্রক্রিয়া বদলে যাচ্ছে। আজকে যে প্রযুক্তির বহুল ব্যবহার হচ্ছে সময়ের পরিবর্তনে, প্রযুক্তির নব নব আবিষ্কারে সেই প্রযুক্তিই ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। তাই সময়ের নিরিখে যেটা অপরিহার্য তার ব্যবহার করাই বুদ্ধিমানের কাজ বলে মনে করছেন তাঁরা। এর উদাহরণ দিতে গিয়ে তাঁরা দেশের প্রচুর পরিমাণে মজুদ থাকা কয়লা সম্পদের বিষয়টি উল্লেখ করে বলেছেন, এই সম্পদের কার্যকর ব্যবহার যদি এখনই করা না হয় তবে তার জন্য বাংলাদেশকে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে।

জানা যায়, খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ দিনাজপুরেও ৩টি কয়লা ও ১টি পাথর খনি রয়েছে। এছাড়া সম্প্রতি নবাবগঞ্জের দিঘিপাড়ায় আবিষ্কৃত কয়লা খনিতে মজুদ রয়েছে প্রায় ৫শ’ মিলিয়ন টন কয়লা। এক যুগ ধরে ৫টি কূপ খনন করার পর গত ৯ বছর ধরে কয়লা খনিতে অনুসন্ধানের কাজ বন্ধ হয়ে আছে। বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে ৩৯০ মিলিয়ন টন এবং ফুলবাড়ী কয়লা খনিতে মজুদ রয়েছে ৫৭২ মিলিয়ন টন কয়লা। মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনির পর নবাবগঞ্জ দিঘিপাড়ার কয়লা খনির কাজও বন্ধ হয়ে আছে। একই সঙ্গে সম্পদ হিসেবে ২শ’ মিলিয়ন টন সিলিকা বালু ও সাদা মাটির সন্ধানও পাওয়া গেছে। আবিষ্কৃত এসব কয়লা খনিতে বিপুল পরিমাণের কয়লা উত্তোলন করে উন্নয়ন ও উৎপাদনের কাজে ব্যবহার করা গেলে তা অর্থনীতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারত।

বর্তমান যুগে প্রকৃতি প্রদত্ত সম্পদের দ্রুত ও সর্বোচ্চ ব্যবহার করে প্রতিবেশী দেশসহ উন্নত বিশ্বের দেশগুলো যখন অর্থনীতিতে, উন্নয়নে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে, সেখানে বাংলাদেশ কেন তার সর্বোচ্চ ব্যবহার না করে তা মাটির নিচে ফেলে রাখছে তা বোধগম্য নয়। কয়লা উত্তোলন করে তার কার্যকর প্রয়োগ করতে পারলে বিদ্যুত ও জ্বালানি খাতের ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব। কয়লাকে মাটির নিচে রেখে না দিয়ে বরং তা উত্তোলন করে দেশ ও দশের সেবায় কিভাবে কাজে লাগানো যায় সেই বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা প্রয়োজন।

প্রকাশিত : ৪ মার্চ ২০১৫

০৪/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: