আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

তিন সিটি নির্বাচনে সেনা মোতায়েন দাবি বিএনপির

প্রকাশিত : ২ এপ্রিল ২০১৫
  • প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে দলের নেতাদের সাক্ষাত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। বুধবার প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাত করে তারা এ দাবি জানান। পাশাপাশি তারা বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয় ও নয়াপল্টনে বিএনপির রাজনৈতিক কার্যালয়ের তালা খুলে দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন। অবশ্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমেদ বলেন, পরিস্থিতি বুঝে সিটি নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে বৈঠকে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে বিএনপির পক্ষ থেকে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে একাধিক দাবি-দাওয়া তুলে ধরা হয়। বৈঠকে বিএনপির পক্ষ থেকে নেতৃত্ব দেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আসম হান্নান শাহ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মুশফিকুর রহমান, এএসএম আবদুল হালিম, সৈয়দ সুজাউদ্দিন আহমেদ, ইসির সাবেক সচিব আবদুল রশিদ সরকার ও সাবেক যুগ্ম-সচিব এবিএম আবদুস সাত্তার প্রমুখ।

বৈঠক শেষে আসম হান্নান শাহ সাংবাদিকেদের বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরি করা প্রয়োজন। প্রার্থীরা যাতে ভোটারদের কাছে যেতে পারে সে জন্য সেনা মোতায়েনের দাবি করেছি। নির্বাচনী এলাকায় যাতে সন্ত্রাসী-মাস্তানি না হয় সে জন্য ব্যবস্থা নিতে বলেছি। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের তালিকা আগেই প্রকাশ করতে বলেছি যাতে বিতর্কিত কেউ যেন নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করতে না পারে। তিনি বলেন, প্রার্থী যদি ভোটারের কাছে যেতে না পারে তাহলে সেটা আর ভোট হবে না। করণিক ভুলের কারণে আবদুল আউয়াল মিন্টুর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে তাঁরা সিইসিকে বিষয়টি বলেছেন। সিইসি এ বিষয়ে আপীল করতে বলেছেন উল্লেখ করেন।

তিনি আরও বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার তাদের কথা মনোযোগ দিয়ে শুনেছেন। আইনের মধ্যে থেকে নির্বাচন সুষ্ঠু করতে যা যা করা দরকার তিনি করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। রাজনৈতিক দল হিসেবে সিইসির কাছে কিছু পয়েন্ট দিয়েছে। বিএনপির নয়াপল্টনের অফিস ও খালেদা জিয়ার অফিসের তালা খুলে দেয়ার জন্য সরকারকে অনুরোধ করতে সিইসিকে তাঁরা অনুরোধ করেছেন।

বিএনপির স্থায়ী অপর সদস্য জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, আমাদের দুটি পার্টি অফিসে তালা। এটা মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী। অজ্ঞাতনামা দুই হাজার ব্যক্তির নামে মামলা আছে, এই অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের ধরার নামে যেন দলীয় লোকদের ধরে নিয়ে না যায়। যারা জামিনে আছে তাদের যেন হয়রানি না করা হয়। বৈঠকে এসব বিষয় তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে কার্যালয় থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় প্রধান নির্বাচন কমিশনার সাংবাদিকদের বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে পরিস্থিতি বুঝে সেনা মোতায়েন করা হবে। আগামী ১৯ এপ্রিল এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক রয়েছে। সেখানে নির্বাচন পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

প্রকাশিত : ২ এপ্রিল ২০১৫

০২/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: