ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১

বাংলাদেশের ভালোবাসায় মুগ্ধ মেসি

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:৩২, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

বাংলাদেশের ভালোবাসায় মুগ্ধ মেসি

.

শুধু ফুটবলই নয়, বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনেই সবচেয়ে জনপ্রিয় দুটি দেশ হচ্ছে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। তবে বিশ্বকাপ ফুটবলের হিসাব কষলে বাংলাদেশে আর্জেন্টিনার সমর্থন অনেক বেশি। সবশেষ ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলেও এ দৃশ্য দেখা গেছে। রেকর্ড সর্বোচ্চ পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের চেয়ে তিনবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনার সমর্থন অনেক বেশি দেখা গেছে লাল-সবুজের দেশে।
উন্মাদনার মাত্রা এতটাই বেশি ছিল যে, এটা বিশ্ব মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচারও হয়েছে।

লিওনেল মেসি, ডি মারিয়াদের প্রতি বাংলাদেশের খেলাপ্রেমীদের ভালোবাসার খবর জেনেছে আর্জেন্টিনাও। ভালোবাসার এমন উন্মাদনার কথা জেনেছেন স্বয়ং মেসিও। তাইতো ভালোবাসার জবাবও দিয়েছেন ছয়বারের ফিফা সেরা তারকা। বিশ্বকাপের সময়ই বাংলাদেশের সমর্থকদের অভিবাদন জানান খুদে জাদুকর। বিশ্বকাপ শেষের দেড় মাস পর আবারও মেসি বাংলার সমর্থকদের ভালোবাসায় মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন। আর্জেন্টিনা দল ও মেসির প্রতি ভালোবাসার মানুষের অভাব নেই বাংলাদেশে। কাতার বিশ্বকাপ চলাকালে আরও একবার প্রমাণ মেলেছে। দেশজুড়ে আর্জেন্টিনার পতাকা যেমন শোভা পেয়েছিল, তেমনি অগণিত মানুষের গায়ে জড়ানো ছিল মেসির ‘১০’ নম্বর জার্সি। সেই সঙ্গে দলটির প্রতিটি জয়ে উৎসবের জোয়ার বয়ে যায়।

এমন উন্মাদনার কথা গণমাধ্যমের কল্যাণে পৌঁছে যায় পিএসজি ফরোয়ার্ড মেসির কাছে। শুক্রবার স্বদেশী ক্রীড়া বিষয়ক গণমাধ্যম দিয়ারিও ওলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ৩৫ বছর বয়সী মেসি বলেন, হ্যাঁ আমি বাংলাদেশের করা সমর্থনের সবকিছুই দেখেছি। ফাইনালের আগে সবখানে জার্সি দেখা যাচ্ছিল। সারা বিশ্বের মানুষের গায়ে আর্জেন্টিনার মেসির ‘১০’ নম্বর জার্সি দেখতে পাওয়াটা খুবই সুন্দর ব্যাপার।
কাতারের মাটিতে ফাইনালে টাইব্রেকারে ফ্রান্সকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয় আর্জেন্টিনা। এতে বিশ্বকাপ শিরোপা জেতার জন্য দলটির ৩৬ বছরের অপেক্ষার অবসান হয়। মেসিবাহিনীর অর্জনে বাংলাদেশের মানুষও মাতোয়ারা হয় পরম প্রাপ্তির উল্লাসে। ফুটবলের মহাযজ্ঞের সবশেষ আসরে মেসি ছিলেন আপন মহিমায় উজ্জ্বল। বিশ্বকাপের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্স উপহার দেন তিনি। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে জোড়াসহ সাত গোল করেন। পাশাপাশি সতীর্থদের চার গোলে অবদান রাখেন। এমন নৈপুণ্যের কারণে দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার গোল্ডেন বল জেতেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।
ক্যারিয়ারের সেরা সাফল্যের পর মেসির ফের অবসরের বিষয়টিও সামনে এসেছে। তবে বর্তমানে শোনা যাচ্ছে, ২০২৬ বিশ্বকাপ তিনি খেললেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। পরের বিশ্বকাপের সময় মেসির বয়স হবে ৩৯ বছর। ওই বয়সে পেশাদার ক্যারিয়ার চালিয়ে যাওয়ার নজির বিরল। তবে ফিট ও ফুটবল উপভোগ করতে থাকলে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও মেক্সিকোর মাটিতে অনুষ্ঠেয় আসরে দেখা যেতে পারে তাকে। কাতারে মহাযজ্ঞ শুরুর আগে বর্তমানে ৩৫ বছর বয়সী মেসি বলেছিলেন, এটি হতে যাচ্ছে তার ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপ।

কিন্তু সেই অবস্থান থেকে সরে আসার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। আগামী ২০২৬ বিশ্বকাপে খেলার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না রেকর্ড সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী ফুটবলার। নিজ দেশের গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে মেসি বলেন, আমার বয়সের কারণে ২০২৬ বিশ্বকাপে খেলা কঠিন হবে। আমি ফুটবল খেলতে ভালোবাসি। যতদিন আমার ফিটনেস ভালো থাকে এবং আমি ফুটবল উপভোগ করতে থাকি, ততদিন খেলা চালিয়ে যাব। পরের বিশ্বকাপ আসতে এখনো অনেক সময় বাকি। আমার ক্যারিয়ার কেমন যাচ্ছে সেটার ওপর সবকিছু নির্ভর করছে।

×