মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২২ আগস্ট ২০১৭, ৭ ভাদ্র ১৪২৪, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

লক্ষ্মীপুরে সন্ত্রাস নির্মূল কমিটির আহবায়ককে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০১:২১ পি. এম.

নিজস্ব সংবাদদাতা, লক্ষ্মীপুর॥ লক্ষ্মীপুর স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ওমর ফারুক (৪০)কে গুলি করে হত্যা করেছে। মঙ্গলবার সকাল প্রায় সাড়ে ৯টার দিকে জেলার নবগঠিত চন্দ্রগঞ্জ থানার মোস্তফার দোকান নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ওই সময় তিনি বাড়ী থেকে চা খাওয়ার জন্য সেখানে আসেন। সেখানে আসার সাথে সাথে তিনজন সন্ত্রাসীর সিএনজি চালিত একটি অটো রিক্সা যোগে সেখানে এসে অ¯্র হাতে নামতে দেখেই ফারুক দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। এ সময় তিনি একটি গাছের সাথে ধাক্কা লেগে পড়ে যান। এ সময় সন্ত্রাসী তাকে লক্ষ্য করে পাঁচ ছয় রাউন্ড গুলি ছোড়ে। পরে সন্ত্রাসীরা সিএনজিতে পর্দা টাঙ্গিয়ে ভৈরবনগরের আমানী লক্ষ্মীপুরের সড়কে পালিয়ে যায়। সন্ত্রাসীরা সংখ্যায় পাঁচ ছয়জন ছিলো।

গুরুতর আহত অবস্থায় তার স্বজনরা স্থানীয় ন্যাশনাল হাসপাতাল নামে একটি ক্লিনিকে নিয়ে যান। অবস্থার অবনতিতে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে নোয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। পরে নোয়াখালী নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

একই সময় চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি মো. ইসমাইলকে লক্ষ্য করে সন্ত্রাসীরা গুলি করার সাথে তিনি পুকুরে লাপিয়ে পড়েন এবং প্রানে বেঁচে যান। সন্ত্রাসীরা সিএনজি যোগে চন্দ্রগঞ্জ লতিফপুর আফজল রোড়ে পূর্বদিক থেকে আসে। নবগঠিত থানা থেকে প্রায় এক কি. মি. অদূরে এ ঘটনায় সাধারণ মানুষের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, দলীয় সূত্রে জানা গেছে, তিনি ছিলেন, চন্দ্রগঞ্জ থানা সন্ত্রাস নির্মূল কমিটির আহবায়ক এবং স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সহসভাপতি। তার পিতার নাম আব্দুল মান্নান। গ্রামের বাড়ী চন্দ্রগঞ্জে থানার পশ্চিম লতিফপুর গ্রামে।

উল্লেখ্য, গতকল্য সোমবার সন্ধ্যাঅয় নব গঠিত চন্দ্রগঞ্জ থানার নতুন ভবন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে, পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি আইজিপি (প্রশাসন) মো: মোখলেছুর রহমান বিপিএম (বার), চট্টগ্রাম বিভাগীয় ডিআইজি, পুলিশ সুপারসহ উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে যে কোনো উপায়ে এলাকার সন্ত্রাস নির্মূলের ওপর জোরালো বক্তব্য রাখেন।

দলীয় সূত্রে দাবী করেছে, পূর্ব থেকে সম্প্রতি র‌্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত বিএনপি সমর্থিত জিসান বাহিনীর সদস্যরা তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। সহকারী পুলিশ সুপার সার্কেল মো. নাছিম মিয়া ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, যে কোনো হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ঘটনার প্রতিবাদে ইউনিয়ন আ’লীগ আহবায়ক নিজামউদ্দিনের নেতৃত্বে যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের অংশ চন্দ্রগঞ্জ উপশহরে দুপুর ১২টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫, ০১:২১ পি. এম.

০১/০৯/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: