ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ৩১ মে ২০২৩, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০

পুত্রবধূর পিটুনিতে শশুর হাসপাতালে

সংবাদদাতা,দৌলতখান,ভোলা

প্রকাশিত: ১১:০২, ৩০ মার্চ ২০২৩

পুত্রবধূর পিটুনিতে শশুর হাসপাতালে

ম্যাপে ভোলা

ভোলার দৌলতখানে ঘরের ভিটা দখল নিয়ে প্রবাসী ছেলের স্ত্রী ফাতেমার বেধড়ক পিটুনিতে শশুর নুর ইসলাম আহত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসময় নুর ইসলামের স্ত্রী  ময়ফুল (৫০), মেয়ে বিবি আমেনা (২০) ও তার মা শতর্ধ্বো সামসুন নাহার এগিয়ে আসলে তাদেরও মারধর করে। আহতদের মধ্যে নুর ইসলাম দৌলতখান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। বাকীরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন। 

গত বুধবার (২৯ মার্চ) সকালে উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়নের কলাকোপা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নুর ইসলামের স্ত্রী ময়ফুল বাদী হয়ে দৌলতখান থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নুর ইসলাম কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাংবাদিকদের জানান, কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করি। দুই বছর আগে তার প্রবাসী ছেলে আলম ও দলিল লেখকের সহযোগীতায় ৪০ শতাংশ জমি প্রতারণা করে নিয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে গ্রাম্যভাবে সালিশ বৈঠক হলেও এর কোন সুরাহা হয়নি। 

ঘটনার সময় বুধবার সকাল ৯ টায় তার জমিতে বসতঘর নির্মাণ করতে গেলে প্রবাসী ছেলে আলমের স্ত্রী ফাতেমার সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এসময় কোন কিছু বুঝে ওঠার আগে ফাতেমা ও তার ভগ্নিপতি ফরিদ,ফরিদের স্ত্রী কুলসুম ও ফরিদের ছেলে রিয়াদ নুর ইসলামকে বেধড়ক মারধর করে। খবর পেয়ে নুর ইসলামের  স্ত্রী ময়ফুল, মা সামসুন নাহার ও মে বিবি আমেনা এগিয়ে আসলে তাদেরও পিটিয়ে আহত করেন। স্থানীয়রা জানতে পেরে তাদের উদ্ধার করে দৌলতখান হাসপাতালে এনে ভর্তি করান।

স্থানীয়রা জানান, ফাতেমা ভাড়াটিয়া লোকজন দিয়ে নুর ইসলাম ও তার ১১০ বছরের বৃদ্ধা মা সহ পরিবারের অন্যন্যা সদস্যদের এভাবে মারধর করার ঘটনাটি দুঃখজনক।  তবে, এ ব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত ফাতেমাকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। 

দৌলতখান থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সত্য রঞ্জন খাসকেল জানান, এ ব্যাপারে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

টিএস