কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

রানাপ্লাজা শ্রমিকের দিনযাপন ‘উপুড় হয়ে শুতে হয় ভালভাবে হাঁটতে পারি না...’

প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ‘উঁচু বিল্ডিং দেখলে ভয় লাগে। গাড়ির শব্দ শুনলেও ভয় লাগে। দিন দিন দুর্বল হয়ে যাচ্ছি। প্রায়ই শরীর অবশ হয়ে আসে। উপুড় হয়ে শুতে হয়। ভালভাবে হাঁটতে পারি না, সিঁড়ি দিয়ে উঠতে পারি না। আত্মনির্ভশীল হয়ে বেঁচে থাকতে গিয়ে আজ আমার এ অবস্থা। এজন্য মাত্র ৫০ হাজার টাকাই কী আমার ন্যায্য পাওনা’। রানাপ্লাজা দুর্ঘটনার দ্বিতীয় দিনে উদ্ধার হওয়া শ্রমিক জেসমিন এভাবেই তার বর্তমান অবস্থা তুলে ধরেন। ওই ভবনের ৫ম তলার পোশাক কারখানায় অপারেটর হিসেবে কাজ করতেন তিনি। রানাপ্লাজা ট্র্যাজেডিকে অতিক্রম করে একটি সমাপ্তি ও পুনর্গঠন কৌশলের সন্ধানে শীর্ষক পর্যালোচনা প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে সংলাপ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে ওই প্রতিবেদন প্রকাশ ও অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে জেসমিন বলেন, সেদিনের দুর্ঘটনায় ভেঙ্গে যায় তার মেরুদ-। যাতে এখন রড রয়েছে বলে জানান তিনি। একারণে ঠিকভাবে ঘুমাতে পারেন না। তিনি বলেন, উদ্ধার হওয়ার পর প্রথমে সাভার সিএমএইচ, এরপর ঢাকা মেডিক্যাল ও পরে সিআরপিতে চিকিৎসার করানোর পরও তিনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠেননি। অর্থাভাবে, চিকিৎসার অভাবে নিদারুণ কষ্টে দিনযাপন করছেন।

তিনি বলেন, ২০০৪ সালে তার বিয়ে হয়। তিন বছরের মাথায় একমাত্র কন্যা সন্তানসহ তাকে রেখে স্বামী চলে যায়। এরপর জীবিকার কারও সাহায্য না নিয়ে বেঁচে থাকার স্বপ্ন নিয়ে পোশাক কারখানায় কাজ নেন। নিয়মিত বেতন না পেলেও ভালই চলছিল তার জীবন। রানাপ্লাজার দুর্ঘটনা তার জীবনের সবকিছু শেষ করে দিয়েছে।

এখন আমার চিকিৎসা আর মেয়ের লেখা-পড়ার ভবিষ্যত অন্ধকার বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি। তবে, অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিজিএমএইএর সাবেক সভাপতি ও এনভয় গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুস সালাম মুর্শেদী জেসমিনের সারা জীবনের চিকিৎসা আর মেয়ের লেখা-পড়ার খরচ বহন করার প্রতিশ্রুতি দেন। এ সময় তিনি জেসমিনের উদ্দেশে বলেন, আপনি যেমন আত্ম সম্মানবোধ নিয়ে থাকতে পারেন তাই এটা সাহায্য হিসেবে না দিয়ে আপনাকে আমার প্রতিষ্ঠানে আপনার পছন্দমতো চাকরি দেয়া হবে। যেখানে আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী কাজ করার স্বাধীনতা থাকবে।

শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান। এতে অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মিকাইল শিপার, সিপিডির সম্মানিত ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী, সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, ব্যারিস্টার সারা হোসেন ও বিলস এর সহকারী নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

সিপিডির প্রতিবেদনে বলা হয়, রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির দুই বছর পার হলেও শ্রমিকদের পূর্ণাঙ্গ ক্ষতিপূরণ, আহত শ্রমিকদের নিয়মিত চিকিৎসা ও পুনর্বাসন, দায়ীদের শাস্তির মতো বিষয়ে এখনও সুরাহা হয়নি। এ সব বিষয়ে দ্রুততম সময়ে সম্মানজনক সমাধান হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করে গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ।

অনুষ্ঠানে রানাপ্লাজার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত একাধিক শ্রমিক সরকার ও আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) উদ্যোগে দেয়া ক্ষতিপূরণের অর্থ না পাওয়ার অভিযোগও তোলেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন সাভারের সিআরপিতে চিকিৎসা নেয়া শ্রমিক মরিয়ম। এছাড়া আনোয়ারা বেগম নামে এক নারীর অভিযোগ করেন, তার স্বামী রানাপ্লাজার ৯ম তলায় নির্মাণ কাজ করতেন। তিনি পোশাক শ্রমিক ছিলেন না। স্বামী মারা গেলেও তিনি কোন ক্ষতিপূরণের অর্থ পাননি।

টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান অভিযোগ করে বলেন, তাদের গবেষণায় উঠে আসে কারখানায় ট্রেড ইউনিয়নের নিবন্ধনের জন্য গড়ে প্রতিটি সংগঠনকে ৫ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ দিতে হয়েছে।

প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০১৫

২২/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: