ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

দক্ষিণাঞ্চলে ২৭ লক্ষাধিক টন তরমুজ উৎপাদন

খোকন আহম্মেদ হীরা, বরিশাল

প্রকাশিত: ০১:১৬, ৩১ মার্চ ২০২৩

দক্ষিণাঞ্চলে ২৭ লক্ষাধিক টন তরমুজ উৎপাদন

এবারও দেশে আবাদ ও উৎপাদনের ৭০ ভাগেরও বেশি তরমুজের জোগান দিচ্ছে

এবারও দেশে আবাদ ও উৎপাদনের ৭০ ভাগেরও বেশি তরমুজের জোগান দিচ্ছে বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চল। চলতি মৌসুমে এ অঞ্চলের প্রায় ৬৪ হাজার হেক্টরে ২৭ লাখ টন তরমুজ উৎপাদনের আশা করছেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।
তবে গত সপ্তাহের দুইদিনে মাঝারি বর্ষণে ভোলার চরফ্যাশন এবং বরগুনার পাথারঘাটাসহ কয়েকটি এলাকার মাঠে থাকা তরমুজের বেশ ক্ষতি হয়েছে। কৃষকরা চেষ্টা করছেন যত দ্রুত সম্ভব খেত থেকে তরমুজ তুলে বাজারজাত করতে। কিন্তু বর্তমানে পাইকার মাঠ থেকে তরমুজ কিনতেও খুব একটা আগ্রহী হচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন তরমুজ চাষিরা। ফলে গত বছরের মতো এবারও তরমুজ নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের কৃষকদের দুর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বছর রবি মৌসুমে দেশে প্রায় ৬৪ হাজার হেক্টর জমিতে ২৬ লাখ টনের মতো তরমুজ উৎপাদন হলেও দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলার ৩৭ হাজার হেক্টরে উৎপাদন ছিল প্রায় ১৭ লাখ টন। কিন্তু এবার পরিস্থিতির আশাতীত উন্নতি হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, পিরোজপুর, বরগুনা ও ঝালকাঠী জেলার উঁচু ও উপকূলীয় বিচ্ছিন্ন দ্বীপসহ নদী তীরবর্তী প্রায় ৬৪ হাজার হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ হয়েছে। দক্ষিণাঞ্চলে এবার হেক্টর প্রতি প্রায় ৪২ টন হিসেবে ২৭ লাখ টনের মতো তরমুজ উৎপাদনের আশাবাদ ব্যক্ত করেছে।

যা গত বছর সারাদেশে সর্বমোট উৎপাদনেরও বেশি এবং দক্ষিণাঞ্চলে গত বছরের চেয়ে প্রায় ১০ লাখ টন বাড়তি। সূত্রমতে, নদীবহুল দক্ষিণাঞ্চলের নোনাপানিমুক্ত চরাঞ্চলের পলি মাটিতে তরমুজের ভালো আবাদ ও ফলন হয়েছে। গত ১৫ দিন ধরে পরিপক্ক ও সুমিষ্ট তরমুজ বাজারে আসতে শুরু করেছে।
ভেষজবিদদের মতে, তরমুজের রস রক্তচাপ স্বাভাবিক পর্যায়ে রাখতে সহায়তা করে। পাকা তরমুজের রসালো শাঁস স্বাদে-গন্ধে অতুলনীয় হওয়ার পাশাপাশি তা অত্যন্ত তৃপ্তিদায়ক ও তৃষ্ণা নিবারক। কৃষি ও পুষ্টি বিজ্ঞানীদের মতে, তরমুজে যথেষ্ট পরিমাণ ভিটামিন-এ, রিবোফ্লাভিন, থায়ামিন ও পেপটিন রয়েছে, যা মানবদেহের জন্য যথেষ্ট উপকারী।

×