বুধবার ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

পশ্চিম তীরে ১৭ হাজার বাড়ি ভাঙবে ইসরাইল

  • অধিকাংশই ফিলিস্তিনী মালিকানাধীন

ইসরাইল প্রায় ১৭ হাজার কাঠামো ভেঙে ফেলার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে, যেগুলোর অধিকাংশ পূর্ণ ইসরাইলী সামরিক ও বেসামরিক শাসনাধীন বেআইনীভাবে অধিকৃত পশ্চিম তীরের ব্যক্তি মালিকানাধীন ফিলিস্তিনী জমিতে অবস্থিত। জাতিসংঘের এক রিপোর্টে একথা বলা হয়। ১৯৮৮ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে পশ্চিম তীরের শাসন পরিচালন সংস্থা ইসরাইলের বেসামরিক প্রশাসন ১৪ হাজার কাঠামো ভেঙে ফেলার আদেশ জারি করে। এর মধ্যে ১১ সহস্রাধিক কাঠামো এখনও ভাঙার বাকি আছে এবং এরিয়া সিতে ফিলিস্তিনীদের মালিকানাধীন প্রায় ১৭ হাজার কাঠামো ভাঙা হতে পারে, যার মধ্যে ঘরবাড়ি, চালাঘর এবং পশু আশ্রয়কেন্দ্রও আছে। মানবিক বিষয়াদি সমন্বয় সংক্রান্ত জাতিসংঘ দফতর (ওসিএইচএ) এর রিপোর্টে একথা বলা হয়। খবর গার্ডিয়ানের।

ইসরাইলী মানবাধিকার গোষ্ঠী ব’সেলেম অনুযায়ী অঞ্চল সিতে ইসরাইল নিরাপত্তা ও ভূমি ব্যবস্থাপনার নিয়ন্ত্রণ ধরে রেখেছে এবং ‘অঞ্চলটিকে নিজস্ব প্রয়োজন পূরণের কাজে ব্যবহারযোগ্য’ বলে বিবেচনা করে থাকে। প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ভেঙ্গে ফেলার আদেশ ফিলিস্তিনী বেদুইনদের ক্ষতিগ্রস্ত করেছে, মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো মনে করে পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতি সম্প্রসারণের সুযোগ করে দিতে তারা তাদের ভূমি থেকে উচ্ছেদের ইসরাইলী পরিকল্পনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে, আন্তর্জাতিক আইনে যা অবৈধ। ইসরাইলী কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান ব্যুরোর রিপোর্ট থেকে এই পরিসংখ্যান নেয়া হয়েছে এবং এতে দেখা যায় যে, ফিলিস্তিনীদের বিরুদ্ধে ভেঙ্গে ফেলার আদেশের বিপরীতে মাত্র ৬ হাজার ৯৫০টি ভেঙ্গে ফেলার আদেশ ইহুদি বসতি এলাকার ভেতরের অবৈধ কাঠামোর বিরুদ্ধে জারি করা হয়েছে।

ইসরাইলী বেসামরিক প্রশাসনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ফিলিস্তিনীরা ২০১০ থেকে ২০১৪‘র মধ্যে এরিয়া সিতে নির্মাণ পারমিটের জন্য ২০২০টি আবেদন দাখিল করে। এর মধ্যে মাত্র ৩৩টি অর্থাৎ মাত্র ১.৫ শতাংশ অনুমোদন করা হয়। রিপোর্টে দেখা যায়, ইসরাইলী কর্তৃপক্ষ যে পরিকল্পনা ও অঞ্চলভিত্তিক পদ্ধতি প্রয়োগ করে এবং যে উপায়ে জমি বরাদ্দ করা হয় তাতে ‘এরিয়া সি’র বেশিরভাগ জমিতে ফিলিস্তিনীদের পক্ষে ‘পারমিট পাওয়া কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়ে।’

শীর্ষ সংবাদ:
ফোর্বসের প্রভাবশালী নারীর তালিকায় ৪৩তম শেখ হাসিনা         খুব শীঘ্রই খালেদার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত : আইনমন্ত্রী         ভারতের প্রতিরক্ষাপ্রধানকে নিয়ে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৩         করোনা : একদিনে ৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৭৭         স্কুলে ভর্তির আবেদনের সময় বাড়ালো মাউশি         বিশ্বের কোনও গণতন্ত্রই নিখুঁত নয় : শিক্ষামন্ত্রী         আবরার হত্যা ॥ রায় দ্রুত কার্যকরের দাবি         আবরার হত্যা ॥ যাদের ফাঁসি ও যাবজ্জীবনের রায় হলো         ‘জাওয়াদের প্রভাবে বাড়তে পারে ডেঙ্গু’         ভারতের সাথে সড়ক পথে যাতায়াত চালু করা হবে : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী         রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে গড়ে তোলা হবে কেন্দ্রীয় বাণিজ্যিক অঞ্চল : মেয়র তাপস         জঙ্গি সংগঠন বাংলা টিমের পলাতক আসামি গ্রেফতার         কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি বন্ধে ছয় দফা দাবি         চাঁপাইনবাবগঞ্জ-সোনামসজিদ পর্যন্ত রেলপথ সম্প্রসারণ নির্মাণ কাজ চূড়ান্ত ॥ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী         মহিলা হোস্টেলসহ ৮ স্থাপনা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী         ছাত্রদল থেকেই এসব শিখে এসেছে মুরাদ ॥ হানিফ         পিপিপিতে হবে ঢাকার ইস্ট-ওয়েস্ট এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে         রায় কার্যকর হলে আরও খুশি হব ॥ আবরারের বাবা         বিএসএফ নির্যাতনে মৃত ভারতীয় যুবকের লাশ ধরলা নদীতে ভেসে উঠল         ডেঙ্গু : একদিনে হাসপাতালে আরও ৬০ রোগী হাসপাতালে