ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ৩১ মার্চ ২০২৩, ১৭ চৈত্র ১৪২৯

মেসিকে যেভাবে আটকাতে চায় নেদারল্যান্ডস 

প্রকাশিত: ১৫:২৯, ৮ ডিসেম্বর ২০২২; আপডেট: ১৫:৩৫, ৮ ডিসেম্বর ২০২২

মেসিকে যেভাবে আটকাতে চায় নেদারল্যান্ডস 

মেসি

নেদারল্যান্ডসের মতোই কোয়ার্টার ফাইনালটা হতে যাচ্ছে এখনো পর্যন্ত কাতার বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার সবচেয়ে কঠিন ম্যাচ।এই দুই দলের লড়াইয়ের অতীত ইতিহাসটা অবশ্য নেদারল্যান্ডসের পক্ষেই। এখনো পর্যন্ত আর্জেন্টিনার সঙ্গে বিশ্বকাপে পাঁচবার মাঠে নেমে দুবার জিতেছে নেদারল্যান্ডস। আর্জেন্টিনা জিতেছে একবার। ড্র হয়েছে দুটি ম্যাচ। এই ড্র হওয়া দুটি ম্যাচের একটি ছিল ২০১৪ বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল। যেটিতে আর্জেন্টিনা টাইব্রেকারে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে জায়গা করে নিয়েছিল ফাইনালে। ১৯৭৪ সালে পশ্চিম জার্মানির বিশ্বকাপে নেদারল্যান্ডস ৪-০ গোলে হারিয়েছিল আর্জেন্টিনাকে। 

১৯৭৮ সালের ম্যাচটি ছিল আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপের ফাইনাল। মারিও কেম্পেসের জাদুতে সে ম্যাচে আর্জেন্টিনা ৩-১ গোলে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে বিশ্বকাপ জিতেছিল। এর পরের লড়াইটি ১৯৯৮ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল। ডেনিস বার্গক্যাম্পের সেই জাদুকরি গোলের ম্যাচ। ডাচরা জিতেছিল ২-১ গোলে। ২০০৬ সালে জার্মানি বিশ্বকাপে গোলশূন্য ড্রয়ের পর ২০১৪-বিশ্বকাপের সেমিফাইনালও নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ে ছিল ০-০। এরপর টাইব্রেকারে সেদিন ডাচদের ভাগ্য-বিপর্যয় ঘটে। এর মানে, নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে আর্জেন্টিনা শেষবার সরাসরি জিতেছিল ৪৪ বছর আগে, ১৯৭৮ বিশ্বকাপের ফাইনালে বুয়েনেস এইরেসে।

মেসি, আলভারেজ, ম্যাক অ্যালিস্টার, দি মারিয়া, লাওতারো মার্তিনেজদের বিপক্ষে নেদারল্যান্ডস জয়ের জন্য ছক কষছেন নেদারল্যান্ডসের কোচ লুই ফন গাল। তবে সেই ছকে যে মেসিকে থামানোর বিষয়টা যে আলাদা করেই থাকবে, তা বলে দেওয়াই যায়। বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার মধ্যমণি হয়েই আছেন মেসি। মেক্সিকো, পোল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া—তিন ম্যাচেই মেসি ছিলেন দুর্দান্ত। মেক্সিকো ও অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে নিজে গোল করেছেন, গোল করিয়েছেনও।

মেসি একাই তো ম্যাচ জিতিয়ে দিতে পারেন, এটাই মাথায় রাখছে ডাচরা। নিজেদের রক্ষণে মেসি ঢুকে পড়লে তাঁকে আটকানো বেশ মুশকিল। তাই মেসিকে নিচ থেকেই থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করতে হবে ডাচদের।

২০১৪ বিশ্বকাপেও নেদারল্যান্ডসের কোচ ফন গালই ছিলেন। তিনি সেমিফাইনালে সেটিই করেছিলেন। মেসিকে নিচে আটকে রেখেছিলেন। তাঁর পেছনে লাগিয়েছিলেন নাইজেল ডি ইয়ংকে এবং সেটি কার্যকর হয়েছিল। গোটা ম্যাচেই নিষ্প্রভ ছিলেন মেসি। ১২০ মিনিটে মেসি ডাচদের গোলে মাত্র একবার শট নিতে পেরেছিলেন। পরে টাইব্রেকার জিতে ফাইনালে ওঠে আর্জেন্টিনা। কালকের ম্যাচে নাইজেল ডি ইয়ংয়ের সেই কাজটা খুব সম্ভবত করতে হবে মার্টেন ডি রুন।

মেসিকে পাহাড়া দিয়ে রাখার পাশাপাশি তাঁর পাসিং লাইনগুলোও বন্ধ করে দিতে হবে। এটা করতে হবে নিচে থেকেই। তিনি মার্কারকে ছিটকে বেরিয়ে যেতে পারেন অবলীলায়। ডাচ রক্ষণকে সেই মুহূর্তের জন্য সার্বক্ষণিক প্রস্তুত থাকতে হবে। সেই দায়িত্ব ভার্জিল ফন ডাইকের। এ ক্ষেত্রে তাঁর আদর্শ রন ভ্লার। ব্রাজিল বিশ্বকাপে ভ্লারের ট্যাকলগুলো নিশ্চয়ই ভুলে যাননি মেসি।

 


 

টিএস

সম্পর্কিত বিষয়:

শীর্ষ সংবাদ:

আইরিশদের কাছে হেরে টাইগারদের স্বপ্নভঙ্গ
রাজধানী থেকে ৪ ডাকাত গ্রেপ্তার
টস জিতে বোলিংয়ে গুজরাট
জবি ছাত্রদলের ৬ নেতাকে অব্যাহতি
ক্ষমতায় আসতে পারবে না নিশ্চিত হয়ে অন্য পরিকল্পনায় বিএনপি :আ ক ম মোজাম্মেল হক
রমজানে কিছু পণ্যের দাম বাড়লেও বর্তমানে কমে এসেছে
দমন-পীড়নে ক্ষতবিক্ষত গণতান্ত্রিক অধিকার :মির্জা ফখরুল
একদিনে করোনায় আক্রান্ত আরও ৫
বাংলাদেশে খাদ্যের অভাব নেই :শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।
আজ আইপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচ
আওয়ামী লীগের যৌথ সভা শনিবার
বাংলাদেশ থামল ১২৪ রানে
ব্যাটিং বিপর্যয়ে বাংলাদেশ
বগুড়ায় ১১০ কেজি গাঁজাসহ পিকআপভ্যান আটক
ট্রাম্পকে মঙ্গলবার দোষী সাব্যস্ত করা হতে পারে
দেশে ৮৫ হাজার নার্স কাজ করছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
আগারগাঁও থেকে উত্তরা মেট্রোরেলের সব স্টেশন চালু
টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ