কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

৫ দিন ব্যাংক বন্ধ থাকায় বিড়ম্বনায় প্রার্থীরা

প্রকাশিত : ২২ মার্চ ২০১৫
  • সিটি নির্বাচন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণার পরদিন থেকে মনোনয়নপত্র গ্রহণ ও দাখিলের সময়সীমা ১১ দিন। তন্মধ্যে ৫ দিনই সরকারী ছুটি। ব্যাংক বন্ধ থাকায় পে-অর্ডার গ্রহণের ক্ষেত্রে বিড়ম্বনার মধ্যে পড়েছেন আগ্রহী প্রার্থীরা। শনিবার তাই চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় থেকে মনোনয়ন সংগৃহীত হয়েছে কম।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী সিটি নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র গ্রহণ ও দাখিলের নির্ধারিত সময়সীমা ১৯ মার্চ থেকে ২৯ মার্চ পর্যন্ত। কিন্তু এরই মধ্যে ২০, ২১, ২৬, ২৭ ও ২৮ মার্চ সরকারী ছুটি। এর ফলে আগ্রহী প্রার্থীরা ব্যাংক ড্রাফট সংগ্রহ করতে অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছেন। চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন অফিসের এক কর্মকর্তা জানান, শনিবার অনেকেই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে এসে ফেরত গেছেন। বিশেষ করে যাদের ইতোপূর্বে নির্বাচনে অংশগ্রহণের অভিজ্ঞতা নেই তারা মনোনয়নপত্র নিতে পারেননি। তারা এসেছিলেন নগদ টাকা নিয়ে। কিন্তু নগদে মনোনয়নপত্র বিক্রির নিয়ম নেই।

চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মোঃ আবদুল বাতেন এ প্রসঙ্গে বলেন, এগার দিনের মধ্যে ৫ দিন ব্যাংক বন্ধ থাকলে সমস্যা হওয়ারই কথা। তবে বিষয়টি যেহেতু কমিশনের দৃষ্টিগোচর হয়েছে সেহেতু এ ব্যাপারে কমিশন নিশ্চয় প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করবে। প্রয়োজনে আগামী ছুটির দিনগুলোতে ব্যাংকের বিশেষ বিশেষ শাখা খোলা রাখার ব্যবস্থা হবে।

প্রতীক নিয়ে অসন্তোষ ॥ এবার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এমন সব প্রতীক বরাদ্দ রাখা হয়েছে যেগুলো তেমন পরিচিত নয়। এছাড়া সাদা-কালো ব্যালটে এ সব প্রতীক ভোটারদের মধ্যে বিভ্রান্তিরও সৃষ্টি করতে পারে। অনেক প্রার্থীই জানান, স্থানীয় সরকার নির্বাচনের জন্য রাখা প্রতীকগুলো থেকে পছন্দের একটি প্রতীক বেছে নেয়া কঠিন হবে। কমিশন থেকে জানা যায়, মেয়র প্রার্থীদের জন্য প্রতীক রাখা হয়েছে ১২টি। প্রতীকগুলো হচ্ছে- কমলা, দিয়াশলাই, ক্রিকেট ব্যাট, ফ্ল্যাক্স, চরকা, বাস, টেবিল ঘড়ি, ময়ূর, টেলিস্কোপ, হাতি, ডিশ এ্যান্টেনা ও ইলিশ। একইভাবে সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদের প্রতীকগুলোও তেমন আকর্ষণীয় নয়।

চসিক রিটার্নিং অফিসার এ প্রসঙ্গে জানান, এবার সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রতীক আলাদা করে সংরক্ষণ করা হয়েছে। বিশেষ করে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর নামে যেসব প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে সেগুলো স্থানীয় সরকার নির্বাচনে রাখা হয়নি।

উল্লেখ্য, বিগত চট্টগ্রাম নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী এম মনজুর আলম আনারস প্রতীক এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী জাহাজ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছিলেন। এর আগের নির্বাচনগুলোতে মহিউদ্দিন চৌধুরী হারিকেন প্রতীক নিয়ে লড়েছিলেন। এবার আকর্ষণীয় এ প্রতীকগুলো নেই। মহিউদ্দিন চৌধুরী নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় সমস্যা নেই। কিন্তু এম মনজুর আলম যদি নির্বাচন করেন তাহলে তিনি নিশ্চিতভাবে তার প্রিয় আনারস প্রতীক পাচ্ছেন না। তবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সহসভাপতি হওয়ায় তিনি তার প্রতীক হিসেবে ‘ক্রিকেট ব্যাট’ নিতে পারেন এমন চাউর রয়েছে তার সমর্থকদের মধ্যে।

প্রকাশিত : ২২ মার্চ ২০১৫

২২/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: