৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

নওগাঁর বিভিন্ন গ্রামে কুমড়া বড়ি তৈরির ধুম

প্রকাশিত : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৭ পি. এম.
নওগাঁর বিভিন্ন গ্রামে কুমড়া বড়ি তৈরির ধুম

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ ॥ নওগাঁর বিভিন্ন উপজেলার পাড়ায়-মহল্লায় কুমড়া বড়ি তৈরির ধুম পড়েছে। আর এই বড়ি তৈরির কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন সংশ্লিষ্ট এরাকার গ্রহিনীরা। এই কুমরা বড়ি স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে চালান হচ্ছে দেশের অন্যান্য জেলাসহ বিভিন্ন স্থানে। শীতকালই হলো এই কুমড়া বড়ি তৈরির উপযুক্ত মৌসুম। নওগাঁ সদরের সুলতানপুর কালিতলাসহ সদরের বিভিন্ন গ্রামের পাড়া-মহল্লাসহ জেলার রাণীনগর, মান্দা, মহাদেবপুর, আত্রাইসহ সকল উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এই সুস্বাদু কুমড়া বড়ি তৈরি করা হয়ে থাকে।

প্রতিদিন বেশ সকাল থেকেই বাড়ির উঠানে উঠানে চলে কুমড়া বড়ি তৈরির কাজ। বাড়ির গৃহিণী থেকে শুরু করে পুরুষ এবং ছোট-বড় সকর বয়সের মানুষ সবাই মিলে তৈরি করেন এই কুমড়া বড়ি। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে প্রবেশ করতেই চোখে পড়বে ফাঁকা রোদ মাখানো বিভিন্ন স্থানে চাটাইয়ের ওপর সারি সারি করে বিছানো সাদা রঙ্গের মাসকলাইয়ের তৈরি কুমড়া বড়ি শুকানো হচ্ছে। কেউ কেউ আবার শুকনো বড়িগুলো বাঁশের চাটাই থেকে খুলছে আবার কেউ কেউ সেই বড়ির যতœ করছে। কারো যেন মুখ ঘুরানোর ফুসরত নেই। এ রকম অনেক দৃশ্য চোখে পড়বে। ভোর রাত থেকে শুরু হয় এই কুমড়া বড়ি তৈরির কাজ। এহলো মাসকলাইয়ের কুমড়া বড়ি তৈরির বর্ণনা।

এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুন বলেন, উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে কুমড়া বড়ি তৈরি হয়। কিন্তু খট্টেশ্বর গ্রামটিতেই অনেক বছর যাবৎ বাণিজ্যিক ভাবে কুমড়া বড়ি তৈরি করা হয়ে থাকে বলে আমি শুনেছি। অন্যান্য গ্রামে বাণিজ্যিক ভাবে এই বড়ি তৈরি করা হয় না। তবে এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত এখানকার কারিগররা যদি আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে, তাহলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা তাদেরকে যথাসাধ্য সহযোগীতা করার চেষ্টা করবো।

প্রকাশিত : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫৭ পি. এম.

১৭/১২/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



শীর্ষ সংবাদ: