১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 

কোকো-আনিসুলের কবর জিয়ারত তাবিথ-ইশরাকের

প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারী ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো ও ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক সফল মেয়র আনিসুল হকের কবর জিয়ারত করে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন বিএনপির দুই মেয়রপ্রার্থী। শুক্রবার সকালে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন দলের অন্য নেতাকর্মীদের সঙ্গে বনানীতে কোকো ও আনিসুল হকের কবর জিয়ারত করে তাদের নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন। এ সময় বিএনপি মহাসচিবসহ অনেক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। বিএনপির মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা শুক্রবার মসজিদে জুমা নামাজ আদায় করে মুসল্লিদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এ ছাড়া প্রতিটি এলাকায় গণসংযোগকালে লিফলেট বিতরণসহ সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলে ভোট প্রার্থনা করেন।

তাবিথ আউয়ালের নির্বাচনী প্রচার

আরাফাত রহমান কোকো ও আনিসুল হকের কবর জিয়ারত শেষে দুপুরে বাড্ডা এলাকা থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। এর পর তিনি বনশ্রী কেন্দ্রীয় মসজিদে জুমার নামাজ আদায় শেষে মুসল্লিদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করে বিকেল ৩টায় কাওরান বাজার এলাকায় গিয়ে গণসংযোগ করেন।

গণসংযোগকালে তাবিথ আউয়াল বলেন, যত বাধাই আসুক মাঠ ছেড়ে যাব না, আমরা ধানের শীষকে বিজয়ী করতে মাঠে থাকব। কোন বাধাই আমাদের সরাতে পারবে না। তিনি বলেন, ঢাকাকে সুন্দর করে সাজাতে হলে ধানের শীষে ভোট দিতে হবে।

তাবিথ বলেন, ১ ফেব্রুয়ারি আমরা সকলে ভোট কেন্দ্রে যাব, ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দেব। বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে, সুন্দর-আধুনিক ঢাকা গড়তে ধানের শীষে ভোট দেয়ার বিকল্প নেই। ভোটারদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ঢাকাকে সুন্দর করে সাজাতে ধানের শীষে ভোট দেবেন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা নেতাকর্মীরা স্লোগান দিয়ে ধানের শীষে ভোট দেবেন বলে আওয়াজ তোলেন।

গণসংযোগকালে তার সঙ্গে ছিলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, দলের যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দফতর প্রধান জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহসভাপতি বজলুল বাসিত আঞ্জু প্রমুখ।

ইশরাক হোসেনের নির্বাচনী প্রচার

শুক্রবার দুপুরে ৪৬ নং ওয়ার্ড এলাকা থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন। এরপর ফরিদাবাদ জামিয়া আরাবিয়া ইমদাদুল উলুম মাদ্রাসায় জুমা নামাজ আদায় শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ইশরাক বলেন, আমি প্রত্যেক দিনই ঢাকাবাসীর জন্য নানা পরিকল্পনা নিয়ে কথা বলছি কিন্তু সরকার হয়তো এগুলা শুনছে না। কারণ, তারা তো দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ। গত ১৩ বছর ধরে তাদের দল ক্ষমতায়, নয় বছর ধরে নগরের দায়িত্বে¡ তারা আছে। কিন্তু তারা তো এখনো নগরের কোন পরিবর্তন করতে পারেনি। আর কোন ধরনের পরিবর্তন করতে পারবে বলেও মনে হয় না।

ইশরাক হোসেন বলেন, শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে সাদেক হোসেন খোকা দেশে মৃত্যুবরণ করতে পারেননি। খালেদা জিয়ার ছেলে আরাফাত রহমান কোকোও দেশে মৃত্যুবরণ করতে পারেননি। খালেদা জিয়ার পরিবারের দুঃখটা আমি খুব ভাল করে বুঝি। কারণ আমার বাবাও একই ধরনের প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন। ওনাকে এই দেশে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করতে দেয়া হয়নি শুধুমাত্র বিরোধী দলের রাজনীতি করার কারণে।

ইশরাক হোসেন বলেন, চারদিকে ধানের শীষের পক্ষে গণজোয়ার শুরু হয়েছে, দুঃশাসনের বিপক্ষে গণজোয়ার শুরু হয়েছে। এই দুঃশাসনের বিপক্ষে সবাই ১ ফেব্রুয়ারি স্বতঃস্ফূর্তভাবে কেন্দ্রে যাবেন এবং ধানের শীষে ভোট দেবেন। তিনি বলেন, আমি আমার বাবার রাজনৈতিক আদর্শ মনে-প্রাণে ধারণ করি। আমি বলতে চাই, আমরা অসাম্প্রদায়িক দেশে বসবাস করি। অসাম্প্রদায়িক চেতনা বিশ্বাস করি। দীর্ঘকাল ধরে এই এলাকায় আমরা হিন্দু এবং মুসলমান একসঙ্গে বসবাস করে আসছি। এই এলাকায় আমরা কোন সাম্প্রদায়িক শক্তিকে স্থান দেইনি, আগামীতেও দেব না।

পরে ইশরাক হোসেন ফরিদাবাদে দয়াল বাবা মোতালেব শাহ (রা)-এর মাজার জিয়ারত করে সেখান থেকে পর্যায়ক্রমে ৪৫ ও ৪০ নং ওয়ার্ড এবং ওয়ারী থানাধীন ৩৯ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান প্রমুখ।

ইশরাকের নির্বাচনী ইশতেহার ২৭ জানুয়ারি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন ২৭ জনুয়ারি নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করবেন। শুক্রবার নির্বাচনী প্রচারকালে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান। নির্বাচনী ইশতেহারে ঢাকা দক্ষিণ সিটির উন্নয়নে তিনি তার পরিকল্পনা তুলে ধরবেন বলে জানান।

প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারী ২০২০

২৫/০১/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: