ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

নওগাঁয় সড়কের কাজ শেষ না করেই উধাও ঠিকাদার

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ

প্রকাশিত: ২১:০৯, ৩ অক্টোবর ২০২২

নওগাঁয় সড়কের কাজ শেষ না করেই উধাও ঠিকাদার

বদলগাছী মিঠাপুর আকন্দপাড়া-মালঞ্চা সড়কের কার্পেটিং তুলে ফেলে রাখায় জনদুর্ভোগ চরমে

বদলগাছী উপজেলার ইউনিয়ন পর্যায়ে ৩টি সড়কের সংস্কার কাজ শেষ না করেই কাজ ফেলে রেখে উধাও হয়ে চলে গেছে ঠিকাদার। সড়ক ৩টির কার্পেটিং তুলে ফেলে ঠিকাদার চলে যাওয়ায় যাতায়াতে এলাকাবাসীসহ পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। উপজেলা প্রকৌশল অধিদফতরে (এলজিইডি) সূত্র জানায়, উপজেলার আধাইপুর ইউপির জগন্নাথপুর থেকে দেউলিয়া সড়কের জগন্নাথপুর অংশে ৫শ’ ৯০ মিটার সড়ক, বরাদ্দ ২৫ লাখ ৮৩ হাজার টাকা। কাজ বুঝে দেয়ার শেষ তারিখ ছিল ২০২১ সালের ৪ জুলাই।

মিঠাপুর পাকা সড়ক আকন্দপাড়া থেকে মালঞ্চা সড়কের তাজপুর বাটার মোড় স্কুল পর্যন্ত ১৭শ’ ৫৫ মিটার সড়ক, বরাদ্দ ৭০ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। কাজ সমাপ্ত করার শেষ তারিখ ছিল ২০২১ সালের ১৯ জুলাই। খাদাইল বাজার থেকে জগৎনগর সড়ক ১৩শ’ ৬২ মিটার, বরাদ্দ ৭০ লাখ ১১ হাজার টাকা। কার্যাদেশ অনুসারে ২০২১ সালের জুলাই মাসে সংস্কার কাজগুলো শেষ করার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত ঠিকাদার লাপাত্তা।
এলাকাবাসী জানায়, প্রায় দু’বছর পূর্বে ঠিকাদার এসে রাস্তাগুলো খনন করে। বিধ্বস্ত রাস্তাগুলোর কার্পেটিং তুলে ফেলে। রাস্তার দু’পাশে কিছু অংশে এজিং বসানো হয়। এর পর রাস্তার বেগতিক অবস্থা রেখেই ঠিকাদার চলে যায় আর আসেনি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানান, এ কাজগুলো রাজশাহীর মূল ঠিকাদারের কাছ থেকে কিনে নেন পতœীতলা ইউপির চেয়ারম্যান রনি ঠিকাদার। এ বিষয়ে ঠিকাদার রনির সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি জানান তখন জিনিস পত্রের দাম বেশি ছিল তাই কাজগুলো তুলতে পারিনি। অল্পদিনের মধ্যেই কাজগুলো করে দেব। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ মোখলেছুর রহমান জানান, কাজ শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারকে বার বার চিঠি দেয়ার পরেও গুরুত্ব দিচ্ছে না।

চন্দনাইশে সড়ক বেহাল
নিজস্ব সংবাদদাতা চন্দনাইশ চট্টগ্রাম থেকে জানান, উপজেলার হাশিমপুর ভাই খলিফাপাড়া-করইল্যামুড়া সড়ক ভেঙ্গে যানবাহন চলাচল অনেকটা বন্ধ হয়ে পড়েছে। স্থানীয় প্রভাবশালী মহল সড়কের জায়গা দখল করে গৃহনির্মাণ করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের বরুমতি মাজার পয়েন্ট ব্রিজের উত্তরপার্শ্বে হাশিমপুর ভাই খলিফাপাড়া থেকে সড়কটি শুরু হয়ে ছৈয়দাবাদ, ধরপাড়া, চান্দামুড়া, বদু বাপের বাড়ি হয়ে করইল্যামুড়া গিয়ে শেষ হয়। এ সড়ক দিয়ে ওইসব এলাকার সাধারণ মানুষ, শিক্ষার্থী, রোগী, কৃষকরা চলাচল করে থাকে। দীর্ঘ ৪ বছর আগে সড়কটি সংস্কার করে ব্রিক সলিং করে চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছিল।

৩ কিলোমিটারের অধিক এ সড়ক দিয়ে বর্তমানে যানবাহন চলাচল অনেকটা বন্ধ হয়ে পড়েছে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ইট উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তে পরিণত হয়েছে। তাছাড়া বেশকিছু স্থানে স্থানীয় প্রভাবশালীরা সড়কের জায়গা দখল করে গৃহনির্মাণ ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করায় সড়ক বেদখল হয়ে যাচ্ছে। স্থানীয়দের অভিযোগ এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সম্পূর্ণ নীরব রয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী জুনায়েদ আবছার চৌধুরী বলেছেন, ইতোমধ্যে ১১শ’ মিটার সড়ক সংস্কারের জন্য প্রকল্প দেয়া হয়েছে। বাকি অংশ পর্যায়ক্রমে সংস্কার করা হবে বলে জানান।

monarchmart
monarchmart