শুক্রবার ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

একটি পরিচয়পত্রে ১৪ হাজার সিম

একটি পরিচয়পত্রে ১৪ হাজার সিম

অনলাইন রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশে মোট মোবাইল সিম গ্রাহকের সংখ্যা ১৩ কোটির বেশি। এর মধ্যে মাত্র ৭.৬৫ শতাংশ গ্রাহক প্রকৃত তথ্য দিয়ে নিবন্ধন করেছেন। সেই হিসেবে প্রকৃত তথ্যদাতার সংখ্যা মাত্র ৯৯ লাখ। মঙ্গলবার পর্যন্ত পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই তথ্য জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট তারানা হালিম।

তবে, নিবন্ধন হওয়া এসব সিমের অনেকগুলো ভুয়া পরিচয়পত্র দিয়ে নিবন্ধিত বলেও জানান তিনি। এর মধ্যে একটিমাত্র ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্রের বিপরীতে সর্বোচ্চ ১৪ হাজার সিমের নিবন্ধন রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। আরও দুটি জাতীয় পরিচয়পত্রের বিপরীতে ১১ হাজারের বেশি করে মোট ২২ হাজার সিমের নিবন্ধন আছে বলে জানান তারানা হালিম।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সকল মোবাইল ফোন অপারেটরদের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক শুরুর সময় সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান প্রতিমন্ত্রী। তারানা হালিম বলেন, ‘এ পর্যন্ত (সোমবার) পাওয়া তথ্য অনুযায়ী টোটাল মোবাইল গ্রাহকদের ৭.৬৫ শতাংশের তথ্য আমরা পেয়েছি। এটা আমাদের চাহিদার তুলনায় অনেক কম।’

তথ্য এখনো হাতে আসছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিদিনই তথ্য আসছে। এখনো সর্বশেষ কথা বলার সময় আসেনি। যখন সব তথ্য আমরা পেয়ে যাব তখন আবারো জানাবো’। ‘একটি জাতীয় পরিচয়পত্রের বিপরীতে সর্বোচ্চ ১৪ হাজার ১শ ১৭টি সিমের নিবন্ধন পাওয়া গেছে। সেটা ফেইক পরিচয়পত্র। আরেকটির বিপরীতে ১১ হাজার ৮শ ৬৬ এবং অপর একটি পরিচয়পত্রের বিপরীতে ১১ হাজার ৩শ ২৮টি সিমের নিবন্ধ পাওয়া গেছে।’

ডিসেম্বর থেকে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি: ‘ডিসেম্বর থেকে আমরা বায়োমেট্রিক (হাতের আঙ্গুলের ছাপ) পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের কাজে নামব’ জানিয়ে অপারেটরদের উদ্দেশ্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এর জন্য আপনারা নভেম্বর থেকেই ট্রায়াল বেসিস কাজ শুরু করবেন। এখন যেগুলো (সিম) রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে সেটাও যেন বায়োমেট্রিক সিস্টেমে সমন্বয় করা যায় তা এনআইডিতে সহযোগিতা চাওয়া হবে।’ তিনি বলেন, ‘এই পর্যন্ত আমরা জাতীয় পরিচয়পত্র কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা পেয়েছি তাদেরকে ধন্যবাদ। মোবাইল ফোন অপারেটরদেরও যথেষ্ট সহযোগিতা পেয়েছি। সকলের সম্মিলিত চেষ্টায় আমরা যে তথ্য পেয়েছি তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

কোম্পানি প্রতি সিমের সংখ্যা ও নিবন্ধন তথ্য: প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এয়ারটেলের মোট গ্রাহক সংখ্যা ৯০ লক্ষ ৮০ হাজার। নিবন্ধনের তথ্য পাওয়া গেছে ১৪ লক্ষ ৪ হাজার ৯৩৮ টি সিমের। এই অপারেটরের মোট গ্রাহকের ৫.৪৭ শতাংশের তথ্য পাওয়া গেছে।

বাংলালিংকের মোট গ্রাহক ৩ কোটি ২৪ লক্ষ ৬ হাজার। দ্বিতীয় বৃহত্তম এই অপারেটরের তথ্য পাওয়া গেছে ২৩ লক্ষ ৫৫ হাজার সিমের। মোট সিমের মধ্যে নিবন্ধিত ৭.২৭ শতাংশ। গ্রামীণফোনের মোট গ্রাহক ৫ কোটি ৩৯ লক্ষ ৮০ হাজার। নিবন্ধন তথ্য পাওয়া গেছে ২২ লক্ষের (৪.০৮ শতাংশ)। সিটিসেলের মোট গ্রাহক ১১ লক্ষ ৬১ হাজার। তথ্য পাওয়া গেছে ৪ লক্ষ ১৪ হাজার ৮২৯ টির। শতাংশের হিসেবে এর পরিমান ৩৫.৭৩। রবি’র মোট গ্রাহক ২ কোটি ৭৯ লক্ষ ২১ হাজার গ্রাহক। নিবন্ধিত ১৮ লক্ষ ১১ হাজার ৬৮৬ টি সিমের (৬.৪৯ শতাংশ)। টেলিটকের মোট গ্রাহক ৪২ লক্ষ ২১ হাজার, তথ্য পাওয়া গেছে ১৬ লক্ষ ৫৯ হাজারের (৩৯.৩২ শতাংশ)।

শীর্ষ সংবাদ:
নবেম্বরে সীমান্ত থেকে প্রায় সাড়ে ৩ কেজি আইস ও ১৩ লাখ ইয়াবা জব্দ         করোনা ভাইরাসে আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৪৩         ইরাকের উত্তরাঞ্চলে আইএসের হামলা ॥ অন্তত ১৩ জন নিহত         আজ ঠাকুরগাঁও মুক্ত দিবস         জবিতে চার বিভাগের ভর্তি মৌখিক ও ব্যবহারিক পরীক্ষা পেছাল         চাঁদপুরে মোটরসাইকেলের ৩ আরোহী বাসচাপায় নিহত         উখিয়ায় ক্যাম্পে আরসা ক্যাডারসহ ২৪১ জন আটক, বিপুল অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার         ৫০ বছর পর মুক্তিযোদ্ধা বাবা- পুত্রের কবর চিহ্নিত         সড়কের দুর্নীতির বিরুদ্ধে লাল কার্ড দেখাবে শিক্ষার্থীরা         ১২ ডিসেম্বর দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত পরীক্ষামূলক ভাবে চলবে মেট্রোরেল         ভক্তের অভিযোগে দুঃখ প্রকাশ করেছেন কৃতি         ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত কুয়েট বন্ধ ঘোষণা         রামেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গে ২ জনের মৃত্যু         বিশ্বের ৩০ দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ওমিক্রন         জনকন্ঠে সংবাদ প্রকাশের পর মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে বরাদ্দ আসছে         বিয়ের পিড়িতে দুই হাত হারানো ফাল্গুনী         রায়পুরায় অপহরণের ৬ দিন পর মিললো শিশু ইয়াছিনের লাশ         ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর রেকর্ডে আর্সেনালকে হারাল ইউনাইটেড         সমুদ্রবন্দরে ১ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত